শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১

নারী স্বাধীনতা নারীর অধিকার

অভিজিৎ বড়ুয়া অভি
  ১১ জুন ২০২৪, ০০:০০
নারী স্বাধীনতা নারীর অধিকার

নারী মা, স্ত্রী, প্রেমিকা, বন্ধু, কন্যা; নারী বিভিন্নভাবে পুরুষের জীবনে জড়িয়ে থাকে। ব্যক্তিত্ববান প্রজ্ঞাবান পৌরুষত্ববান, বীর্যবান পুরুষ নারীর নিরাপত্তার বিধান করে। তখনই সে পুরুষ। নারী লাঞ্ছিতকারীর বিচার করি, বর্জন করে সমাজকে সুন্দর করি। তাতে সুন্দর হবে পরিবার, সমাজ, প্রজন্ম, সর্বোপরি রাষ্ট্র। নারীবান্ধব এই সরকার এবং রাষ্ট্রনায়ক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার সবচেয়ে নারীবান্ধব। বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা বঙ্গবন্ধুকে কোনো দ্বিধা ছাড়াই গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করেছিল। এই দেশে নারী লাঞ্ছিতকারীর ঠাঁই হবে না। সমাজ নারী লাঞ্ছিতকারীর পুরোহিতদের বিতাড়িত করবে। তা না হলে আমরা প্রজন্মের কাছে দায়ী হয়ে থাকব।

এটা পরিহাসের বিষয় যে, নারীদের অধিকারগুলোকে সাধারণত রাজনৈতিকভাবে দেখা হয় এবং নারীর অধিকার অনিবার্যভাবে রাজনৈতিক কূটকৌশলে জড়িয়ে। নারীর ধর্মীয় অধিকারের দিকগুলোর সঙ্গে সম্পর্কিত নির্দিষ্ট বিষয়গুলো ধর্ম ও ঐতিহ্যের বিতর্কে ছড়িয়ে পড়ে। ব্যক্তিগত ও সামাজিক উভয় আলোচনায় নারী এবং যৌনতার বিষয়গুলোকে নিষিদ্ধ হিসেবে দেখা হয়। নারীর যৌনতা জনসমক্ষে বিতর্কের অন্তর্নিহিত সমস্যা হিসেবে বিবেচ্য। আমাদের সমাজে নারীর ওপর ধর্মের শক্তি প্রয়োগ হয়। পুরুষরা যেখানে ধর্ম প্রচারক বা ঐশ্বরিক বার্তাবাহক বা প্রেরণকারী, সেখানে নারীরা মূলত গ্রহণকারী। ধর্মীয় বিশ্বাসের পিতৃতান্ত্রিক ব্যাখ্যার চারপাশে গড়ে ওঠা মনোভাব দ্বারা নারীদের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রেক্ষাপটকে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে। ফলে নারীদের ক্ষমতাহীনতা এবং দ্বিতীয় শ্রেণির মর্যাদা হয়েছে। রাজনীতিতে যখন ধর্মকে একটি কৌশল হিসেবে ব্যবহার করে, সেখানে নারীরা ধর্ম ও রাজনীতির কুপ্রভাব ভোগ করে। আমাদের ধর্মীয় ও সামাজিক ক্ষেত্রে পিতৃতন্ত্রের আধিক্যপূর্ণ কাঠামোর মধ্যে, নারীর প্রতি যে মূল বিষয়গুলো আবির্ভূত তা হলো : নারীর প্রতি সহিংসতা, যৌনতা এবং লিঙ্গের রাজনীতি। আমাদের রাষ্ট্রে নারী এবং সংখ্যালঘুদের প্রতি সহিংসতা ভয়াবহ। পরিবারে সহিংসতা বিরাজমান এবং পরিচিত ব্যক্তিদের দ্বারা মহিলারা নিগৃহীত ও লাঞ্ছিত। আমাদের সমাজে ধর্মীয় কাঠামো নারীর ওপর যৌন নির্যাতনের শিকারদের ওপরও নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। নারীদের ধর্মীয়ভাবে পাপী, ম্যানিপুলেটর এবং প্রলোভনকারী হিসেবে বর্ণনা করা হয়। ফলস্বরূপ, ধর্মীয় পুরোহিত বা বৌদ্ধ ভিক্ষু বা মৌলভী বা ব্যক্তিদের দ্বারা সংঘটিত লাঞ্ছনার মানসিক ধর্মীয় প্রভাব নারীদের ওপর অপরিসীম। আমাদের সমাজে পরিবারে মহিলাদের প্রতি সহিংসতার মূল রয়েছে পুরুষ শ্রেষ্ঠত্বের মনোভাব। পরিবারে নারীদের প্রতি সহিংসতা কেবল ভয়ংকর হিসেবে বর্ণনা করা যেতে পারে। যেমন মারধর, শ্বাসরোধ, যৌন সহিংসতা, মানসিক সহিংসতা, মেয়ে শিশুদের প্রতি সহিংসতা। সব মূলধারার ধর্ম ও সংস্কৃতিতে প্রতিনিধিত্বের রাজনীতি মানুষকে লিঙ্গভিত্তিকভাবে বিভক্ত করে। পুরুষত্বের সংজ্ঞায় পুরুষরা শক্তিশালী, যখন নারী, দুর্বল, সংবেদনশীল এবং নির্ভরশীল হিসেবে সংজ্ঞায়িত, অত্যন্ত সুবিধাবঞ্চিত। পুরুষতন্ত্র এবং কুসংস্কার- ধর্মীয় গোঁড়ামি নারীর মুক্তির পথকে বাধা দেয়।

সমাজের ধর্মীয় বিষয়ে নারীদের কখনোই সমান অধিকার ও অংশগ্রহণ ছিল না। পুরুষশাসিত সমাজ হওয়ায় সব সময়ই পুরুষের আধিপত্য ছিল সবার ওপর। ধর্মীয় বিষয়গুলো সমাজের ন্যায়পরায়ণ পুরুষদের দ্বারা পরিচালিত হতো এবং কোনো মহিলার হস্তক্ষেপ সমাজ কখনই মানে না। লোকেরা বিশ্বাস করে যে আচার-অনুষ্ঠানে নারীর হস্তক্ষেপ সৃষ্টিকর্তাকে ক্রুদ্ধ করবে এবং ধ্বংসের দিকে নিয়ে যেতে পারে। ঋতুস্রাব চলাকালীন মহিলাদের কোনো দেবতাকে স্পর্শ করার কথা নয়, হিন্দু বৌদ্ধ সমাজে পিতার স্বামীর মুখাগ্নি কন্যা বা স্ত্রী করতে পারে না। এ ধরনের কুসংস্কারে মানুষের অন্ধ বিশ্বাসই সমাজের পশ্চাৎপদতার কারণ।

সমাজ বিশ্বাস করে যে, পুরুষদের নারীর আগে বিশেষাধিকার দেওয়া উচিত কারণ তারা বেশি যোগ্য। যৌনতা সমাজের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ উদ্বেগ। বৈষম্যের বিষয়গুলো সর্বত্র রয়েছে এমনকি আমাদের বাড়িতেও। সমাজ হিসেবে আমাদের বুঝতে হবে যে, নারীর অস্তিত্ব ছাড়া সমাজ কিছুই নয়। ধর্মের নামে, মানুষ অনেক কুসংস্কারের শিকার হয় এবং পুরনো প্রথাগুলোকে অন্ধভাবে বিশ্বাস করে, যা সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকার হিসেবে চলে আসছে। নারীর আঙুল থেকে পায়ের আঙুল পর্যন্ত বিচার করার জন্য সমাজ কোনো মাপকাঠি রেখে যায়নি। তার চরিত্র বিচার করা হয় তার পোশাক, ধর্মীয় আচার, চিন্তাভাবনা এবং অনুভূতির ভিত্তিতে এবং কী নয়? এমনকি আচার-অনুষ্ঠানের নামে বিয়েতেও একজন নারীকে তার পবিত্রতা প্রমাণের জন্য নির্দিষ্ট কিছু পরীক্ষার মধ্য দিয়ে যেতে হয়। এমনকি তার জীবনের জন্য তার সবকিছুর জন্য তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

আজ একবিংশ শতাব্দীতে নিজেকে আধুনিক বলে পুরুষদের দৃষ্টিভঙ্গি মহিলাদের ক্ষেত্রে ব্যতিক্রমী আধুনিক। বেশিরভাগ পুরুষই নারীদের ঐতিহ্যগত দৃষ্টিকোণ থেকে দেখেন। নারীদের প্রতি তার দৃষ্টিভঙ্গি তার অনেক সমস্যার মূলে। সমাজে সৃষ্ট লিঙ্গভিত্তিক মনোভাব নারীর জীবনে সমস্যা সৃষ্টি করছে। নারী ও পুরুষ সমাজের সদস্য এবং সমাজ তাদের সমানভাবে না দেখে ভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে দেখে। এটি তাদের সঙ্গে একইভাবে আচরণ না করে ভিন্নভাবে আচরণ করে। অর্থাৎ সমাজ নারী-পুরুষের মধ্যে বৈষম্য করে। যেমন নারীর এমন আচরণ করা উচিত, পুরুষদেরও এমন আচরণ করা উচিত এবং সমাজ নারীর পোশাক, নারীর জীবনযাত্রার মান, পুরুষের জীবনযাত্রার মতো অনেক দিক দিয়ে বৈষম্য করে। লিঙ্গ শব্দটি সমাজে নারী ও পুরুষের মধ্যে পার্থক্য বোঝাতে ব্যবহৃত হয়।

পৃথিবী বিকশিত হচ্ছে কিন্তু এখনো নারীদের অবস্থা একই। বহু দশক ধরেও এর কোনো পরিবর্তন হয়নি। তাদের আবেগ, কণ্ঠস্বর দমন করতে বলা হয় এবং সমাজের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ না নেওয়ার বা করার জন্য ভয়ে নীরবে জীবনযাপন করতে বলা হয়। দশকের পর দশক ধরে তাদের সমাজ বলেছে তাদের কর্তব্য কী, তাদের কী করা উচিত এবং কী করা উচিত নয়। মনে হচ্ছে 'স্রষ্টা তার নিজের সৃষ্টি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হচ্ছেন।' এটি প্রকৃতপক্ষে সমাজের একটি তিক্ত সত্য, যেখানে আমরা সবাই বাস করি। নারীদের সমাজের দ্বারা প্রতিবার সামঞ্জস্য করা উচিত, কারণ তারা বিশ্বাস করে যে একজন মহিলা তা করতে বাধ্য।

২০২৪ সালে আধুনিক যুগেও আমাদের সমাজে নারী ও পুরুষের জৈবিক ও শারীরিক বৈশিষ্ট্য ভিন্ন। সমাজ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক স্তরে নারী ও পুরুষের কিছু ভিন্ন বৈশিষ্ট্যও নির্ধারণ করে। মূলত নারীদের কাপুরুষ হওয়া, পুরুষের সাহসী হওয়া, নারীদের দুর্বল হওয়া, পুরুষের শক্তিশালী হওয়া, নারীদের সহনশীল হওয়া, পুরুষদের আক্রমণাত্মক হওয়া, নারীদের আবেগপ্রবণ হওয়া, পুরুষের সক্ষম হওয়া, নারীদের পরাধীন, পুরুষের আধিপত্যশীল এবং উচ্চাভিলাষী হওয়া। সমাজ আশা করে যে, পুরুষ এবং মহিলা আলাদাভাবে আচরণ করবে। সাধারণভাবে একজন মহিলার কী করা উচিত, কীভাবে তার আচরণ করা উচিত- সে সম্পর্কে সমাজ কিছু বিষয় বলেছে, প্রধানত গৃহস্থালির কাজ, রান্নাবান্না, সন্তান লালন-পালন নারীর সঙ্গে সম্পর্কিত, যেখানে পুরুষদের পরিবারের বাইরে কঠোর পরিশ্রম করার আশা করা হয়।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে