logo
বুধবার ১৬ অক্টোবর, ২০১৯, ১ কার্তিক ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ১৬ মে ২০১৯, ০০:০০  

অনুমোদন ছাড়াই ছবির প্রচারণা

অনুমোদন ছাড়াই ছবির প্রচারণা
মুক্তির অপেক্ষায় থাকা 'শাহেনশা' ছবির একটি দৃশ্য
মাসুদুর রহমান

চলচ্চিত্রের প্রতি দর্শকের আকর্ষণ বাড়াতে প্রচারের বিকল্প নেই। প্রচার ছাড়া কোনো ছবি ব্যবসা সফল হয়েছে এমনটা খুঁজে পাওয়া কঠিন। এক সময় চলচ্চিত্র মুক্তির আগে দেয়ালে দেয়ালে সাঁটা হতো ছবির পোস্টার, রেডিও-টিভিতে চলত বিজ্ঞাপন, এমনটি মাইকিং করেও নতুন ছবির প্রচারণা চালানো হতো। সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পাওয়ার পরই নানাভাবে প্রচারণায় আসত ছবিটি। কিন্তু এখন সময়ের পরিবর্তন হয়েছে। সেই সঙ্গে পাল্টে গেছে প্রচারণার ধারা। প্রযুক্তির কল্যাণে সব কিছুই হাতের মুঠোয়। আর এই সুযোগে নিয়ম ভাঙার রীতি শুরু হয়েছে। সিনেমার শুটিং শুরু হওয়ার আগেই প্রকাশ পায় ছবির কাল্পনিক পোস্টার ও ব্যানার। কাজ শেষ হতে না হতেই ছবির পোস্টার, ফটোসেট, গান ও ট্রেইলর হিড়িক পড়ে যায়। ইউটিউবে প্রকাশ পায় ছবির টিজার। অনেক সময় সেই টিজারের সঙ্গে মুক্তির পর সিনেমার মিল থাকে না। পোস্টারেও থাকে গরমিল। ছবি মুক্তির অনেক আগে মুক্তি পায় সিনেমার গান। এসব যেন এখন রীতিতে পরিণত হয়েছে।

অথচ বাংলাদেশ সেন্সর বোর্ডের নিয়ম অনুযায়ী কোনো ছবি সেন্সর বোর্ডের অনুমোদন ছাড়া পোস্টার, ফটোসেট, গান, ট্রেইলর প্রকাশ করতে পারবে না। কিন্তু তারপরও চলছে এসব অনিয়ম। যার জন্য কোনো কোনো ছবি নিয়ে বির্তকও তৈরি হচ্ছে।

গত বছরে সেন্সর বোর্ডের ছাড় পত্র পাওয়ার মাসখানেক আগে একটি গান প্রকাশ করে সমালোচনার ঝড় তুলে জাজ মাল্টিমিডিয়ার 'দহন' ছবি। রায়হান রাফী পরিচালিত এ সিনেমার 'হাজীর বিরিয়ানি' শিরোনামের গানকে কেন্দ্র করে তুমুল আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়। গানটির কথা ও ভিডিও 'অশালীন' বলে অভিযোগ করেন দেশের নন্দিত গীতিকার, সুরকার ও শিল্পীরা। এ কারণে সেন্সর বোর্ড থেকে গানটি সরিয়ে নিতে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া বরাবর চিঠি পাঠানো হয়। পরে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান তাদের ইউটিউব চ্যানেল থেকে গানটি সরিয়ে নেয়।

এর আগে ২০১৭ সালে সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্রের আগে নুসরাত ফারিয়া অভিনীত 'বস-২ ছবিটি' ছবির 'আলস্নাহ মেহেরবান' গানটির ভিডিও ইউটিউবে প্রকাশ হওয়ার সঙ্গে তা নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য আসতে থাকে। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করা হয়েছে দাবি করে একজন আইনজীবী গানটির প্রচার বন্ধের জন্য আইনি নোটিসও পাঠান। অবশেষে ইউটিউব থেকে ভিডিওটি প্রত্যাহার করা হয়।

শামীম আহমেদ রনি পরিচালিত ছবি 'শাহেনশাহ'। এ ছবিতে জুটি বেঁধেছেন শাকিব খান ও নুসরাত ফারিয়া। প্রথমে ছবিটি গত ২২ মার্চ মুক্তির কথা ছিল। নানা কারণে মুক্তির তারিখ কয়েক দফা পিছিয়ে ছবিটি এবার ঈদে আলোর মুখ দেখছে। জানা গেছে, ছবির কাজ এখনো পুরোপুরি শেষ হয়নি। গত ২৫ জানুয়ারি প্রকাশ পায় এ ছবির এক মিনিটের টিজার। টিজারজুড়েই মারামারি, গোলাগুলি আর অ্যাকশন দৃশ্য। লাইভ টেকনোলজিস ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ পায় এটি। এ নিয়ে ছবির পরিচালক শামীম আহমেদ রনি তখন বলেছিলেন, মুক্তির আগে ছবির প্রচারের অংশ হিসেবে প্রথম টিজার মুক্তি দেয়া হয়। ১৪ ফেব্রম্নয়ারি ভালোবাসা দিবসে দ্বিতীয় টিজার মুক্তি পাবে। এরপর মুক্তির ঠিক আগে আগে ছবির চূড়ান্ত ট্রেলার প্রকাশ করা হবে। আর গানগুলো ফাঁকে ফাঁকে ইউটিউবে উঠবে।

শুধু বাণিজ্যিক ধারার চলচ্চিত্রের বেলাতেই নয়, ভিন্ন ধারার চলচ্চিত্রেও দেখা গেছে একই চিত্র। তৌকির আহমেদ পরিচালিত 'ফাগুন হাওয়ায়' ছবিটি মুক্তি পায় ১৫ ফেব্রম্নয়ারি। তার আগে ২০ জানুয়ারি মুক্তি পায় চলচ্চিত্রটির ২ মিনিট ৯ সেকেন্ডের ট্রেলার। ছবিটি সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পায় ৩ ফেব্রম্নয়ারি।

চিত্রনায়ক, প্রযোজক ও পরিচালক সোহেল রানা বলেন, 'সেন্সরের আগে ছবির কোনো কিছুই পাবলিক দর্শন হতে পারে না। সেই ছবির গান, টিজার, পোস্টার প্রচার বা প্রকাশ করা সেন্সর বোর্ডের নীতিমালানুযায়ী নিষিদ্ধ হলেও এসব এখন চলছে। কিন্তু এর বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষের কোনো পদক্ষেপ নেই। আসল কথা হলো- আমাদের দেশে নীতিমালা হয়, আইন হয় কিন্তু এর যথাযথ প্রয়োগ হয় না। কখনো কখনো আইনের ব্যবহার চলে ক্ষেত্র বিশেষ। ছোট্ট একটি উদাহরণ দিলে সহজ হবে। মাদক ব্যবহারের কারণে প্রায় প্রতিদিন ক্রসফায়ারে নিহত হচ্ছে। কিন্তু চাক্ষুস ধর্ষণের কারণে, ধর্ষণের পর হত্যা করার পরও অপরাধীর বিচার হচ্ছে না। মাদক ব্যবহার কিংবা বহনের কারণে যদি তার মৃতু্য হতে পারে তবে চাক্ষুস ধর্ষণের কারণে কেন ধর্ষকের মৃতু্য হয় না? তা না হয়ে তদন্তের নামে বছরের পর বছর ফাইল বন্দি হয়ে থাকে। অবশেষে বিচার হলেও হয় ৫/৬ বছরের জেল। কোনো অপরাধে পুলিশ অফিসার জড়িত থাকলে তার শাস্তি হয় অন্যত্র বদলি। এটাকি কোনো শাস্তি হতে পারে? এসব বিষয়গুলো সত্যিই হাস্যকর।'

এ বিষয়ে কথা হয় বাংলাদেশ সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান নিজামুল কবিরের সঙ্গে। তিনি বলেন, 'আসলে সেন্সর সার্টিফিকেট পাওয়ার আগে কোনো সিনেমার গান, টিজার ও পোস্টার প্রকাশ করার বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এটা অনুচিত।' তারপরও এসব অন্যায় করা হচ্ছে। এ বিষয়ে সেন্সর বোর্ড কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করে কি না জানতে চাইলে নিজামুল কবির বলেন, 'এ নিয়ে নোটিস ও শোকজও করা হয়।'

সেন্সর বোর্ডের সদস্য পরিচালক মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, 'সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পাওয়ার আগে পোস্টার, ফটোসেট, গান, ট্রেইলর প্রদর্শনে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এটা বেআইনি। এ নিয়ে কেউ যদি কোনো অভিযোগ করেন তাহলে ব্যবস্থা নেয়া হয়।'
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে