আলোর ফোটন কণিকা

আলোর ফোটন কণিকা

গতিশীল আলোর ভর একেবারে শূন্য নয়। তবে এ কথাটা অনেকেই মানতে চান না। কিন্তু গতিশীল আলোর ভর শূূূূূূূূূূূূূূন্য নয় বলেই, আইনস্টাইনের ফটো তড়িৎক্রিয়া সত্য। গতিশীল ফোটনের ভর না থাকলে এর ভরবেগ থাকত না। আর ভরবেগ আছে বলেই ফটো তড়িৎক্রিয়া প্রমাণ করা সম্ভব হয়েছিল। বলাই বাহুল্য, আইনস্টাইন নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন এ ফটো তড়িৎক্রিয়ার জন্য।

ভর শূন্য নয় বলেই আলোর কণা ধর্ম মেনে নেওয়া হয়। ভর আছে বলে, আলোর কণা ফোটনকে বস্তু হিসেবেও ভাবা যায়। অন্যদিকে কোয়ান্টাম মেকানিক্স বলে, ফোটন একই সঙ্গে কণা ও তরঙ্গের মতো আচরণ করে। তাই ফোটনকে শক্তি বললেও ভুল হবে না।

আইস্টাইনের থিওরি অব রিলেটিভিটি বলে, কোনো বস্তুর বেগ আলোর বেগের চেয়ে বেশি হতে পারে না। আলোর বেগ অপরিবর্তনীয়। কখনো কম বা বেশি হবে না।

কিন্তু ইদানীং জার্মানির একদল পদার্থবিদ বলছেন, আলোর স্থির ভর একেবারে শূন্য নয়। কোনো কোনো ফোটনের কিছুটা স্থির ভর আছে। তাই যদি হয়, তাহলে সে সব ফোটনের বেগ কখনো আলোর বেগের সমান হতে পারে না। হলে থিওরি অব রিলেটিভিটি অনুযায়ী ওইসব ফোটনের ভর অসীম হবে। এ সমস্যা এড়াতে বিজ্ঞানীরা বলছেন, সামান্য স্থিরভরযুক্ত এসব ফোটনের বেগ আলোর ধ্রম্নব অবস্থার বেগের তুলনায় কিছুটা কম হবে। বিজ্ঞানীদের মতে ওইসব ফোটন কণার স্থির ভর ১০্ব-৫৪ কেজি।

এতদিন মনে করা হতো, আলোর ফোটন জীবনকাল অসীম। কিন্তু যেসব ফোটনের কিছুটা স্থির ভর আছে, তাদের একটা নির্দিষ্ট জীবনকালও থাকবে। বিজ্ঞানীরা এসব ফোটনের জীবনকাল নির্ণয় করতে সক্ষম হয়েছেন বলেও দাবি করছে।

বিগ ব্যাং তথ্যানুযায়ী ১৩.৮ বিলিয়ন বছর আগে আমাদের মহাবিশ্ব সৃষ্টি হয়েছে। অনেক মহাজাগতিক বিকিরণের সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা, যেগুলোর বয়স মহাবিশ্বের বয়সের কাছাকাছি। জার্মানির পস্নাঙ্ক ইনস্টিটিউট অব নিউক্লিয়ার ফিজিক্সের গবেষক জুলিয়ান হিকের মতে, সবচেয়ে পুরনো যেসব আলোর কণা আমরা দেখতে পেয়েছি, সেগুলোর কিছু কিছু হয়তো সামান্য স্থির ভরের। তাদের জীবনকাল সীমিত হতে পারে। সেগুলো বড়জোর মহাবিশ্বের কাছাকাছি বয়সের হতে পারে। কিন্তু তাদের জীবনকালের (১০্ব১৮ বছর) তুলনায় মহাবিশ্বের বয়স তো কিছুই নয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে