logo
মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

  নন্দিনী ডেস্ক   ২১ মার্চ ২০২০, ০০:০০  

আমরা তোমাদের ভুলব না

আমরা তোমাদের ভুলব না
মুক্তিযুদ্ধের সংগ্রামী পথে হেঁটেছিলেন অনেক নারী- ছাত্রী, গৃহিণী ও কর্মী যেমন পেশারই হোক না কেন। যাদের সম্ভাবনা ছিল তারা সাংস্কৃতিক বা সাংগঠনিক সংগঠনের সঙ্গে কাজে নেমে পড়েছিল কিন্তু যে নারীরা বাড়িতে অসুস্থ বা প্রবীণ থাকার কারণে কিংবা দুগ্ধপোষ্য শিশু থাকার কারণে অথবা সংকোচ বা গৃহস্থালি কাজের চাপের কারণে গৃহ ছেড়ে যেতে পারেননি, তারাও সতর্ক হয়ে ওঠেন সংগ্রামের হাতছানিতে। তারা অসীম সাহসে নিজের গৃহকেই বানিয়েছিলেন দুর্গ। আশ্রয় দিয়েছিলেন অনেক মুক্তিযোদ্ধাকে। সেবা করেছেন। খাদ্য দিয়েছেন। নিজেদের গহনা বিক্রি করে মুক্তিযোদ্ধাদের অস্ত্র কেনার টাকা দিয়েছেন। নিজের ভেতরে অসীম সাহসিক উত্থান ঘটেছিল বলেই লাখ লাখ মা তাদের মাতৃস্নেহকে বিসর্জন দিয়ে সন্তানের হাতে তুলে দিয়েছিলেন অস্ত্র। পাঠিয়েছিলেন দেশের জন্য লড়তে।

অনেক বাড়িতেই মেয়েরা বঁটি, দা, কুড়াল, চাকু এসব অস্ত্র মজুদ রাখত আত্মরক্ষার জন্য। সংগ্রামের শুরুর দিকে যখন নারী সংগঠনগুলো নানা মিছিল মিটিংয়ের আহ্বান করত তখন অনেক মায়েরা হাতের কাছে পাওয়া ঝাড়ুটা ও লাঠিটা নিয়ে নেমে যেতেন রাজপথে। শহরের শিক্ষিত মা-বোনেরা না হয় সোচ্চার ছিলেন মাতৃভূমির অধিকার নিয়ে কিন্তু গ্রামের অশিক্ষিত অন্তঃপুরবাসী মহিলারা? তারা কী অসহায়ত্বের বলি হয়ে নীরবে সব সহ্য করেছিলেন? না। ইতিহাস বলছে- ওই অশিক্ষিত ভীতু বাঙালি নারীরাই শেষ পর্যন্ত তাদের সক্ষমতার চেয়েও বেশি জড়িয়েছিলেন স্বাধীনতা সংগ্রামে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে