ফুলেল শ্রদ্ধায় সীতাকুন্ডের বন্ধুদের শহিদ স্মরণ

ফুলেল শ্রদ্ধায় সীতাকুন্ডের বন্ধুদের শহিদ স্মরণ
চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে শহিদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাচ্ছেন ফ্রেন্ডস ফোরামের সদস্যরা

অপমানে তুমি জ্বলে উঠেছিলে সেদিন বর্ণমালা, সেই থেকে শুরু দিন বদলের পালা। গীতিকবির ভাষায় জাতির দিনবদলের পালা শুরু হয়েছিল যেদিন, বাঙালির মননে অনন্য মহিমায় ভাস্বর চিরস্মরণীয় সেদিন একুশে ফেব্রম্নয়ারি।

ইতিহাসের পাতায় রক্ত পলাশ হয়ে ফোটা সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার, শফিউর, আউয়াল, অহিউলস্নাহর রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রম্নয়ারির শুক্রবার সকালে পৃথক ফুলেল শ্রদ্ধায় শহিদদের স্মরণ করলো জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম সীতাকুন্ডের বন্ধুরা। ভোরের আলো ফুটতে না ফুটতেই একে এক জড়ো হতে থাকেন বন্ধুরা। সবাই এক স্থানে সমবেত হয়ে প্রভাতফেরি নিয়ে ছুটে যান শহিদ মিনারে। শহিদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা শেষে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

\হফ্রেন্ডস ফোরাম বন্ধুদের একটি দল খুদে বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে ঘিরে প্রভাত ফেরির আয়োজন করে। প্রভাত ফেরি শেষে বন্ধুরা সীতাকুন্ডের বাড়বকুন্ড ইউনিয়নের মাহামুদাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের শহিদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে ফ্রেন্ডস ফোরাম উপদেষ্টা ও যায়যায়দিন প্রতিনিধি সবুজ শর্মা শাকিলের সভাপতিত্বে শহিদ দিবসকে ঘিরে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে মুক্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে শহিদদের অবদানের কথা স্মরণ করে বক্তব্য রাখেন ফ্রেন্ডস ফোরাম সদস্য ও ইউপি মেম্বার জহিরুল ইসলাম জহির, এ আর শামীম, আরিফুল ইসলাম, জয় শর্মা ও শাহাদাৎ হোসেন।

ফ্রেন্ডস ফোরাম সদস্য ও ইউপি মেম্বার জহিরুল ইসলাম জহির বাংলা ভাষা আন্দোলনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সম্পৃক্ততার ইতিহাস বর্ণনা করে বলেন, ১৯৯৯ সালে ইউনেসকো একুশে ফেব্রম্নয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করেছে। এই দিনটিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণার মাধ্যমে সারা বিশ্বে ভাষার অধিকারের দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। তারপর থেকে এইদিনে বাঙালির সঙ্গে সারা বিশ্বেই দিনটি উদযাপন করা হচ্ছে। একুশে ফেব্রম্নয়ারির শহিদদের অর্থাৎ সালাম, বরকত, রফিক, জব্বারদের স্মরণ করা হচ্ছে। এটা বাঙালির জন্য অসীম গৌরবের।

১৯৭১ সালের স্বাধীনতা সংগ্রামের বীজ ভাষা আন্দোলনেই অঙ্কুরিত হয়েছিল উলেস্নখ করে তিনি আরো বলেন, বিশ্বের যা কিছু মহৎ, সবই আমরা গ্রহণ করব। আমরা প্রয়োজনের তাগিদে বিভিন্ন ভাষা আয়ত্ত করব। কিন্তু আমাদের আমাদের মাতৃভাষার মাধ্যমে এগিয়ে যেতে হবে।

অন্যদিকে ২১ ফেব্রম্নয়ারি মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রথম প্রহরে উপজেলার ভাটিয়ারী বিজয় সরণি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের শহিদ মিনারে পৃথক ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ফ্রেন্ডস ফোরাম দক্ষিণের বন্ধুরা। এ সময় ফুলেল শ্রদ্ধা শেষে কলেজ ক্যাম্পাসে ফ্রেন্ডস ফোরাম সভাপতি মামুনুর রশিদ মামুনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন, ফ্রেন্ডস ফোরাম বন্ধু বিজয় সরণি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মোহাম্মদ ইফতেখার আলম, মোহাম্মদ আনোয়ার সাদেক, মো. মাকসুদুর রহমান, মো. মোস্তফা, অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক মো. নাজিম উদ্দিন, মছিউর দোলা, মো. করিম, সাজ্জাদুল ইসলাম সাকিব, মো. আরফাত, মো. হৃদয় ও মামুন প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান রাষ্ট্রের অভু্যদয়ের পরে বাংলা ভাষা ষড়যন্ত্রের কবলিত হলে শুরু হয় ভাষা আন্দোলন। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রম্নয়ারি এই আন্দোলন চূড়ান্ত পরিণতি লাভ করে। সেদিন মাতৃভাষার সম্মান রক্ষার্থে বাংলা মায়ের বীর সন্তানরা বুকের তাজা রক্তে রঞ্জিত করেছিলেন ঢাকার রাজপথ এবং আত্মাহুতি দিয়েছিলেন নিজেদের জীবন। তাই এই দিনটি বাঙালির ইতিহাসে একটি অনন্য ও অসাধারণ দিন।

উপদেষ্টা

জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম

সীতাকুন্ড, চট্টগ্রাম

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে