করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত খুলছে না শিক্ষা প্রতিষ্ঠান -ডা. দীপু মনি

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত খুলছে না শিক্ষা প্রতিষ্ঠান -ডা. দীপু মনি

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিগগিরই খুলে দেওয়া হচ্ছে না ইঙ্গিত দিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, বর্তমানে করোনা সংক্রমণের হার ১৩ শতাংশের বেশি। গত বছরের শেষে ও এ বছরের শুরুতে সংক্রমণের হার কমিয়ে আনা গিয়েছিল। করোনা সংক্রমণ এখন ঊর্ধ্বমুখী। বিশেষজ্ঞদের মতে, পাঁচ শতাংশের নিচে গেলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়। কিন্তু এখন তো অনেক বেশি।

মঙ্গলবার কেরানীগঞ্জ জাজিরা মোহাম্মদিয়া আলিম মাদ্রাসায় বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন তিনি।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার সুনির্দিষ্ট সময় জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'এটা আমাদের কারও পক্ষে বলা সম্ভব নয়। আমরা আশা করেছিলাম, মার্চ মাসে খুলে দেব। প্রতিদিন সিনারিও চেঞ্জ হচ্ছে। লকডাউন মানলে

সংক্রমণ কমবে। আমরা তো মানছি না। আর মানছি না বলেই পরিস্থিতি বারবার খারাপের দিকে যাচ্ছে।'

শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা থেকে দূরে সরে না যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, পরীক্ষা যদি না-ও হয় তাহলেও পরের ক্লাসে তো উঠতে হবে। তাই পড়া ছেড়ে দিলে হবে না।

অভিভাবকদের উদ্দেশে ডা. দীপু মনি বলেন, ভয়ংকর ভিডিও গেমস রয়েছে, মাদক, সন্ত্রাস ও কিশোর গ্যাং রয়েছে। বাবা-মায়েরা দেখবেন, এগুলোর সঙ্গে কিশোররা যেন না জড়ায়। আপনারা এই সময়টায় সন্তানদের দিকে নজর দেওয়ার ব্যাপারে একটু বেশি গুরুত্ব দেবেন।

শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মেডিকেল শিক্ষার্থীসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দেওয়া হবে। এবার তো উপহারের ৬ লাখ টিকা এসেছে। সামনে আরও আসছে। জুন থেকে আবাসিক শিক্ষার্থীদের টিকা পাওয়ার বিষয়টা ভাবনায় রয়েছে।

সব শিক্ষার্থীকে টিকা দেওয়া হবে কি না জানতে চাইলে ডা. দীপু মনি বলেন, আগে আবাসিক শিক্ষার্থীদের দিয়ে তারপর সবাইকে দেওয়া হবে।

কেরানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার অমিত দেবনাথের সভাপতিত্বে এ সময় বিশেষ অতিথি ছিলেন- শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী এমপি, শিক্ষা সচিব মো. মাহবুব হোসেন ও মো. আমিনুল ইসলাম খান, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. হেলাল উদ্দিন এনডিসি, মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কে.এম রুহুল আমীন ও কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ। এ সময় অন্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন- সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. কামরুল হাসান সোহেল ও সানজিদা পারভীন তিন্নি, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. ইসমাইল, কোন্ডা ইউপি চেয়ারম্যান মুহাম্মদ সাইদুর রহমান চৌধুরী ফারুক, সাবেক চেয়ারম্যান মো. আবুবকর, স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে