বজ্রপাত থেকে বাঁচতে থাকতে হবে নিরাপদ স্থানে গোপাল অধিকারী

বজ্রপাতের বিস্তর গবেষণায় দেখা যায়, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে আবহাওয়ার ধরন পরিবর্তন, লম্বা গাছের সংখ্যা কমে যাওয়া, আকাশে কালো মেঘের পরিমাণ ও মেঘে মেঘে ঘর্ষণের সংখ্যা বেড়ে যাওয়া এবং বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণেই অস্বাভাবিক হারে বাড়ছে বজ্রপাত। তাপমাত্রা যত বাড়বে বজ্রপাতও তত বাড়বে।
বজ্রপাত থেকে বাঁচতে থাকতে হবে নিরাপদ স্থানে গোপাল অধিকারী

৬ জুন রোববার বজ্রপাতে দেশের বিভিন্ন স্থানে মোট ১৭ জন মারা গেছেন। এর মধ্যে সিরাজগঞ্জে ৪ জন, মানিকগঞ্জের ঘিওর ও দৌলতপুরে ২ জন এবং ফেনীর সোনাগাজীতে ২ জন, মাদারীপুরের শিবচরে ১ জন, ঢাকার ধামরাইয়ে ১ জন, চট্টগ্রামের মীরসরাই ও বোয়ালখালীতে ২ জন, নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ১ জন, বরিশালের উজিরপুরে ১ জন, পাবনায় ১ জন, মেহেরপুরে ১ জন এবং মানিকগঞ্জে ১ জন মারা গেছেন।

২৪ মে সোমবার তিন জেলায় বজ্রপাতে ১১ জন মারা গেছেন। এর মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জে পাঁচজন, সিরাজগঞ্জে চারজন এবং চট্টগ্রামে দুজনের মৃতু্য হয়েছে। ১৮ মে মঙ্গলবার বিকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত দেশের ছয় জেলায় মাত্র চার ঘণ্টার মধ্যে ১৮ জনের প্রাণ গেছে বজ্রপাতে। এর মধ্যে নেত্রকোনায় নয়জন, ফরিদপুরে চারজন, মানিকগঞ্জে দুজন এবং সুনামগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ ও ময়মনসিংহে একজন করে মারা গেছেন। নেত্রকোনার চার উপজেলায় হাওড়ে কাজ করতে গিয়ে বজ্রপাতে ৯ জন নিহত হয়েছেন। এভাবে তিনদিনেই দেশে বজ্রপাতে প্রাণ হারিয়েছে ৪৬ জন।

আশঙ্কার বিষয় হচ্ছে- এক সমীক্ষায় দেখা যায়, দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশে বজ্রপাতের প্রবণতা সবচেয়ে বেশি। এই বৃদ্ধি জলবায়ুগত এবং প্রাকৃতিক পরিবেশের উপাদানের পরিবর্তনের ফল তা সহজেই বলা যায়। অন্য যে কোনো দুর্যোগের চেয়ে বজ্রপাতে মানুষের মৃতু্যহার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রতিনিয়ত প্রতিবেদন হওয়ার পরও এমন মৃতু্য কাম্য হতে পারে না। ঘটনার বিবরণ থেকে বোঝা যায় সচেতনতার ঘাটতি রয়েছে। সচেতনতা না বাড়লে বাড়বে মৃতু্যর ঝুঁকি।

তথ্য অনুযায়ী, ২০১০ সাল থেকে ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত বজ্রপাতে ২ হাজার ৭৭৪ জন মানুষ মারা যায়। চলতি বছরের এপ্রিল মাস থেকে বজ্রপাতে মৃতু্য নিয়মিত ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। মে মাসে এটি আরও বেশি। দুর্যোগ নিয়ে কাজ করা বেসরকারি সংগঠন ডিজাস্টার ফোরামের এক প্রতিবেদন বলছে, গত দেড় মাসে বজ্রপাতে ১৬৭ জনের মৃতু্য হয়েছে। এর মধ্যে বেশি মানুষ মারা গেছে সুনামগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ ও গাইবান্ধা জেলায়। আর বিভাগের মধ্যে বেশি মানুষ মারা গেছে সিলেটে। বজ্রপাতে যারা মারা গেছে তাদের অধিকাংশই মাছ ধরছিল বা খোলা স্থানে কাজ করছিল।

