নবম-দশম শ্রেণির পড়াশোনা (রসায়ন বিজ্ঞান)আশরাফুল আলম মিলন, সহকারী শিক্ষক সৃষ্টি শিক্ষা কেন্দ্র, মিরপুর, ঢাকা প্রিয় শিক্ষার্থী, আজ তোমাদের জন্য রসায়ন বিজ্ঞান থেকে প্রশ্নোত্তরের নমুনা দেয়া হলো_

তৃতীয় অধ্যায়: পদার্থের গঠন

অনুধাবনমূলক প্রশ্ন

প্রশ্ন : গাইগার কাউন্টার কী ব্যাখ্যা কর?
উত্তর : তেজস্ক্রিয়তা মাপার জন্য গাইগার কাউন্টার ব্যবহার করা হয়। তেজস্ক্রিয় 32P যুক্ত ফসফেট দ্রবণ উদ্ভিদের চলাচল চিহ্নিত করে বিজ্ঞানীরা কী কৌশলে (সবপযধহরংস) ফসফরাস ব্যবহার করে উদ্ভিদ বেড়ে ওঠে তা জানতে পারেন।

প্রশ্ন : 60Co কোথায় ব্যবহৃত হয় ব্যাখ্যা কর?
উত্তর : 60Co কোবাল্ট (তেজস্ক্রিয়) থেকে নির্গত গামারশ্মি নিক্ষেপ করে ক্যান্সার কোষফলাকে ধ্বংস করা হয়। খাদ্য সংরক্ষণে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলে।

প্রশ্ন : অক্সিজেন (O2)-এর পারমাণবিক সংখ্যাত, ইলেকট্রন ও নিউট্রন সংখ্যা বের কর?
উত্তর : অক্সিজেনের পারমাণবিক সংখ্যা ৮
ইলেকট্রন সংখ্যা হবে ৮
এবং নিউট্রন সংখ্যা = ১৬-৮ = ৮

প্রশ্ন : হাইড্রোজেনের তিনটি আইসোটোপ ব্যাখ্যা কর?
উত্তর : হাইড্রোজেনের মোট ৭টি আইসোটোপ আছে। তার মধ্যে তিনটি আইসোটোপ হলো প্রোটিয়াম, ডিউটেরিয়াম, টিট্রিয়াম। টিট্রিয়াম তেজস্ক্রিয়তার মাধ্যমে হয় এবং প্রকৃতিতে খুব সামান্য পরিমাণ পাওয়া যায়।

প্রশ্ন : TC-99m-এর ব্যবহার লিখ?
উত্তর : Technetium-99m দেহের হার বেড়ে যাওয়া, ব্যথার স্থান নির্ণয়নের জন্য 99mTc ইনজেকশন দিলে বেশ কিছু সময় পরে দেখা যায় হাড়ের কোথায় সমস্যা এবং চিহ্নিতকরণের মাধ্যমে চিকিৎসা করা হয়।

প্রশ্ন : ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীকে কেন কেমোথেরাপি দেয়া হয় ব্যাখ্যা কর?
উত্তর : ক্যান্সার (Cancer) আক্রান্ত রোগীর দেহে প্রয়োজনীয় বেশির ভাগ ব্যাকটেরিয়া মরে যায়। ফলে রোগীর দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা একেবারেই থাকে না। কেমোথেরাপিতে তেজস্ক্রিয় পদার্থ ব্যবহার করা হয়, ফলে রোগ ভালো হয়, কেমোথেরাপির প্রভাবে রোগীর মাথার চুল পড়ে, বমি বমি ভাব হয়। অনেক সময় প্রয়োজনীয় ব্যাকটেরিয়াও মেরে ফেলে। কেমোথেরাপি একটি জটিল ও কষ্টকর প্রক্রিয়া।

চতুর্থ অধ্যায়: পর্যায় সারণি

জ্ঞানমূলক প্রশ্নোত্তর
প্রশ্ন : পারমাণবিক সংখ্যা কী?
উত্তর : কোনো মৌলের প্রোটন সংখ্যাকে ওই মৌলের পারমাণবিক সংখ্যা বলে।

প্রশ্ন : IUPAC কী?
উত্তর : International Union of pure and Applied Chemistry. যা সংক্ষেপে IUPAC. এটা আন্তর্জাতিক রসায়ন ও ফলিত রসায়ন সংস্থা।

প্রশ্ন : পর্যায় সারণির জনক কে?
উত্তর : পর্যায় সারণির জনক রুশ বিজ্ঞানী দিমিত্রি মেন্ডেলিফ।

প্রশ্ন : পারমাণবিক সংখ্যা কে আবিষ্কার করেন?
উত্তর : বিজ্ঞানী হেনরি মোসলে পারমাণবিক সংখ্যা আবিষ্কার করেন।

প্রশ্ন : ক্ষার ধাতু কাকে বলে?
উত্তর : পর্যায় সারণিতে গ্রুপ-১-এ অবস্থিত মৌলসমূহ যথা Li, Na, R, Rb, Cs এবং Fr-কে ক্ষার ধাতু (অষশধষর সবঃধষ) বলা হয়।

প্রশ্ন : নিষ্ক্রিয় গ্যাস কী?
উত্তর : পর্যায় সারণিতে গ্রুপ-১৮-তে অবস্থিত মৌলসমূহকে নিষ্ক্রিয় মৌল বলে। এদের সর্ববহিঃস্থ স্তর ইলেকট্রন দ্বারা পূর্ণ থাকে।

প্রশ্ন : মৃৎক্ষার ধাতু কী?
উত্তর : গ্রুপ-২-এ অবস্থিত Be থেকে শুরু Ra পর্যন্ত মৌলসমূহকে মৃৎক্ষার ধাতু (alkali earth metal) বলে।

প্রশ্ন : হ্যালোজেন কী?
উত্তর : গ্রুপ-১৭-তে অবস্থিত মৌল F, Cl, Br, I ও এবং At এ ৫টি মৌলকে একত্রে হ্যালোজেন (halogene) বলে। হ্যালোজেন শব্দের অর্থ লবণ গঠনকারী (salt maker).

প্রশ্ন : অবস্থান্তর মৌল কী?
উত্তর : পর্যায় সারণিতে গ্রুপ ৩ থেকে গ্রুপ ১১ পর্যন্ত গ্রুপে অবস্থিত মৌলসমূহকে অবস্থান্তর মৌল (transition metal) বলা হয়।

প্রশ্ন : মুদ্রা ধাতু কাকে বলে?
উত্তর : পর্যায় সারণিতে গ্রুপ-১১-তে অবস্থিত মৌল-তামা (cu)), রুপা (Ag) ও সোনা (Au) ইত্যাদি ধাতুকে মুদ্রা ধাতু বলা হয়।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin