পূর্ববর্তী সংবাদ
লিভারে বি ভাইরাসের সংক্রমণহেপাটাইটিস বি (ঐইঠ) নামক একটি ভাইরাসের আক্রমণে এ রোগ হয়। অনেক সময় সংক্রমণের প্রথম দিকে কোনো লক্ষণই প্রকাশ পায় না। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে বমি বমি ভাব, ক্লান্ত্মি, চামড়া হলুদ হয়ে যাওয়া, প্রস্রাব হলুদ হওয়া, পেটব্যথা ইত্যাদি লক্ষণ দেখা দিতে পারে...যাযাদি হেলথ ডেস্ক হেপাটাইটিস-বি ক্যারিয়ার এ শব্দটি সাধারণ্যে বেশ পরিচিত। সেজন্য এ বিষয়টি জানা অতীব প্রয়োজন।
হেপাটাইটিস বি হচ্ছে একটি মারাত্মক সংক্রামক রোগ, যা যকৃত অথবা লিভারকে আক্রমণ করে। হেপাটাইটিস বি (ঐইঠ) নামক একটি ভাইরাসের আক্রমণে এ রোগ হয়। অনেক সময় সংক্রমণের প্রথম দিকে কোনো লক্ষণই প্রকাশ পায় না। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে বমি বমি ভাব, ক্লান্ত্মি, চামড়া হলুদ হয়ে যাওয়া, প্রস্রাব হলুদ হওয়া, পেটব্যথা ইত্যাদি লক্ষণ দেখা দিতে পারে। বাংলাদেশে মোট জনসংখ্যার ৫ শতাংশ হেপাটাইটিস বি ভাইরাসের দীর্ঘমেয়াদি বাহক এবং এদের শতকরা ২০ শতাংশ রোগী লিভার ক্যান্সার অথবা সিরোসিসের কারণে মারা যেতে পারেন।
হঅন্যদিকে এ ধরনের রোগীর বিষয়ে সমাজে কিছু অবৈজ্ঞানিক ও উদ্ভট চিকিৎসাব্যবস্থা চালু আছে। অনেকেই স্বাভাবিক কাজকর্ম বন্ধ করে দিয়ে মাসের পর মাস পূর্ণ বিশ্রামে থাকার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। আবার কেউ কেউ মাছ-মাংস খাওয়া বন্ধ করে রাতারাতি নিরামিষভোজী হয়ে যান। কেউ তো আরও একটু এগিয়ে হলুদ, মরিচ, ঝাল, মসলা, তেল বাদ দিয়ে পেঁপে সিদ্ধ খাওয়ার কঠিন তপস্যায় নেমে পড়েন। প্রকৃতপক্ষে এগুলোর প্রয়োজন নেই। কারও রক্তে এইচবিএসএজি (ঐইংঅম) ৬ মাসের বেশি সময় ধরে পজিটিভ কিন্তু কোনো রোগ বা লক্ষণ প্রকাশ পায়নি তাদেরই বি-ভাইরাস ক্যারিয়ার বলা হয়।
কারা বি-ভাইরাস ক্যারিয়ার : বি ভাইরাসের ক্যারিয়ার বলতে হলে নির্ধারিত শর্ত পরিপূর্ণ করতে হয়। শর্তগুলো হলো-
৬ মাসের বেশি সময় ধরে এইচবিএসএজি (ঐইংঅম) পজিটিভ। এইচবিইএজি (ঐইবঅম) নেগেটিভ এবং এন্টি এইচবিই (ঐইব) পজিটিভ।
বি-ভাইরাসের ডিএনএ (ঐইঠ-উঘঅ) নেগেটিভ।
লিভার এনজাইম তথা এসজিপিটি (ঝএচঞ)
সাধারণভাবে চিকিৎসকরা শুধু এ-এন্টিজেন নেগেটিভ হলেই লিভারের রোগ নেই বলে নিশ্চিত হন। এটা ঠিক নয় বরং এটি অত্যন্ত্ম বিপজ্জনক। কারণ ই-এন্টিজেন নেগেটিভ হয়েও লিভারে মারাত্মক রোগ ক্রমবর্ধমান হারে চলতে পারে। গ্রিসে এক সমীক্ষায় দেখা গেছে শতকরা ৯০ ভাগ ক্রনিক লিভার রোগীরই ই-এন্টিজেন নেগেটিভ। আমাদের দেশেও এ সংখ্যাটি নিতান্ত্মই কম নয়। বি-ভাইরাসের ডিএনএ পরীক্ষাটি ব্যয়বহুল হলেও এ পরীক্ষাটি রোগ নির্ধারণের কেন্দ্রবিন্দু। এটি পজিটিভ হলে লিভার আক্রান্ত্ম হওয়ার সম্ভাবনা থাকে আর নেগেটিভ হলে রোগীকে বলা হবে ক্যারিয়ার।
ক্যারিয়ারদের ভবিষ্যৎ ও তার চিকিৎসা
যত লোক বি-ভাইরাসে আক্রান্ত্ম হয় তাদের শতকরা ১ ভাগ লোক ক্যারিয়ার হিসেবে আজীবন বি-ভাইরাস বহন করে থাকেন। এসব ক্যারিয়াররা সাধারণত তেমন কোনো অসুবিধা ছাড়াই জীবন কাটাতে পারেন। বি-ভাইরাস সাধারণত নিষ্ক্রিয় অবস্থায় থাকে। এক সময় এদের 'হেলদি ক্যারিয়ার' বলা হতো। তবে যে কোনো সময় বি-ভাইরাস আবার সক্রিয় হয়ে ওঠার সম্ভাবনা থাকে। এ জন্য এখন এদের নিষ্ক্রিয় ক্যারিয়ার বলা হয়। সক্রিয় হয়েছে কিনা এটা দেখার জন্য ৬-১২ মাস পর পর লিভার বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানে ২-১টি পরীক্ষা করাতে হয় এ প্রক্রিয়াটি সারাজীবনই চালিয়ে যেতে হবে। ক্যারিয়ারদের শতকরা ১ ভাগ লোক প্রতিবছর বি-ভাইরাস নেগেটিভ হয়ে যায়। এরা অত্যন্ত্ম সৌভাগ্যবান। এদের আর বিপদের সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। বি-ভাইরাসের ক্যারিয়াররা নিজেদের জন্য তেমন বিপজ্জনক না হলেও অন্যদের জন্য অসুবিধার কারণ হতে পারে। অর্থাৎ তাদের থেকে বি-ভাইরাস অন্যদের ছড়াতে পারে। এদের শরীরে বি-ভাইরাস নিষ্ক্রিয় থাকলেও যখন অন্যের শরীরে বি-ভাইরাস ছড়াবে তখন অন্যদের মারাত্মক লিভার রোগসহ মৃতু্যও হতে পারে। এজন্য সব লোকের ক্ষেত্রে রক্ত দেয়া সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। তা ছাড়া ক্যারিয়ারদের স্ত্রী, সন্ত্মানসহ কাছের সবাইকে হেপাটাইটিসের ভ্যাকসিন দেয়া প্রয়োজন। তবে বি-ভাইরাস ক্যারিয়ার হওয়া এবং জন্ডিস হওয়া সমার্থক শব্দ নয়। বি-ভাইরাস ক্যারিয়ার অর্থ হলো বি-ভাইরাস বহন করছেন কিন্তু এখনো লিভারে কোনো রোগ তৈরি হয়নি। অতএব বিশ্রামে থাকা, নিরামিষ খাওয়া কিংবা খাবার বেছে চলা একেবারেই নিরর্থক। এখানে চিকিৎসার মূল বিষয় হলো কখনো বি-ভাইরাস সক্রিয় হচ্ছে কিনা তা নিয়মিত খতিয়ে দেখা এবং সক্রিয় হলে দ্রম্নত সুনির্দিষ্ট চিকিৎসা করা। বি-ভাইরাস ক্যারিয়াররা কখনো বিদেশে চাকরির জন্য যেতে পারেন না।
তাই বলে বি-ভাইরাস ক্যারিয়ারদের আতঙ্কিত হওয়ার কিছুই নেই। এ বিষয়ে যার তার সঙ্গে আলাপ করা উচিত নয়। কারণ না জেনেই তারা বিভিন্ন ভুল পরামর্শ দিতে পারেন এবং আপনাকে অন্য চোখে দেখতে পারে। বরং একজন লিভার বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানে নিয়মিত পরামর্শ নেয়াটাই জরম্নরি।
 
পূর্ববর্তী সংবাদ
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close