রোমাঞ্চকর জয়ে আর্সেনালের শুরুক্রীড়া ডেস্ক গোলের পর বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসে মেতেছেন আর্সেনালের অলিভিয়ের জিরু। শেষ মুহূর্তে তার করা গোলেই প্রিমিয়ার লিগের প্রথম ম্যাচে জয় পেয়েছে আর্সেনাল _ওয়েবসাইটগত মৌসুমটা কেটেছে চরম হতাশায়। সেরা চারের বাইরে থেকে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ শেষ করায় ১৯ বছর পর আর্সেনাল ছিটকে গেছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে। তাই গানাররা এবার নতুন মৌসুম শুরু করেছে নিজেদের নতুন করে চেনানোর চ্যালেঞ্জ নিয়ে। সেই চ্যালেঞ্জের শুরুটা হয়েছে রোমাঞ্চকর। সাত গোলের এক থ্রিলারে সাবেক চ্যাম্পিয়ন লেস্টার সিটিকে ৪-৩ ব্যবধানে হারিয়ে ইংলিশ প্রিমিয়ারে যাত্রা শুরু করেছে আর্সেন ওয়েঙ্গারের দল।
আর্সেনাল-লেস্টার ম্যাচ দিয়েই শনিবার শুরু হয়েছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের এবারের মৌসুম। এমিরেটস স্টেডিয়ামে ফক্সেসদের বিপক্ষে শুরুটা দারুণ করেছিল স্বাগতিক আর্সেনাল। কিন্তু পরপর দু'বার ম্যাচে লিড নিয়ে ওয়েঙ্গার ব্রিগেডকে রীতিমতো কাঁপিয়ে দিয়েছে দুই মৌসুম আগে রূপকথা লিখে ইতিহাস গড়া লেস্টার। তবে ভাগ্যদেবী শেষটা লিখে রেখেছিলেন আর্সেনালের নামেই। শেষ দশ মিনিটে একের পর এক আক্রমণ শানিয়ে দু'বার লক্ষ্যভেদ করে রোমাঞ্চকর এক জয় তুলে নেয় গানাররা।
গত মাসেই আর্সেনালে যোগ দেয়া আলেকসঁদ লাকাজেতের প্রিমিয়ার লিগ অভিষেক এর চেয়ে ভালো বুঝি আর হতে পারত না। ফরাসি এই ফরোয়ার্ডের কল্যাণে দ্বিতীয় মিনিটেই এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। ডান দিক থেকে তাকে দারুণ ক্রস দিয়েছিলেন মিশরের মিডফিল্ডার মোহামেদ এলনেনি। দুর্দান্ত হেডে সেটাকেই গোলে পরিণত করেছেন লাকাজেত। তাতে প্রিমিয়ার লিগের ইতিহাসে অভিষেকের পর সবচেয়ে কম সময়ে গোল করার রেকর্ডও নিজের করে নিয়েছেন তিনি।
পিছিয়ে পড়ার ৯৪ সেকেন্ডের মধ্যেই সমতা ফেরায় ২০১৫-১৬ মৌসুমের ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন লেস্টার। বাইলাইন থেকে ব্রিটিশ ডিফেন্ডার হ্যারি ম্যাগুইয়ারের হেডে ছয় গজ বক্সে বল পেয়ে হেডে জালে পাঠান জাপানের ফরোয়ার্ড শিনজি ওকাজাকি। এরপর খেলার ধারার বিপরীতে ২৯ মিনিটে এগিয়ে যায় লেস্টার। ব্রিটিশ মিডফিল্ডার মার্ক অ্যালব্রাইটনের ছয় গজ বক্সে বাড়ানো ক্রস থেকে গোলটি করেন তারকা স্ট্রাইকার জেমি ভার্দি (২-১)।
প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে সমতায় ফেরে আর্সেনাল। বসনিয়ার ডিফেন্ডার সেয়াদ কোলাশিনাচের ছোট পাসে বল পেয়ে লক্ষ্যভেদ করেন ড্যানি ওয়েলব্যাক (২-২)। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে আবারও আর্সেনালকে চাপে ফেলে দেয় লেস্টার। ৫৬ মিনিটে ফের লিড নেয় তারা। মিডফিল্ডার রিয়াদ মাহরেজের কর্নার থেকে কোনাকুনি হেডে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন ইংলিশ স্ট্রাইকার ভার্দি (৩-২)। এমন পরিস্থিতিতে জয়ই দেখছিল অতিথিরা। কিন্তু শেষ দিকে দুই মিনিটের মধ্যে দুই গোল করে হিসাব পাল্টে দেয় আর্সেনাল।
দুটি গোলই আসে কর্নার থেকে। ৮৩ মিনিটে কর্নার থেকে পাওয়া বল লেস্টার ডিফেন্ডাররা ঠিকমতো বিপদমুক্ত করতে ব্যর্থ হলে তা পেয়ে যান গ্রানিত জাকা। তার দারুণ ক্রস ডি-বক্সে ডান দিকে পেয়ে একটু এগিয়ে কোনাকুনি শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন বদলি নামা অ্যারন রামসি। দুই মিনিট পর আরেকটি কর্নার থেকে দারুণ এক হেডে বল লেস্টারের জালে পাঠিয়ে সমর্থকদের উচ্ছ্বাসে ভাসান আরেক বদলি খেলোয়াড় অলিভিয়ের জিরু।
গোল করে রুদ্ধশ্বাসে ছুটে যান জিরু। গর্জে উঠে গোটা এমিরেটস স্টেডিয়ামও।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close