গতবছর থেকে দেশে বজ্রপাতের ভয়ঙ্কর রূপ দেখা দিয়েছে। সাধারণত এপ্রিল মাসকে বজ্রপাত শুরুর মাস হিসেবে ধরা হয়। সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত বজ্রপাত হয়। কিন্তু গতবছর এপ্রিল মাসের ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছিল বজ্রপাত। গতবছর এপ্রিলে দেশে বজ্রপাতে মারা গেছে কমপক্ষে ৭০ জন। যা আগের বছরের তুলনায় প্রায় চার গুণ। ২০১৯ সালে মে মাসে মারা যায় ৬০ জন। ২০১৮ সালে সবচেয়ে বেশি ৩৫৯ জনের প্রাণহানি ঘটে। ২০১৬ সালে চার দিনে ৮১ জনের প্রাণহানির পর নড়েচড়ে বসে সরকার। সে বছরই বজ্রপাতকে দুর্যোগ ঘোষণা করা হয়। সে বছর ১২ মে একদিনে মারা যায় ৩৪ জন।

সেভ দ্য সোসাইটি অ্যান্ড থান্ডার স্টর্ম অ্যাওয়ারনেস ফোরামের তথ্য মতে, ২০২০ বছরের জানুয়ারি থেকে এপ্রিলে চার মাসে বজ্রপাতে সারা দেশে ৭৯ জনের প্রাণহানি ঘটেছিল। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, সাধারণত জানুয়ারি মাসে প্রচন্ড শীত থাকায় এ মাসে বজ্রপাত হয় না। তবে ওই বছর কনকনে শীতের মধ্যেও জানুয়ারি মাসে বজ্রপাতে নিহত হয়েছে ৩ জন। তারা ৩ জনই পুরুষ। ফেব্রম্নয়ারি মাসে কোনো হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও মার্চ মাসে ৬ জন এবং এপ্রিল মাসে ৭০ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এপ্রিল মাসে মোট নিহত হয়েছেন ৭০ জন। সবচেয়ে বেশি ৪০ জন নিহত হয়েছে কৃষি কাজ করার সময়।

বজ্রপাতের বিস্তর গবেষণায় দেখা যায়, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে আবহাওয়ার ধরন পরিবর্তন, লম্বা গাছের সংখ্যা কমে যাওয়া, আকাশে কালো মেঘের পরিমাণ ও মেঘে মেঘে ঘর্ষণের সংখ্যা বেড়ে যাওয়া এবং বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণেই অস্বাভাবিক হারে বাড়ছে বজ্রপাত। তাপমাত্রা যত বাড়বে বজ্রপাতও তত বাড়বে।

