logo
রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬

  ডা. তানজিনা আল্‌-মিজান   ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০  

কী দেব উপহার

কী দেব উপহার
১৪ ফেব্রম্নয়ারি, বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। অনেকেই উদগ্রীব হয়ে আছেন এই দিনটিকে পালন করার জন্য। অনেকেই হয়তো ভালোবাসার মানুষটিকে উপহার দেওয়া ভাবছেন। কিন্তু ভালোবাসা দিবসে প্রিয়জনের জন্য উপহার নির্বাচনে অনেকেই দ্বিধায় পড়েন। বুঝে উঠতে পারেন না; ঠিক কোন উপহারে প্রিয় মানুষটি অনেক খুশি হবেন। বাস্তবতা হলো- ছোট্ট উপহারও অনেক সময় দামি উপহারের চেয়ে বেশি আনন্দ দেয়।

আজকাল উপহার দেয়ার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয়তার কথাও মাথায় রাখতে হয়। এমন কিছু উপহার দেয়া ঠিক নয়; যা কখনোই কাজে আসে না। বরং এমন কিছু দেয়া উচিত যা কাজে লাগে। তাই ভালোবাসা দিবসে প্রিয়জনকে দেয়ার জন্য উপহার ঠিক করুন চিন্তা-ভাবনা করে। তার পছন্দ-অপছন্দের কথা মাথায় রেখে।

ছেলেদের উপহার

ছেলেদের উপহারের মধ্যে খুব জনপ্রিয় একটি আইটেম হলে সুগন্ধি। যদি জানা থাকে কোন ব্রান্ডের কোন সুগন্ধি আপনার ভালোবাসার মানুষটির পছন্দ- তবে চিন্তা কমে যায় অনেকটাই। তবে নতুন সুগন্ধি উপহার দেয়ার ক্ষেত্রে একটু সতর্ক হওয়া দরকার। কারণ সেটি তার ভালো নাও লাগতে পারে।

আরেকটি ভালো গিফট হলো শেভিং কিট। যদিও এটি খুবই ব্যক্তিগত। তবে উপহারটি প্রয়োজনীয়ও। তাই ভালোবাসা দিবসে সুন্দর একটি শেভিং কিট পছন্দের মানুষটিকে দিতে পারেন নিশ্চিন্তে। এ ছাড়া ভালোবাসা দিবসে ছেলে বন্ধুদের উপহার দেওয়ার জন্য ভাবতে পারেন ওয়ালেট, ঘড়ি, শো-পিস, অ্যাশট্রে, টি-শার্ট, কার্ড, টাই পিন, মগ, ফটোফ্রেমের কথা।

মেয়েদের উপহার

মেয়েদের জন্য একগুচ্ছ লাল গোলাপ হতে পারে ভ্যালেন্টাইনস ডের সবচেয়ে বড় উপহার। ব্যতিক্রম হিসেবে অর্কিড, ডালিয়া, জারবারা, দোলনচাঁপাও দিতে পারেন নিশ্চিন্তে। ফুলের পর ভালো উপহার হলো চকোলেট। অথবা দিতে পারেন কোনো ড্রেস, মেকআপ কিট, পছন্দের ব্যান্ডের লিপস্টিক, হাতঘড়ি, পার্স, সানগস্নাস, হেয়ার স্ট্রেইটনার, আংটি, লকেট বা কানের দুল। তবে উপহার যাই হোক, এর উপস্থাপন হতে হয় আকর্ষণীয়। উপহার বক্সের গায়ে কবিতার পঙ্‌তিমালাও লিখে দিতে পারেন।

কার্ড, চকোলেট, ফুল এগুলো একেবারে ইউনিক উপহার হলেও আপনি চাইলেই একটু ভিন্ন রকম উপহার আপনার পরিকল্পনায় আনতে পারেন। এই ডিজিটাল যুগে যেখানে ভাইবার, ইমো, ফেসবুকের জয়জয়কার সেখানে আপনার হাতে লেখা একটি চিঠি হতে পারে আপনার ব্যতিক্রমধর্মী চিন্তার পরিচায়ক এবং আপনার প্রিয়জনকেও চমকে দিতে পারবেন খুব সহজে।

রুমাল অথবা বালিশের কভারে সুইসুতোয় গেঁথে অথবা তুলির আঁচড়ে একে দিতে পারেন প্রিয় গানের চারটি লাইন। ছবি আঁকার শখ থাকলে নিজের আঁকা ছবি হালকা ফ্রেমে বেঁধে দিতে পারেন আপনার মনের মানুষটিকে। এতে আপনার আঁকানো যেমন সার্থক হবে তেমনি যাকে উপহারটি দিচ্ছেন তিনিও প্রফুলস্ন মনেই তা গ্রহণ করবেন।

উপহার হিসেবে বইয়ের কোনো বিকল্প নেই। এটি একদিকে যেমন জ্ঞানের ভান্ডারকে সমৃদ্ধ করবে তেমনি অন্যদিকে এটি আপনার রুচির পরিচায়ক হবে। রোমিও জুলিয়েটের প্রেমকাহিনী থেকে শুরু করে জীবনকাহিনী, এমনকি কবিতার বইও হতে পারে ভালোবাসা দিবসের উপহার।

তবে উপহার যাই হোক না কেন, দামি বা সস্তা, মনের অনুভূতি- আর অনুভূতি কীভাবে আপনি ব্যক্ত করছেন সেটিই মূল কথা। আর এই অনুভূতি ব্যক্ত করতে আপনাকে একধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে যদি একটু কষ্ট করে মনের মাধুরী মিশিয়ে একটি উপহার কিনে তাকে নিজ হাতে মনের মতো ডিজাইন করে মোড়কে আবদ্ধ করে সেটিকে প্রিয়জনের কাছে উপস্থাপন করতে পারেন।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে