রংপুরকে হারিয়ে কোয়ালিফায়ারে ঢাকাক্রীড়া প্রতিবেদক উইকেট শিকারের পর ঢাকা ডায়নামাইটসের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের নীরব উদযাপন। ব্যাট ও বল হাতে তার জ্বলে ওঠার দিনে মাশরাফিবিহীন রংপুর রাইডার্সকে ৪৩ রানে হারিয়েছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা -বিসিবিনিয়মরক্ষার ম্যাচের আড়ালে একটা করে সুযোগ দুই দলেরই ছিল। ঢাকা ডায়নামাইটসের জন্য সেটি সেরা দুইয়ে থেকে প্রথম কোয়ালিফায়ারের টিকিট কাটার। অন্যদিকে রংপুর রাইডার্সের জন্য ঢাকাকে হারিয়ে এলিমিনেটরের প্রতিপক্ষের বিপক্ষে ড্রেস রিহার্সেল সেরে রাখার। মাঠের লড়াইয়ে জিতে সুযোগটা কাজে লাগিয়েছে সাকিবের ঢাকাই, মাশরাফিবিহীন রংপুরকে ৪৩ রানে হারিয়ে প্রথম কোয়ালিফায়ারে কুমিলস্না ভিক্টোরিয়ান্সের প্রতিপক্ষ হয়েছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা।
আগেভাগেই এবারের বিপিএলের চার নিশ্চিত হয়ে গেছে। এক ম্যাচ হাতে রেখে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থাকা তামিম ইকবালের কুমিলস্না তো নিশ্চিত করে রেখেছিল প্রথম কোয়ালিফায়ারে খেলাও। এরপর শুধু অপেক্ষা ছিল, সেখানে তাদের প্রতিপক্ষ হচ্ছে কোন দল? আগের দিন কুমিলস্নাকে হারিয়ে নিজেদের সম্ভাবনা উজ্জ্বল করার সঙ্গে রংপুরকে সেরা দুইয়ের দৌড় থেকে ছিটকে দিয়েছিল খুলনা টাইটান্স। কিন্তু বুধবার ঢাকার কাছে রংপুরের হারে খুলনার জায়গা হয়েছে এলিমিনেটর ম্যাচেই।
সমান ১২ ম্যাচে ঢাকার সমান ১৫ পয়েন্ট পেয়েও নেট রানরেটে পিছিয়ে থাকায় খুলনার স্থান হয়েছে এলিমিনেটরে। সেখানে তাদের প্রতিপক্ষ মাশরাফির রংপুর। দুই ম্যাচে দুই দল লড়বে টিকে থাকার জন্য। অন্যদিকে আগামী শুক্রবার প্রথম কোয়ালিফায়ারে খেলে সরাসরি ফাইনালের টিকিট কাটার সুযোগ পাচ্ছে ঢাকা আর কুমিলস্না। জয়ী দল খেলবে ফাইনালে, হেরে যাওয়া দলের জন্যও শেষ সুযোগ থাকবে। খুলনা-রংপুরের এলিমিনেটর ম্যাচের জয়ী দলের সঙ্গে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচ খেলবে তারা।
এলিমিনেটর ম্যাচ খেলতেই হচ্ছে, এমনটা আগের দিন নিশ্চিত হয়ে যাওয়ার পর এদিন বেশ নির্ভার হয়েই মাঠে নেমেছিল রংপুর। নিয়মিত অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাকে বিশ্রাম দিয়ে নেতৃত্বের ব্যাট তুলে দেয়া হয় ব্রেন্ডন ম্যাককালামের হাতে। টস হেরে ফিল্ডিং পাওয়া রংপুরের শুরম্নটা ছিল দারম্নণ। বোলারদের নৈপুণ্যে ঢাকাকে চেপে ধরেছিল তারা। শেষতক সাকিবের অপরাজিত ৪৭ রানে ভর করে নির্ধারিত ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৩৭ রান তোলে ঢাকা।
মামুলি লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরম্ন থেকে ধুকেছে রংপুরের ব্যাটসম্যানরাও। ঢাকার বোলারদের আঁটোসাঁটো বোলিংয়ে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ৯৪ রানের বেশি তুলতে পারেনি দলটি। ফলে লো-স্কোরিং ম্যাচে ৪৩ রানের বড় পরাজয় সঙ্গী করে মাঠ ছেড়েছে রংপুর। মাশরাফির মতো এদিন ক্রিস গেইলও ছিলেন না রংপুরের একাদশে। রান তাড়া করতে নেমে অ্যাডাম লিথ ৩, ম্যাককালাম ১, শাহরিয়ার নাফীস ৭, মোহাম্মদ মিঠুনের (২) ব্যর্থতায় টুর্নামেন্ট জুড়ে ধুঁকতে থাকা রংপুর বিবর্ণ প্রদর্শনীই জারি রাখে।
শুরম্নতে জনসন চার্লসের ধীরগতির ২৬ রানের (৩০ বলে) ইনিংসটি তাই কাজে লাগেনি। শেষদিকে রবি বোপারার একটি করে চার-ছয়ে ৩০ বলে অপরাজিত ২৮ রানও দলকে একশ ছোঁয়াতে পারেনি। ঢাকার হয়ে ৪ ওভারে মাত্র ১৩ রান খরচায় ২ উইকেট নিয়েছেন ব্যাট হাতেও দলকে বাঁচানো সাকিব। আবু হায়দারের দখলেও গেছে ২টি উইকেট। মোহাম্মদ আমির এক উইকেট নিলেও ৪ ওভারে দিয়েছেন মাত্র ১৫ রান। সুনীল নারিন ৪ ওভারে ১৮ ও মোসাদ্দেক ৩ ওভারে ১৩ রানে একটি করে উইকেট পকেটে পুরেছেন।
এর আগে নারিন ৪, এভিন লুইস ১৪, জো ডেনলি ৯, জহুরম্নল ইসলাম ৫, মোসাদ্দেক হোসেন ১০, কায়রন পোলার্ড ৬ রানের ইনিংস খেলে ব্যর্থ হয়ে ফিরলে ঢাকার ব্যাটিংও ধুঁকতে থাকে। মাঝে মেহেদী মারম্নফ ৩ চার ও এক ছয়ে ২৩ বলে ৩৩ রান করলে খানিকটা সম্মান বাঁচানোর সুযোগ আসে। সেটাই কাজে লাগিয়ে ইনিংস টেনে নিয়েছেন সাকিব। অধিনায়ক ২টি করে চার-ছয়ে ৩৩ বলে ৪৭ রানে অপরাজিত ছিলেন শেষপর্যন্ত্ম। সেই ইনিংসটিই টার্নিং হলো দলের শীর্ষ দুইয়ে থাকা নিশ্চিত করতে।
রংপুরের হয়ে ২টি করে উইকেট নিয়েছেন রম্নবেল হোসেন এবং এবাদত হোসেন। মাশরাফির জায়গায় খেলতে নেমে ৪ ওভারে ৩৭ রানে দুটি উইকেট তরম্নণ এবাদতের জন্য মন্দ নয়! একাদশে সুযোগ মেলা অভিজ্ঞ আব্দুর রাজ্জাক ৩ ওভারে ২৩ রানে একটি উইকেট নিয়েছেন।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
ঢাকা ডায়নামাইটস: ২০ ওভারে ১৩৭/৭ (এভিন লুইস ১৪, মোসাদ্দেক হোসেন ১০, মেহেদী মারম্নফ ৩৩, সাকিব আল হাসান ৪৭*; স্যামুয়েল বদ্রি ১/১৮, রম্নবেল হোসেন ২/৩২, নাহিদুল ইসলাম ১/১২, ইবাদত হোসেন ২/৩৭, আব্দুর রাজ্জাক ১/২৩)
রংপুর রাইডার্স: ২০ ওভারে ৯৪/৭ (জনসন চার্লস ২৬, রবি বোপারা ২৮*, নাহিদুল ইসলাম ১৩; ব্রেন্ডন ম্যাককালাম ১; মোসাদ্দেক হোসেন ১/১৩, সাকিব আল হাসান ২/১৩, সুনীল নারিন ১/১৮, আবু হায়দার রনি ২/২৩, মোহাম্মদ আমির ১/১৫)
ফল: ঢাকা ডায়নামাইটস ৪৩ রানে জয়ী
ম্যাচসেরা: সাকিব আল হাসান।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close