টাইটানিকের সেই বেহালার নতুন ইতিহাস সৃষ্টিযাযাদি ডেস্ক জেমস ক্যামেরনের বিখ্যাত সিনেমা 'টাইটানিক' ডোবার সময় যাত্রীদের শান্ত করতে যে বেহালা বাজানো হচ্ছিল, সেই দৃশ্যের কথা মনে আছে? যদিও সিনেমার বেহালাগুলো সেই সময়ের ছিল না। কিন্তু পরে আসল একটি খুঁজে পাওয়া গিয়েছিল। সুর ছড়ানো সেই বেহালা আবারো নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করল। কারণ, সেই বেহালা শনিবার লন্ডনে নিলামে বিক্রি হয়েছে ৯ লাখ পাউন্ড বা ১১ কোটি টাকায়।
ডুবন্ত টাইটানিকের অসহায়, ভয়ার্ত এবং মৃত্যুকে চোখের সামনে দেখতে থাকা যাত্রীদের শান্ত রাখার জন্যই বেহালা বাজানো হয়েছিল। জেমস ক্যামেরনের 'টাইটানিক' সিনেমায় বাস্তবের বেদনা বোঝাতে এই বেহালা ব্যবহার করা হয়েছিল। এই বেহালাকেই শনিবার লন্ডনে নিলামে তোলা হয়। আর নিলামে তোলার মাত্র ১০ মিনিটের মধ্যেই প্রায় ১১ কোটি টাকায় বিক্রি হয়ে যায় বেহালাটি। বেহালাটির বাদক ছিলেন ওয়ালেস হার্টলি, যিনি টাইটানিকের অধিকাংশ যাত্রীদের সঙ্গে আটলান্টিকে তলিয়ে গিয়েছিলেন। উল্লেখ্য, ১৯১২ সালের ১৫ এপ্রিল আইসবার্গের (বরফের চাঁই) সঙ্গে ধাক্কা লেগে উত্তর আটলান্টিক মহাসাগরে ডুবে যায় বিশাল জাহাজ টাইটানিক, যাতে মৃত্যু হয় ১ হাজার ৫১৮ জনের। তাদের মধ্যেই একজন ছিলেন ওয়ালেস হার্টলি।
টাইটানিকের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে ওয়ালেস হার্টলির নাম। জাহাটি ডুবে যাওয়ার সময় ব্যান্ড দলের অন্য ৭ সদস্যকে নিয়ে ঈশ্বর বন্দনামূলক গান 'নিয়ারার মাই গড টু দি' সুর তুলেছিলেন তিনি। বাগদত্তা মারিয়া রোবিনসনের কাছ থেকে উপহার পাওয়া বেহালায় সুর ছড়িয়ে সহযাত্রীদের শান্ত করার চেষ্টা করতে চেয়েছিলেন এই শিল্পী। হিমশীতল পানি থেকে যখন হার্টলির মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়, তখন তার শরীরেই জড়ানো একটি ব্যাগে ছিল বেহালাটি। এরপর ২০০৬ সালে ইয়র্কশায়ারের একটি চিলেকোঠা থেকে বেহালাটি উদ্ধার হলে সেটি নিয়ে আবার আলোচনা শুরু হয়। তখন এর মৌলিকত্ব নিয়েও দেখা দেয় বিতর্ক। এরপর বিস্তর পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে এটিকে হার্টলির সেই বেহালাটির বিষয় নিশ্চিত করতে ৭ বছর কেটে যায় ডেভিজেস অকশন হাউস, আলরিজ ও তার ছেলের।
বেহালাটির ক্রেতা একজন ব্র্রিটিশ। নিলাম আহ্বানকারী সংস্থার প্রধান অ্যালান অ্যালব্রিজ জানান, টাইটানিকের বিভিন্ন স্মৃতির মধ্যে এটা একটি বিরল ও অত্যন্ত হৃদয়স্পর্শী জিনিস। তিনি আরো বলেন, নিলামে টাইটানিকের সব স্মারকের মূল্য ছাড়িয়ে যাওয়াই এই বাদ্যযন্ত্রের প্রতি বিশ্বব্যাপী মানুষের আগ্রহের প্রমাণ দেয়।
নিলামে আলোকচিত্র, সংবাদপত্র এবং চীনামাটির বাসনপাত্রও বিক্রি হয়েছে। অ্যালব্রিজ বলেন, বেহালার দাম ৫০ পাউন্ড দিয়ে শুরু হয়েছিল। কিন্তু বাড়তে বাড়তে তা মাত্র ১০ মিনিটের মধ্যেই ১ লাখ পাউন্ডে পেঁৗছে। অবশেষে তা ৯ লাখ পাউন্ডে বিক্রি হয়। তথ্যসূত্র : রয়টার্স, জি-নিউজ, বিবিসি
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close