\হতাপমাত্রা গড়ে এক ডিগ্রি বেড়ে গেলে বজ্রপাত ১০ শতাংশ বা তার চেয়ে বেশি বজ্রপাত বেড়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ইদানীং মেঘে মেঘে ঘর্ষণের ফলে বা ঘন কালো মেঘের উপরের ও নিচের অংশ দুটি পুল হিসেবে প্রবাহিত হয়। এই কারণে বিদু্যৎ প্রবাহিত হয়ে বজ্রপাতের সৃষ্টি হয়। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কালো মেঘের ঘনত্ব বেড়ে যাওয়ায় হঠাৎ বৃষ্টিপাতের পরিমাণ যেমন বেড়েছে তেমনি বেড়েছে বজ্রপাতের পরিমাণ। বিদু্যৎপ্রবাহ মানুষের শরীর দিয়ে প্রবাহিত হয় অনেকটা ইলেকট্রিক শকের মতো। বিদু্যৎ প্রবাহিত হলে মানুষ যেভাবে দ্রম্নত শক্‌ড হয়, ঠিক একইভাবে বজ্রপাতেও মানুষ শক্‌ড হয়ে মারা যায়। কারণ মানুষের শরীর বিদু্যৎ পরিবাহী। এ কারণে মানুষের ওপর বজ্রপাত হয়। যদি কোনো খোলা স্থানে বজ্রপাত হওয়ার মতো কোনো বিদু্যৎ পরিবাহী পদার্থ না থাকে আর সেখানে যদি মানুষ থাকে যার উচ্চতা অন্য বিদু্যৎ পরিবাহীর চেয়ে বেশি তাহলে মানুষের ওপর বজ্রপাত হয়। সরাসরি মাটিতে সাধারণত বজ্রপাত হয় না। বজ্র বিদু্যৎ পরিবাহীর ওপর পড়ে। এরপর ওই পরিবাহির মাধ্যমে বজ্রের বিদু্যৎ মাটির সঙ্গে মিশে যায়। উঁচু গাছ, ভবন, পাহাড়ের শীর্ষে সাধারণত বজ্রপাত হয়। বাসাবাড়িতে লাগানো বজ্রপাত নিরোধক দন্ডের ওপরও বজ্রপাত হয়।

বজ্রপাতের পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, বাংলাদেশের প্রায় সব জেলায় বজ্রপাত ঘটছে। বজ্রপাতে মৃতু্যর প্রতিবেদনে দেখা যায় অনিরাপদ স্থানে থাকার কারণেই অকালে প্রাণ হারিয়েছে অনেকে। বজ্রপাত থেকে বাঁচতে হলে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ যে বিষয় তা হলো নিরাপদ জায়গায় থাকতে হবে। বজ্রপাতকে গুরুত্বহীন মনে করার কোনো কারণ নেই। কারণ দিনের পর দিন প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে এই বজ্রপাত। বিশেষ করে যারা ঘরের বাইরে ক্ষেত-খামারে কাজ করে তারা বেশি ঝুঁকিতে থাকে। যেহেতু মেঘের নিম্নদেশের ঋণাত্মক চার্জ এবং পৃথিবীর ধনাত্মক চার্জের স্পার্কিংয়ের মাধ্যমে বৈদু্যতিক ক্ষেত্র তৈরি হয় এবং এই ক্ষেত্রের মধ্যে যা কিছু পড়ে তা অতিরিক্ত তাপের কারণে পুড়ে যায়। সেহেতু উঁচু স্থান অর্থাৎ উঁচু গাছ, ইলেকট্রিক পোল, মোবাইল টাওয়ার ইত্যাদি এরূপ বস্তুর সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকতে হবে। কেননা যে স্থান বা বস্তু যত উঁচু সে স্থান মেঘের তত সন্নিকটে থাকায় বজ্রপাতের সম্ভাবনা তত বেশি। বাড়ির ছাদ কিংবা উঁচু স্থানে অবস্থান করলে দ্রম্নত সেখান থেকে নেমে নিরাপদ স্থানে যেতে হবে। মৌসুমে ঘনকালো (ঝড়মেঘ) মেঘ দেখলেই সাবধান হতে হবে এবং বৃষ্টি শুরুর আগে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় গ্রহণ করতে হবে। পাকা বাড়িতে আশ্রয় নেওয়া বেশি নিরাপদ। তবে পাকাবাড়ি সুউচ্চ হলে সে ক্ষেত্রে বজ্র নিরোধক ব্যবস্থা থাকতে হবে। বজ্রপাতের সময় জানালার কাছে না থাকাই ভালো। পায়ে রাবারের স্যান্ডেল পরে থাকা এবং পানি ও যে কোনো ধাতববস্তুর যেমন সিঁড়ির বা বারান্দার রেলিং, পানির কল ইত্যাদির স্পর্শ থেকে বিরত থাকা বেশি নিরাপদ। বিদু্যৎ পরিবাহী যে কোনো বস্তুর স্পর্শ থেকে দূরে থাকতে হবে। পুকুর বা জলাশয়ে থাকা নিরাপদ নয়। বজ্রপাতে বাড়ির ইলেকট্রনিক্স জিনিসপত্র যেগুলো ইলেকট্রিক সংযোগ বা ডিসের সংযোগ থাকে সেগুলো বিচ্ছিন্ন করা ভালো। নতুবা পুড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এ ছাড়া এগুলো বন্ধ থাকলেও স্পর্শ থেকে বিরত থাকতে হবে। মাঠের মধ্যে ফাঁকা জায়গায় থাকলে যদি বজ্রপাত হওয়ার অবস্থা তৈরি হয় তাহলে কানে আঙুল দিয়ে চোখ বন্ধ করে নিচু হয়ে বসে থাকতে হবে। তবে মাটিতে শোয়া যাবে না, কেননা মাটিতে শুয়ে পড়লে বিদু্যৎস্পৃষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। গাড়িতে থাকা অবস্থায় বজ্রপাতের পরিস্থিতি তৈরি হলে গাড়ির মধ্যে থাকায় নিরাপদ। তবে মনে রাখতে হবে গাড়ির ধাতব কোনো অংশের সংস্পর্শ থেকে বিরত থাকতে হবে।

যতই দিন যাচ্ছে প্রকৃতি যেন বিরূপ প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করছে। বজ্রপাতে মৃতু্য একটি পরিবারের স্বপ্নকে অকালেই ভেঙে দিচ্ছে। তাই সরকারি ও বেসরকারিভাবে প্রচার-প্রচারণা চালনার মাধ্যমে জনসাধারণকে সচেতন করতে হবে। পাঠ্যবইয়ে পঠিত বিষয় হিসেবে সংযুক্ত করতে হবে যেন শিক্ষার্থীরা বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত হয়। বজ্রপাত কোথায় এবং কীভাবে ঘটছে, কি করলে তার ঝুঁকি কমবে তা জানলে ও মানলে বজ্রপাতে মৃতু্য লোপ পাবে।

সরকার বজ্রপাতকে দুর্যোগ হিসেবে ঘোষণা করলেও এর ঝুঁকি প্রশমনে দৃশ্যমান উদ্যোগ কম। বাংলাদেশে বজ্রপাতের পূর্বাভাস ও এলাকা শনাক্তকরণ যন্ত্র স্থাপন করা এখন সময়ের দাবি। কিন্তু সরকার বেশ কয়েকটি স্থানে বজ্রপাত পূর্বাভাস যন্ত্র বসালেও এর ফোরকাস্টিংয়ের ব্যবস্থা এখনো করতে পারেনি। আবার বজ্রপাতের ঝুঁকি মোকাবেলায় প্রাথমিক পর্যায়ে সারা দেশে ৫০ লাখ তালগাছের চারা রোপণের উদ্যোগ নিলেও এটিও খুব একটি কার্যকর নয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। বজ্রপাত পূর্বাভাস যন্ত্রের আধুনিকায়ন ও নতুন প্রযুক্তির ব্যবস্থা করা হলে এই ঝুঁকি কমানো সম্ভব। তবে আত্মসচেতনতাই বজ্রপাত থেকে মুক্তি পাওয়ার প্রধান উদ্যোগ। আসুন বজ্রপাতে প্রতিকূল আবহাওয়ায় ঘরে থাকি। থাকি নিরাপদে। বজ্রপাতের ঝুঁকিগুলো পরিহার করে চলি। সচেতন হই, সচেতন করি। সেস্নাগান ধরি, 'বজ্রপাত থেকে বাঁচতে থাকতে হবে নিরাপদ স্থানে'।

গোপাল অধিকারী : কলাম লেখক

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে