রোববার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্বকবির 'রক্তকরবী' মঞ্চায়ন

মো. খশরু আহসান
  ২৭ মে ২০২৩, ০০:০০

বৈশাখের বিষাদময় সন্ধ্যা। আকাশে মেঘ, উত্তরের হাওয়া বইছে। কালবৈশাখীর আভাসে আকাশ যেমন নিজেকে সাজিয়েছে, তেমনিভাবে তিন দিনব্যাপী রবীন্দ্রজয়ন্তীর বিশাল আয়োজনের সেই সন্ধ্যায় নর্থ সাউথও নিজেকে সাজাল। ছোট্ট ক্যাম্পাস। বিশাল আকারের ব্যানারগুলো ছেয়ে গেছে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছবিতে। নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আমন্ত্রণে রবীন্দ্রজয়ন্তীর আয়োজন উপভোগ করতে এসেছে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি দল। লম্বা লাইন দেখে এগিয়ে গেলাম। শুনলাম, নর্থ সাউথের কেন্দ্রীয় অডিটোরিয়ামে মঞ্চস্থ হবে কবিগুরুর লেখা নাটক 'রক্তকরবী'। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আসা দলও নৃত্য পরিবেশন করবে, কবিতা আবৃত্তি করবে মঞ্চনাটক, থিয়েটারের ব্যাপারগুলোতে নিজেকে ধরে রাখা মুশকিল। আমি আনন্দিতই হলাম।

টিকিট সংগ্রহ করে একদম সামনের সারির দিকে বসে পড়লাম। দীর্ঘ সময় পর এমন মঞ্চনাটক! গায়ে কাঁটা দেওয়ার মতো। লোভ মানুষকে এমন একটি অবস্থানে নিয়ে যায়, যেখানে মানুষ একপর্যায়ে নিজেকেও বিক্রি করে ফেলে। এক সময় যন্ত্রণাদায়ক মৃতু্য হয় লোভীর। সেই মৃতু্য দেহের নয়, হয় আত্মার। নাটকে সেরকমই চরিত্র যক্ষপুরীর রাজার। মুহতাসিম আন নাফি অভিনয় করছেন রাজার চরিত্রে। নাফির কণ্ঠের দৃঢ়তায় স্পষ্ট ফুটে উঠছে শোষণের চিত্র। প্রজাশোষণের মাধ্যমে নিজের স্বার্থ হাসিল করাই তার ধর্ম। ধর্মকে পুঁজি করে মানুষকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখানোর চরিত্র 'গোঁসাই' ওরফে রাহাত জামান। নাটকে লোভী রাজার কার্যক্রমে একদিকে যেমন রাজ্যের সব মনষ্যত্ব ও মানবতা পুড়ে ছাই হয়ে যায়; তেমনি অন্যদিকে দেখা যায়, জীবনের সব প্রেমের সৌন্দর্য দিয়ে সাজানো চরিত্র 'নন্দিনী'। মৃতু্যও যে মানুষের সবচেয়ে বড় অস্ত্র হতে পারে, রঞ্জন এবং নন্দিনী তারই প্রতিচ্ছবি। মালতী, মলিস্নকা, চামেলি- এত ফুল থাকতে বিশ্বকবি কেন নামকরণে রক্তকরবী ফুলকেই বেছে নিলেন, নাটকে তাই স্পষ্ট হয়েছে। রূপক অর্থের এই নাটকটিতে বিশ্বকবি খুবই স্পষ্টভাবে পেশিশক্তি ও প্রেমের শক্তির পার্থক্য ফুটিয়ে তুলেছেন। রেললাইনের অসংখ্য উত্তপ্ত পাথরের মধ্যে চাপা পড়ে থাকা ফুলগাছটির বেঁচে থাকা জানান দেয় 'রক্তকরবী'।

এ শহরের মানুষও আজকাল ইট-পাথরের দেয়ালের মতোই আচরণ করে। দাঁতে দাঁত চেপে কঠিন স্বরে কথা বলে। মানুষ বিপদে পড়লে তাকে উদ্ধারের পরিবর্তে মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। মানুষের মতোই সীমাহীন চাওয়া-পাওয়ার ফলাফল দেখা যায় রক্তকরবীতে।

যে কিঞ্চিৎ অংশটুকু বেঁচে আছে- তার পেছনে রয়েছে সত্যিকারের সাংস্কৃতিক মানুষ। নর্থ সাউথের সিনে অ্যান্ড ড্রামা ক্লাব সেই কিঞ্চিৎ অংশকে একটু একটু করে বৃদ্ধি করার প্রচেষ্টায় গত কয়েক বছর ধরে মঞ্চনাটকে নিজেদের আভিজাত্য দেখিয়ে আসছে। এই যেমন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের কথাই ভাবা যাক। কাটাতারের সীমানা সংস্কৃতিকে বাঁধতে পারেনি। রবীন্দ্রজয়ন্তীর আয়োজন দুই বাংলাকে একই আসনে বসিয়েছে। সংস্কৃতির মূল শিক্ষা এখানেই। এ জন্যই বলা হয়ে থাকে, সাহিত্যের কোনো সীমানা হয় না।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তার লেখা অসংখ্য কবিতায়, গানে একদিকে যান্ত্রিকতার তিক্ত কোলাহল এবং অন্যদিকে জীবনের সজীবতাকে ফুটিয়ে তুলেছেন। রক্তকরবী তারই অংশ। জীবনধর্মের সজীবতার মতো স্নিগ্ধ এই পৃথিবীতে আর কিছুই নেই। অথচ কি যেন একটা অদৃশ্য চাওয়া- পাওয়া আমাদের ঘিরে রেখেছে। আমরা ছুটছি, ছুটছি আর ছুটছি। কেন ছুটছি জানি না। তবে কিছু একটার জন্য। এভাবে একদিন হঠাৎ করেই থমকে দাঁড়াতে হয় আমাদের। প্রচন্ড যন্ত্রণায় হাঁফিয়ে উঠি। থেমে যাওয়া পথের ঠিক সামনেই দাঁড়িয়ে থাকে মৃতু্য! বৈশাখের কালো মেঘের মতো। যে মেঘ কখনো বৃষ্টি হয়ে ঝরে পড়ে না।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে