logo
শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

  তারেক হাসান   ৩০ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

নেকড়ে ও কুকুরছানা

নেকড়ে ও কুকুরছানা
একসময় এক বৃদ্ধ মা কুকুর ছিল যার তিনটি ছোট বাচ্চা ছিল এবং তাদের খাওয়ানোর জন্য পর্যাপ্ত খাবার ছিল না। সুতরাং যখন কুকুরটা বেশি বৃদ্ধ হয়ে যায়, তখন বাচ্চাদের ভাগ্য খুঁজতে তিনি তাদের বনে ঘুরতে পাঠিয়ে দেন।

প্রথম ছোট্ট বাচ্চাটি খুব অলস ছিল। সে কিছুতেই কাজ করতে চায়নি এবং খড় দিয়ে সে নিজের বাড়িটি তৈরি করে। দ্বিতীয় ছোট বাচ্চাটি খানিকটা বেশি কঠোর পরিশ্রম করেছিল তবে সে কিছুটা অলসও ছিল এবং সে তার কাঠ দিয়ে বাড়ি তৈরি করেছিল।

তৃতীয় ছোট্ট বাচ্চাটি সারাদিন কঠোর পরিশ্রম করে এবং ইট দিয়ে তার বাড়ি তৈরি করেছিল আগুন জালানোর চিমনির ভিতরে। দেখে মনে হচ্ছিল এটি শক্তিশালী বাতাসকে সহ্য করতে পারে।

পরের দিন, একটি নেকড়ে কুকুর বাচ্চা তিনটি যেখানে বাস করে সেই গলির পাশ দিয়ে যাচ্ছিল; সে খড়ে ঘরটি দেখে কাছাকাছি এগিয়ে গেল। প্রথমে কুকুরের গন্ধ পেল। পরে খাবারে সুগন্ধ পেল, ভেবেছিল যে কুকুরটি মজাদার খাবার তৈরি করছে এবং তার মুখে জল পড়তে শুরু করল।

সে দরজার কড়া নেড়ে বলল:

ছোট্ট কুকুর! ছোট্ট কুকুর! আমাকে তোর ঘরে ঢুকতে দে! আমাকে ঢুকতে দে!

কিন্তু ছোট কুকুর দরজার ফুটো দিয়ে নেকড়ের বড় পাঞ্জা দেখতে পায়, তাই সে জবাব দিয়েছিল:

না! না! না! তোমাকে ঢুকতে দেওয়া যাবে না! তুমি আমায় খেয়ে ফেলবে!

তখন নেকড়ে দাঁত দেখিয়ে বলল: আমাকে ঢুকতে দে, না হলে আমি হাফ ছাড়ব এবং ফুঁ দেবো এবং তোর ঘরটি তছনছ করে মাটির নিচে গুঁড়িয়ে দেবো।

কিন্তু ছোট কুকুর, দরজা খুলল না, আর নেকড়েও ভিতরে ঢুকতে না পেয়ে, হাফ ছাড়ল----হাফফফফফফ আর সঙ্গে সঙ্গে বাড়িটি তছনছ হয়ে মাটির নিচে চলে গেল! ভয়ে কিছু খড় নিয়ে দৌড়াতে দৌড়াতে ছোট কুকুরটি পালিয়ে গিয়ে মেজো কুকুরের বাড়িতে গিয়ে উঠল।

নেকড়েটি গলি ধরে অবিরত হাঁটছিল এবং সে কাঠ দিয়ে তৈরি দ্বিতীয় বাড়ির পাশ দিয়ে যাচ্ছে; বাড়িটি দেখতে পেল, কাছে যেতেই ভেতর থেকে গন্ধ পাচ্ছিল এবং তারা যে সুন্দর খাবার তৈরি করছে সেটা ভেবে তার মুখে জল আসতে শুরু করল।

দরজায় কড়া নাড়ল এবং বলল: ছোট্ট কুকুর! ছোট্ট কুকুর! আমাকে ঢুকতে দে! আমাকে ঢুকতে দে!

কিন্তু মেজো কুকুর দরজার ফুটো দিয়ে নেকড়েটির বড় কানটি দেখেছিল, তাই তারা জবাব দিয়েছিল: না! না! না! তোমাকে ঢুকতে দেওয়া যাবে না, তুমি আমাদের খেয়ে ফেলবে!

তাই নেকড়ে দাঁত দেখিয়ে বলল: ঢুকতে না দিলে আমি হাফ ছাড়ব এবং ফুঁ দেবো এবং তোর ঘরটি তছনছ করে দেবো!

কিন্তু তারা দরজা না খোলায়, নেকড়ে হাফ ছাড়ল এবং সে বাড়িটি তছনছ করে দিল! নেকড়ে লোভী ছিল এবং সে একবারে উভয় কুকুরকে ধরার চেষ্টা করেছিল! তার বড় চোয়ালগুলো বাতাস ছাড়া অন্য কিছুতে চেপে ধরেছিল এবং ছোট কুকুর দুটি পিছনের দরজা দিয়ে কিছু কাঠ নিয়ে দ্রম্নত পালিয়ে গেল।

নেকড়েটি তাদের পালিয়ে যাওয়া বুঝতে পেয়ে পিছনে পিছনে তাড়া করল এবং সে প্রায় তাদের ধরে ফেলল। কিন্তু তার আগেই কুকুর দুটি বড় কুকুরের ইটের বাড়িতে পৌঁছে যায় এবং নেকড়ে তাদের ধরে ফেলার আগেই দরজা বন্ধ করে ধমক দেয়। তিনটি ছোট কুকুর তারা খুব ভয় পেয়েছিল, তারা জানত নেকড়ে তাদের খেতে চায়। এবং এটি খুব সত্য ছিল। নেকড়েটি সারা দিন খায়নি এবং সে কুকুরগুলোকে তাড়ানোর জন্য অনেক ক্ষুধা পেয়েছিল। সে জানতো কুকুর তিনটি এখন ভিতরেই আছে এবং তিন কুকুর মিলে ভালো খাবার বানাবে।

তাই নেকড়ে দরজায় কড়া নেড়ে বলল, ছোট্ট কুকুর! ছোট্ট কুকুর! আমাকে ঢুকতে দে! আমাকে ঢুকতে দে!

কিন্তু ছোট কুকুরগুলো দরজার ফুটো দিয়ে নেকড়েটির সরু চোখ দেখেছিল, তাই তারা জবাব দিয়েছিল: না! না! না! তোমাকে ঢুকতে দেওয়া যাবে না, তুমি আমাদের খেয়ে ফেলবে।

তাই নেকড়ে দাঁত দেখিয়ে বলল: তারপরে আমি হাফ ছাড়ব এবং ফুঁ দেবো এবং তোদের ঘরটি মাটির নিচে চলে যাবে।

কুকুরগুলো জানত তার হাফে এখন আর কাজে আসবে না, তাই তারা বলল, ছাড়ো তোমার হাফ!

সে হাফ ছাড়ল এবং সে দম বন্ধ করে বেশ কয়েকবার। সে ফুঁসে উঠল। আবার হাফ ছাড়ল সে, হাফফফফফফ; কিন্তু সে ঘরটি মাটির নিচে ডাবাতে পারল না। অবশেষে, তিনি এতটা শ্বাস ছাড়ে, আর সে হাফ ছাড়তে পারে না এবং আর ফুফফুঁক করতে পারে না। তাই তিনি বিশ্রাম নিতে থাকলেন এবং কিছুটা ভাবলেন।

তবে এটি ছিল অনেক বেশি। নেকড়ে রাগের সঙ্গে নেচে উঠল এবং শপথ ??করল সে চিমনিতে নামবে এবং তার খাওয়ার জন্য ছোট্ট কুকুরগুলোকে খাবে। কিন্তু যখন তিনি ছাদে উঠছিলেন তখন ছোট্ট কুকুরগুলো খড় আর কাঠ দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয় চিমনির মাঝে, জ্বলতে শুরু করে এবং একটি বড় পাত্রে ফুটানো হয় জল। তারপরে, নেকড়ে যখন চিমনিতে নেমে আসছিল তখন নিচের সিঁড়িটা সরিয়ে ফেলে কুকুর। নিচের দিকে না তাকিয়েই পা দিতেই সিঁড়ি না পেয়ে, নেকড়ে সেই গরম জলের পাত্রে মধ্যে পড়ে গেল এবং জলের ভিতর সিদ্ধ হতে লাগল।

আর ছোট্ট কুকুরগুলো সিদ্ধ হওয়া নেকড়কে রাতের খাবারের জন্য খেয়ে ফেলে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে