মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১

অধিকারের জন্য নারীর লড়াই

নাজমুন নাহার ঝুমুর
  ০৪ জুন ২০২৪, ০০:০০
অধিকারের জন্য নারীর লড়াই

বাংলাদেশ সেই আগুনের কাছে অপরিচিত নয় যা একজন সাধারণ বাঙালি নারীর আত্মা তৈরি করে। ১৯৫২ সাল, এমন এক সময়, যখন তৎকালীন পূর্ব বাংলা (বর্তমানে বাংলাদেশ) মূলত পিতৃতান্ত্রিক সামাজিক কাঠামোকে ঘিরে গড়ে উঠেছিল, পূর্ব বাংলার নারীরা বাংলা ভাষার সরকারি স্বীকৃতির দাবিতে পুরুষদের পাশাপাশি লড়াই করার জন্য সামাজিক রীতিনীতি এবং পারিবারিক প্রতিরোধের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করার ক্ষেত্রে এক মুহূর্তের জন্যও দ্বিধাবোধ করেননি। প্রতিটি নারীর জন্য নারীর ক্ষমতায়ন আনার জন্য, এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যে, পরিবারের সদস্যদের মন এবং একজন নারীর চারপাশের সমাজের ক্ষমতায়নের দিকে মনোনিবেশ করা হয়।

সৌভাগ্যবশত, সমান ভোটাধিকারের অধিকার, একটি মৌলিক অধিকার যার জন্য বিশ্বব্যাপী নারীদের কয়েক দশক ধরে লড়াই করতে হয়েছিল। ১৯৭২ সালে গৃহীত বাংলাদেশের সংবিধানে নারীদেরও পুরুষের সমান ভোটাধিকার নিশ্চিত করার পাশাপাশি, ৭০-এর দশকের বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়নের প্রেক্ষাপটে ঐতিহাসিক হিসেবে বিবেচিত নারীদের পক্ষে যে বিধানগুলো রয়েছে, তা সুস্পষ্টভাবে উলেস্নখ করা হয়েছে। এই ধরনের নিয়মগুলোর মধ্যে রয়েছে 'জাতীয় জীবনের সমস্ত ক্ষেত্রে' মহিলাদের জন্য সমান সুযোগ প্রদান করা এবং সংসদে মহিলা সদস্যদের জন্য একচেটিয়াভাবে আসন সংরক্ষণ করা। এমন একটি বিশ্বে যা ছিল, এবং এখনো আছে। বাংলাদেশের মতো একটি নতুন দেশের জন্য এত তাড়াতাড়ি নারীদের জন্য এই ধরনের অধিকার নিশ্চিত করা এবং ক্ষমতায়নের ভবিষ্যতের জন্য আশার প্রতিফলন ছিল। হতাশ করেনি বাংলাদেশ।

১৯৭১ সাল থেকে, বাংলাদেশ এমন একটি জাতি- যা লিঙ্গ বৈষম্য দূর করতে আগ্রহী এবং এতে রাজনীতির ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। ১৯৯১ সালে বাংলাদেশ তার প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে নির্বাচিত করে। সেই সময়কার প্রধান বিরোধী দলের নেতৃত্বেও ছিলেন একজন নারী। বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে, এই দুই মহিলা বাংলাদেশের প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোকে নেতৃত্ব দিয়েছেন- যা একটি শক্তিশালী ঐতিহ্যের মুখে; যা মুসলিম বিশ্বের নারীদের নেতৃত্বের পদে থাকার বিরোধিতা করে চলেছে, নেতৃত্বের একটি শক্তিশালী বার্তা প্রেরণ করে। এই ধরনের নারী নেতাদের উলেস্নখযোগ্য অবদান রাজনীতিকে আলিঙ্গনকারী নারীর মধ্যে বাংলাদেশের ধারাবাহিক বিকাশকে সহজতর করেছে। উদাহরণস্বরূপ, আরো বেশি নারী সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন, মন্ত্রী এবং স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধি হয়েছিলেন। বাংলাদেশের সংসদের বর্তমান স্পিকারও একজন নারী, দেশের জন্য আরেকটি উলেস্নখযোগ্য প্রথম।

যদিও বাংলাদেশ রাজনীতিতে নারীদের কণ্ঠস্বর শোনার ক্ষেত্রে একটি অভূতপূর্ব বৃদ্ধি দেখেছে, তবে এই সংখ্যাগুলো উন্নতির জন্য জায়গা ছেড়ে দিয়েছে। গবেষণায় দেখা গেছে, ২০০৮ সালের হিসাব অনুযায়ী, সংসদে ৩০০টি আসনের মধ্যে নারী সংসদ সদস্যরা মাত্র ১৮ দশমিক ছয় শতাংশ আসন পান। সমাজে নারীর স্বার্থের স্বীকৃতি কেবল দেশের নজরে আনাই নয়, বরং এমন একটি লিঙ্গের মাধ্যমে করা হয়েছে- যা এই স্বার্থের প্রতি সহানুভূতিশীল হতে পারে তা নিশ্চিত করার জন্য বাংলাদেশের রাজনীতিতে আরো বেশি নারীর অংশগ্রহণ প্রয়োজন। বলা হচ্ছে, দুই দশক ধরে দেশটি মহিলাদের পক্ষে ফ্ল্যাগশিপ আইন এবং নীতি প্রণয়ন করেছে। ১৯৯৫ সালে, বাংলাদেশের সংসদ 'নারী ও শিশু নির্যাতন (বিশেষ বিধান) আইন-১৯৯৫' (নারী ও শিশু নিপীড়ন [বিশেষ বিধান] আইন) পাস করে- যা অন্যদের মধ্যে, নারীদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বিয়ে করতে বাধ্য করে এবং যৌতুকের কারণে মহিলাদের আঘাত বা মৃতু্য ঘটায়। ২০১৮ সালের এপ্রিলে বাংলাদেশের উচ্চ আদালত ধর্ষিতাদের ওপর পরিচালিত 'টু-ফিঙ্গার টেস্ট' নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। এ ধরনের উদাহরণ থেকে জানা যায়, বাংলাদেশের নারী অধিকারের জন্য শক্তিশালী কণ্ঠস্বর রয়েছে এবং এটি সম্ভব হয়েছে বাংলাদেশের নারীদের ক্রমবর্ধমান সক্রিয় রাজনৈতিক ভূমিকার কারণে।

যাইহোক, যে প্রশ্নটি গুরুত্বপূর্ণ তা হলো- এই ধরনের সুরক্ষাগুলো কতটা পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে প্রয়োগ করা হচ্ছে এবং বাংলাদেশের মহিলাদের ক্ষমতায়নে তারা কতটা সফল?

অধিকার সুরক্ষার সংগঠন 'অধিকার'র মতে, ১৯৮০ সালের খসড়া যৌতুক প্রতিরোধ আইনের মাধ্যমে যৌতুকের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও ২০০১ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে কমপক্ষে দুই হাজার ৮০০ জন নারীকে হত্যা করা হয়েছে, এক হাজার ৮৩৩ জন নারীকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করা হয়েছে এবং ২০৪ জন যৌতুক সংক্রান্ত সমস্যার কারণে আত্মহত্যা করেছেন। একটি সামাজিকভাবে গ্রহণযোগ্য অনুশীলন বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলে, সাধারণভাবে ভুক্তভোগীর পরিবার অভিযোগ দায়ের করে না; যে ক্ষেত্রে তারা তা করে, সেখানে পুলিশ এই বিষয়ে পদক্ষেপ না নেওয়ার জন্য বা বিষয়টি খারিজ করার জন্য ঘুষ দেওয়ার জন্য পরিচিত। গবেষণায় আরো দেখা গেছে যে, শিক্ষিত এবং নিযুক্ত নববধূরা নিরক্ষর এবং বেকার নববধূদের তুলনায় যৌতুক সম্পর্কিত লেনদেনে জড়িত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কম। শিক্ষিত মন ছাড়া, শুধু নারীদের ক্ষমতায়নে আইন কীভাবে অপর্যাপ্ত তার একটি উদাহরণ এটি।

২০১৭ সালের জেন্ডার গ্যাপ ইনডেক্সে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করে। অন্যদের মধ্যে, সূচকটি একটি দেশের লিঙ্গ সমতা পরিমাপে শিক্ষা এবং রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন বিবেচনা করে। সুতরাং, যদিও সামাজিক সূচকগুলি ব্যাখ্যা করে যে বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়ন বৃদ্ধি পেয়েছে, তবে সমস্ত স্তরে মহিলাদের কাছে পৌঁছানোর জন্য ক্ষমতায়নের কি আরও পুঙ্খানুপুঙ্খ সামগ্রিক পদ্ধতির প্রয়োজন?

উপরোক্ত যৌতুক সম্পর্কিত বিষয়গুলো যদি স্পষ্টতার সঙ্গে চিত্রিত হয় তবে এটি হলো একটি সমাজের ঐতিহ্য, রীতিনীতি- যখন নিরক্ষরতার সঙ্গে মিলিত হয়, তখন একজন নারীর ক্ষমতায়নের যে কোনো সম্ভাবনাকে দমবন্ধ করে দিতে পারে।

পিতৃতান্ত্রিক সমাজ অর্থাৎ বাংলাদেশে, নারীদের দ্বারা গৃহীত কাজ যা আর্থিক পারিশ্রমিক নিয়ে আসে না তা সাধারণত অ-কাজ হিসেবে বিবেচিত হয়। বেশিরভাগ গৃহকর্ত্রীরা তাদের পারিবারিক কাজে আজীবন অবদানের জন্য তাদের পরিবার এবং সমাজ উভয়ের কাছ থেকে তাদের প্রাপ্য সম্মান থেকে বঞ্চিত হন। উপরন্তু, নারীদের এই ধরনের বরখাস্ত আচরণের প্রতিক্রিয়া চোখের সঙ্গে মিলিত হওয়ার চেয়ে অনেক বেশি প্রতিধ্বনিত হয়। এই ধরনের পরিবারের শিশুরা যেখানে নারীদের এত অবমূল্যায়ন করা হয় তারা এই দুর্ব্যবহারকে স্বাভাবিক হিসেবে গ্রহণ করে, পরবর্তীকালে নিজেরাই এই ধরনের অবিচারের শিকার হয়, বা নিপীড়ক হয়ে ওঠে। এর ফলে, নিপীড়ন ও ক্ষমতাহীনতার একটি দুষ্টচক্র চলতে থাকে।

প্রতিটি নারীর জন্য নারীর ক্ষমতায়ন আনার জন্য, এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। পরিবারের সদস্যদের মন ও একজন নারীর চারপাশের সমাজের ক্ষমতায়নের দিকে মনোনিবেশ করা হয়। পিতৃতান্ত্রিক স্টিরিওটাইপগুলো ভাঙার গুরুত্বের শিক্ষাগুলো অবশ্যই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণভাবে, বাড়িতেই প্রথম দিকে শেখানো উচিত।

১৯৭১ সালে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে জনমানসে জনগণের শাসন তথা গণতন্ত্র, শোষণমুক্ত সমাজ তথা সমাজতন্ত্র, 'ধর্ম যার যার রাষ্ট্র সবার' তথা ধর্ম নিরপেক্ষতা এবং সাম্রাজ্যবাদের প্রভাবমুক্ত স্বাধীন জাতীয় বিকাশের আকাঙ্ক্ষা তথা জাতীয়তাবাদী চেতনা গড়ে উঠেছিল ও এ চেতনাই ছিল মুক্তিযুদ্ধের প্রাণশক্তি ও এটিই মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ও বিভিন্ন জাতিসত্তাসহ সব ধর্ম বর্ণের বয়সের নারী-পুরুষকে ঐক্যবদ্ধ করে জীবনের মূল্যে স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনতে প্রেরণা জুগিয়েছে ও এই চেতনাকে শাসক শ্রেণি অস্বীকার করতে পারেনি ও তাই স্বাধীনতার অব্যবহিত পরে রচিত সংবিধানেও আমরা তার ছায়া দেখতে পাই ও যদিও আদিবাসী জনগোষ্ঠীর সাংবিধানিক স্বীকৃতি সেদিন থেকে আজ পর্যন্ত দেওয়া হয়নি এবং গত ৫৩ বছরে বিভিন্ন শাসকশ্রেণি তাদের স্বেচ্ছাচার-স্বৈরাচার প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনে বারবার কাটাছেঁড়া করেছে সংবিধানকে।

পারিবারিক ক্ষেত্রে অর্থাৎ সম্পত্তির উত্তরাধিকার, বিয়ে, বিয়েবিচ্ছেদ, সন্তানের অভিভাবকত্ব এসব বিষয়ে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা বা আইন সংবিধানে না থাকার ফলে ব্যক্তিগত আইন (স্ব স্ব ধর্ম অনুসারে) দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে। নারীর ক্ষেত্রে চরমভাবে বৈষম্যমূলক ও তারপরও সংবিধানে নারীর অধিকারের পক্ষে যে সব অঙ্গীকার করা হয়েছে তার সঠিক বাস্তবায়ন চাই। সমাজে ক্ষমতায় থাকা নারী রাজনীতিবিদ ও নারীদের দৃশ্যমানতা নারীর ক্ষমতায়ন খাতে প্রশংসনীয় কাজ করা একটি সমাজের একমাত্র সূচক হতে পারে না। নারীর পক্ষে চমৎকারভাবে খসড়া আইন, নীতি ও নারীর ক্ষমতায়ন রক্ষায় যথেষ্ট হবে বলে আশা করা যায় না। আইন ও সামাজিক রীতিনীতির বাস্তবায়নের অভাব থেকে উদ্ভূত ফাঁকফোকরগুলো- যা ৪৭ বছরের পুরনো পিতৃতান্ত্রিক জাতির একটি সহজাত অংশ। জনসাধারণের শিক্ষার মাধ্যমে অবশ্যই লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করতে হবে। নারীর ক্ষমতায়নের মৌলিক বিষয়ে সচেতনতা ছড়িয়ে দেওয়ার বিষয়ে সরকার ও জনসাধারণ উভয়ের সংলাপ, বিতর্ক, আলোচনা এবং কর্মসূচি শুরু করতে হবে- যার বেশিরভাগই বাড়িতে থেকে শুরু হয়।-

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে