আদালতের নির্দেশে সংগ্রহ করা হলো শুক্রাণু, মারা গেলেন করোনা রোগী

আদালতের নির্দেশে সংগ্রহ করা হলো শুক্রাণু, মারা গেলেন করোনা রোগী

স্বামী একেবারে মৃতু্যপথযাত্রী। একের পর এক অঙ্গ বিকল হয়ে গিয়েছে। বেঁচে ফিরে আসার ক্ষীণ আশা। যে কোনো সময় তার মৃতু্যর সংবাদ আসতে পারে। এদিকে তার স্ত্রীর সন্তান লাভের ইচ্ছা। তাই স্ত্রী চেয়েছিলেন স্বামীর শুক্রাণু সংগ্রহ করা হোক কৃত্রিম উপায়ে। কিন্তু তাতে রাজি হননি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

শেষমেশ আদালতের দ্বারস্থ হন নারী। মঙ্গলবারই আদালত নারীর আবেদনে অনুমোদন দেয়। সেই অনুমতি পেয়ে নারীর স্বামীর শুক্রাণু সংগ্রহ করা হয়। বৃহস্পতিবার মৃতু্য হলো সেই ব্যক্তির। ভারতের গুজরাটের বডোদরার এ ঘটনা ঘটেছে। ৩২ বছরের এক ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হন। তার শারীরিক অবস্থার ক্রমে অবনতি হওয়ায় লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। স্বামীর মুমূর্ষু অবস্থা দেখে তার শুক্রাণু সংগ্রহ করে রাখার পরিকল্পনা করেন নারী। স্বামীর মৃতু্যর পর তার ঔরসে কৃত্রিম উপায়ে সন্তান ধারণ করতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু নারীর স্বামী এই প্রক্রিয়ায় সম্মতি দেওয়ার মতো অবস্থায় ছিলেন না। ফলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শুক্রাণু সংগ্রহে রাজি হননি।

এর পরই নারী মঙ্গলবার গুজরাট হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন। বিষয়টি জানিয়ে একটি হলফনামা দাখিল করেন। বিচারপতি আশুতোষ জে শাস্ত্রী জরুরি ভিত্তিতে সেই মামলার শুনানি করেন। জরুরি ভিত্তিতে এই শুনানি শেষ করে আদালত হাসপাতালকে নির্দেশ দেন আইভিএফ অথবা এআরটি পদ্ধতির মাধ্যমে দ্রম্নত নমুনা সংগ্রহের জন্য। চিকিৎসকদের পরামর্শ মেনে উপযুক্ত জায়গায় এই নমুনাটিকে সংরক্ষণ করার ব্যাপারেও দেওয়া হয় নির্দেশনা।

আদালতের নির্দেশ পেয়েই মঙ্গলবারই শুক্রাণু সংগ্রহ করেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। হাসপাতালের শীর্ষ কর্মকর্তা অনিল নাম্বিয়ার বুধবার সাংবাদিকদের জানান, চিকিৎসকরা মঙ্গলবার রাতেই ওই ব্যক্তির শুক্রাণু সংগ্রহ করেন। তিনি আরও জানান, রোগীর পরিবার এই প্রক্রিয়ায় রাজি থাকলেও যার শুক্রাণু সংগ্রহ করা হবে তার সম্মতি নেওয়া প্রয়োজন ছিল।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে