দর্শনীয় স্থানে সরকারের আয় প্রায় ৪ কোটিযাযাদি রিপোর্ট জাতীয় জাদুঘরসহ দর্শনীয় আট স্থান থেকে বিগত অর্থবছরে সরকারের আয় হয়েছে তিন কোটি ৮৭ লাখ ৯৫ হাজার ৭৭২ টাকা। সবচেয়ে বেশি আয় হয়েছে জাতীয় জাদুঘর থেকে। ২০১৭ অর্থবছরে জাতীয় জাদুঘর থেকে আয় হয়েছে দুই কোটি ১৮ লাখ ১০ হাজার ৯৫৫ টাকা।
সোমবার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ২৯তম বৈঠকে এ তথ্য জানানো হয়। কমিটির সভাপতি সিমিন হোসেন রিমির সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, কাজী কেরামত আলী, মনোরঞ্জন শীল গোপাল, পংকজ নাথ, পিনু খান এবং জেবুন্নেছা আফরোজ অংশ নেন।
বৈঠকের কার্যপত্র থেকে জানা যায়, ওই বছরে রাজধানীতে অবস্থিত আহসান মঞ্জিল থেকে আয় এক কোটি ১১ লাখ ৩৩ হাজার ৬২৯ টাকা। চট্টগ্রামে অবস্থিত জিয়া স্মৃতি জাদুঘর থেকে আয় ২৭ লাখ ৩১ হাজার ৭৮৭ টাকা। ময়মনসিংহে অবস্থিত শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন সংগ্রহশালা থেকে আয় সাত লাখ ৮৭ হাজার ২১০ টাকা। ঢাকার স্বাধীনতার জাদুঘর থেকে আয় ১৯ লাখ ৮৬ হাজার ১৭৮ টাকা।
সম্প্রতি চালু হওয়া ফরিদপুরে পলস্নী কবি জসীমউদ্‌দীন জাদুঘর ও লোক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র এক লাখ ৯৭ হাজার ৮০০ টাকা (২০১৭ সালে ৯ ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ৭ মার্চ পর্যন্ত্ম) আয় হয়েছে।
এ ছাড়া কুষ্টিয়ার কাঙ্গাল হরিনাথ স্মৃতি জাদুঘর থেকে আয় ২৭ হাজার ৪৯০ টাকা (২০১৭ সালের ৯ ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ৭ মার্চ পর্যন্ত্ম)।
সরকারিভাবে প্রাপ্ত ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর তালিকা আগামী বৈঠকের পূর্বে চূড়ান্ত্ম করা এবং কোনো ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী বর্তমান তালিকা থেকে বাদ পড়লে পরবর্তীতে সম্পৃক্ত করার সুযোগ রাখার সুপারিশ করা হয়।
বৈঠকে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর, প্রত্মতত্ত্ব অধিদপ্তর ও শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালকসহ মন্ত্রণালয় ও জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশিস্নষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close