'জেমস বন্ড' উত্তেজনায় বিশ্ব

'জেমস বন্ড' উত্তেজনায় বিশ্ব
'নো টাইম টু ডাই' সিনেমার দৃশ্য

জেমস বন্ড ভক্তদের জন্য সুখের খবর। করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর ধরে বারবার মুক্তি পিছিয়ে যাওয়া বন্ড সিরিজের ২৫তম সিনেমা শেষ পর্যন্ত আলোর মুখ দেখছে। অপেক্ষার পালা শেষ করে ড্যানিয়েল ক্রেইগ অভিনীত সর্বশেষ বন্ড সিরিজ 'নো টাইম টু ডাই' দিয়ে খুলছে ব্রিটেনের সিনেমা হলের দরজা। আগামী সপ্তাহে যখন টিকিট বিক্রি শুরু হবে, তখন বন্ড হিসেবে ড্যানিয়েল ক্রেইগের তুমুল চাহিদার কারণে এটি যে করোনাকালে বক্স অফিসে সর্বোচ্চ হিট সিনেমা হতে চলেছে, তা নিয়ে আত্মবিশ্বাসী দেশটির সিনেমা ব্যবসায়ীরা।

২০২০ সালের এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত তিনবার শিডিউল পরিবর্তনের পর গোয়েন্দা সিরিজের ২৫তম সিনেমা 'নো টাইম টু ডাই' ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ারের অংশ হিসেবে ব্রিটেনে মুক্তি দেওয়া হবে ৩০ সেপ্টেম্বর। বন্ড ম্যানিয়ার এ ছবি করোনা মহামারিপূর্ব চলচ্চিত্র শিল্পের জনপ্রিয়তা ফিরিয়ে আনতে প্রথম সিনেমা হিসেবে মুক্তি পেতে যাচ্ছে।

যুক্তরাজ্যের সিনেমা ব্যবসায়ীদের বড় চেইন ওডিওনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্যারল ওয়েলচ বলেন, এ মাসের শেষে বড় পর্দায় জেমস বন্ডের প্রত্যাবর্তন নিয়ে আমরা আগ্রহভরে অপেক্ষা করছি। এটা ব্যবসার দারুণ ভালো মুহূর্ত। হলে সিনেমা ফিরে আসা নিয়ে দর্শকদের প্রতিক্রিয়ায় আমরা উৎসাহিত।

বন্ড হিসেবে ড্যানিয়েল ক্রেইগের আগের চার সিনেমায় যুক্তরাজ্য বক্স অফিস থেকে আয় ছিল ৩০৫ মিলিয়ন পাউন্ডের বেশি। আর বিশ্বজুড়ে আয় ২ দশমিক ৩ বিলিয়ন পাউন্ডের (৩.২ বিলিয়ন ইউএস ডলার) বেশি। তবে এ যাবতকালে ক্রেইগের সবচেয়ে বেশি আয় করা বন্ড সিনেমা ২০১২ সালের 'স্কাইফল'; যেটি ১০৩ মিলিয়ন পাউন্ড আয় করেছিল। যুক্তরাজ্যের বক্স অফিসে 'স্টার ওয়ার্স : দ্য ফোর্স এওয়াকেনস'-এর পর এ যাবতকালের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আয় করা সিনেমা এটি। ২০০৮ সালে মুক্তি পাওয়া 'কোয়ান্টাম অব সোলেস' ড্যানিয়েল ক্রেইগের সবচেয়ে কম সফল এবং কম আয় করা সিনেমা। সিনেমাটির আয় ছিল মাত্র ৫১ দশমিক ২ মিলিয়ন পাউন্ড।

যুক্তরাজ্যের বক্স অফিসে মহামারির সময়ে সবচেয়ে বেশি আয় করা দুটি সিনেমা হলো 'পিটার র?্যাবিট টু' এবং স্কারলেট জোহানসের 'বস্ন্যাক উইডো'। 'পিটার র?্যাবিট' সিরিজের দ্বিতীয় ছবিটির আয় ছিল ২০ দশমিক ৩ মিলিয়ন পাউন্ড। আর দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা বস্ন্যাক উইডো আয় করে ১৮ দশমিক ৭ মিলিয়ন পাউন্ড। সিনেমা ব্যবসায়ীরা আত্মবিশ্বাসী, আগের সব সিনেমার আয়ের রেকর্ড ম্স্নান করে দেবে জেমস বন্ড সিরিজের নতুন ছবি 'নো টাইম টু ডাই।'

যুক্তরাজ্যের আরেক সিনেমা চেইনের জ্যেষ্ঠ নির্বাহী বলেন, যুক্তরাজ্যে মহামারিকালে বন্ড হতে যাচ্ছে বড় সিনেমা। এটা হবে কোভিডপূর্ব বা কাছাকাছি সময়ের মতো। যদি বিশ্বজুড়েই এটি বড় সিনেমা হয়ে ওঠে তাহলে ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস নাইনের ৭০০ মিলিয়ন ডলার আয়ের বেঞ্চমার্ক বন্ডের দুটি সিনেমাই পেরিয়ে যেতে পারে। এটা নির্ভর করবে কোন দেশের সিনেমা মার্কেট কবে খুলবে তার ওপর। অস্ট্রেলিয়ার মতো এখনো বন্ধ চীন ও জাপানের সিনেমা হল। তবু বলা যায়, বন্ড হিসেবে ড্যানিয়েল ক্রেগ বক্স অফিসে আসছেন বড় ধামাকা হয়ে।

করোনা মহামারিকালে যুক্তরাজ্যের সবচেয়ে বেশি আয় করা সিনেমাগুলো হলো পিটার র?্যাবিট টু (আয় ২০.৩ মিলিয়ন পাউন্ড), বস্ন্যা উইডো (আয় ১৮.৭ মিলিয়ন পাউন্ড), টেনেট (আয় ১৭.৪ মিলিয়ন পাউন্ড), ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস নাইন (আয় ১৬.৪ মিলিয়ন পাউন্ড), দ্য সুইসাইড স্কোয়াড (আয় ১৩.৮ মিলিয়ন পাউন্ড)।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে