আরও দুই মামলায় খালেদার বিরম্নদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানাযাযাদি রিপোর্ট খালেদা জিয়াএকই দিন দুর্নীতি ও জাতীয় পতাকার মানহানির দুটি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরম্নদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত।
এর মধ্যে জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানিতে হাজির না থাকায় বৃহস্পতিবার সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদার বিরম্নদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আদেশ দেন ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ মো. আখতারম্নজ্জামান।
সেই সঙ্গে এই মামলার অপর দুই আসামি মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল ও ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদের জামিন বাতিল করে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন তিনি।
আর স্বাধীনতাবিরোধীদের গাড়িতে জাতীয় পতাকা তুলে দিয়ে দেশের মানচিত্র এবং জাতীয় পতাকার মানহানি করার অভিযোগে আরেক মামলায় সমন জারির পরও আদালতে না আসায় বিএনপি চেয়ারপারসনের বিরম্নদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকার মহানগর হাকিম নূর নবী।
গত জুলাই থেকে লন্ডনে অবস্থানরত খালেদা জিয়ার অন্যতম আইনজীবী সানাউলস্নাহ মিয়া বলেন, 'তিনি যাতে দেশে আসতে না পারেন, সে জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে এক দিন দুই মামলায় সরকার এভাবে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করিয়েছে।'
পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে বিএনপি সমর্থক জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরম্নদ্ধে স্স্নোগান দিয়ে আদালতপাড়ায় বিক্ষোভ মিছিলও করেছে।
এর আগে কুমিলস্নার চৌদ্দগ্রামে দুই বছর আগে বাসে পেট্রল বোমা মেরে আটজনকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় বিস্ফোরক আইনের মামলায় গত মঙ্গলবার খালেদা জিয়াসহ 'পলাতক' আসামিদের বিরম্নদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

এতিমখানা দুর্নীতি
বিগত জরম্নরি অবস্থার সময় দুদকের দায়ের করা জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের সাক্ষ?্যগ্রহণ শেষে খালেদা জিয়ার আত্মপক্ষ সমর্থনের কথা ছিল চলতি বছরের ৫ জানুয়ারি। কিন্তু দফায় দফায় তার আইনজীবীদের সময়ের আবেদন ও অনাস্থার কারণে এখন পর্যন্ত্ম সেই শুনানি হয়নি।
এর মধ্যে খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য গত ১৫ জুলাই লন্ডনে চলে যান। এই মামলার আরেক আসামি খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমানও গত ৯ বছর ধরে সেখানে রয়েছেন।
এদিকে ৯ বছর আগের একটি রম্নল শুনানি করে গত ৯ আগস্ট এতিমখানা দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে স্থায়ী জামিন দেয় হাইকোর্ট। রায়ে বলা হয়, স্থায়ী জামিন দেয়া হলেও তিনি এর অপব্যবহার করলে বিচারিক আদালত জামিন বাতিল করতে পারবে।
খালেদা জিয়ার অন্যতম আইনজীবী নূরম্নজ্জামান তপন বলেন, বৃহস্পতিবার লন্ডনে পা ও চোখের ডাক্তার দেখানোর জন্য অ্যাপয়েনমেন্ট থাকায় সেই নথি দাখিল করে আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানি আবারও পেছানোর আবেদন করেন আইনজীবী সানাউলস্নাহ মিয়া।
কিন্তু বিচারক তখন প্রশ্ন তোলেন, নিয়মিতভাবে প্রতি বৃহস্পতিবার এই মামলার শুনানির তারিখ থাকে, এটা জানার পরও বিএনপি নেত্রীর জন্য কেন এই দিনেই ডাক্তারের অ্যাপয়েনমেন্ট করা হয়।
এই মামলায় দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল এ সময় বিচারককে বলেন, আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য বহুবার তারিখ দেয়া হয়েছে, কিন্তু খালেদা জিয়া আদালতে আসেননি। বারবার সময়ের আবেদন করে এই শুনানির পর্ব দীর্ঘায়িত করা হচ্ছে।
'তিনি যদি আত্মপক্ষ সমর্থন করতে না আসেন, তাহলে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। তা না হলে তিনি আসবেন না, পালিয়ে যাবেন।'
এরপর বিচারক আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানি পেছানোর আবেদন নাকচ করে খালেদা জিয়ার বিরম্নদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আদেশ দেন।
খালেদার আইনজীবীরা পরোয়ানা জারির আদেশ পুনর্বিবেচনার আবেদন করলে বিচারক সেটাও নাকচ করে দেন বলে দুদকের অন্যতম আইনজীবী মোহাম্মদ আবুল হাসান জানান।
এদিকে এই মামলার অপর দুই আসামি কাজী সালিমুল হক কামাল ও শরফুদ্দিন আহমেদ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত্ম অস্থায়ী জামিনে ছিলেন।
এদিন তারা জামিনের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করলে বিচারক সেটা নাকচ করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন এবং দ্রম্নত এজলাস ছেড়ে খাস কামরায় চলে যান বলে আইনজীবীরা জানান।
পুরান ঢাকার বকশিবাজারে কারা অধিদপ্তরের মাঠে বিশেষ জজ আদালতের এই অস্থায়ী এজলাসেই খালেদা জিয়ার বিরম্নদ্ধে জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার বিচার চলছে। দুই মামলাতেই শুনানির পরবর্তী দিন রাখা হয়েছে ১৯ অক্টোবর।
এতিমদের জন্য বিদেশ থেকে আসা দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় এই মামলা দায়ের করে দুদক।
তদন্ত্ম শেষে ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট তদন্ত্ম কর্মকর্তা আদালতে অভিযোগপত্র দেন। এর পাঁচ বছর পর ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ অভিযোগ গঠন করে খালেদা জিয়াসহ ছয় আসামির বিচার শুরম্ন করেন।
মামলার আসামিদের মধ্যে খালেদার বড় ছেলে তারেক রহমান রয়েছেন লন্ডনে। আর সাবেক মুখ্য সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান মামলার শুরম্ন থেকেই পলাতক।

পতাকার মানহানি
আওয়ামী লীগ সমর্থক সংগঠন জননেত্রী পরিষদের সভাপতি এ বি সিদ্দিকীর করা মানহানির মামলায় সমন জারির পরও খালেদা জিয়া আদালতে হাজির না হওয়ায় মহানগর হাকিম নূর নবী তার বিরম্নদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আদেশ দেন বলে এই আদালতের পেশকার মো. ইখতিয়ার রহমান জানান।
মামলার বাদী এ বি সিদ্দিকী বলেন, 'বিএনপি নেত্রী আইনের পরোয়া করেন না। আদালতের সমন পেয়েও আসেন না। আদালত আজ তাই পরোয়ানা জারির আদেশ দিয়েছে।'
২০১৬ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকার হাকিম আদালতে এবি সিদ্দিকীর করা এই মামলার আর্জিতে বলা হয়, স্বীকৃত স্বাধীনতাবিরোধীদের গাড়িতে জাতীয় পতকা তুলে দিয়ে খালেদা জিয়া দেশের মানচিত্র এবং জাতীয় পতাকার 'মানহানি ঘটিয়েছেন'।
ঢাকা মহানগর হাকিম রায়হানুল ইসলাম সেদিন বাদীর আর্জি শুনে তেজগাঁও থানা পুলিশকে অভিযোগ তদন্ত্মের নির্দেশ দেন। তদন্ত্ম শেষে তেজগাঁও থানার পরিদর্শক (তদন্ত্ম) এবিএম মশিউর রহমান চলতি বছরের ২৫ ফেব্রম্নয়ারি যে প্রতিবেদন দেন, এতে অভিযোগের প্রমাণ পাওয়ার কথা বলা হয়।
সেখানে বলা হয়, ২০০১ সালে ক্ষমতায় এসে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামী ও আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদকে মন্ত্রী বানান। আন্ত্মর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবু্যনালে বিচার শেষে যুদ্ধাপরাধের দায়ে ইতোমধ্যে তাদের মৃতু্যদ- কার্যকর করা হয়েছে।
'কিন্তু তারা ক্ষমতায় থাকাকালে মন্ত্রিত্বের সুবিধা নিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা তাদের বাড়ি এবং গাড়িতে ব্যবহার করেছেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময় অর্জিত পতাকাকে স্বাধীনতাবিরোধীদের গাড়িতে তুলে দিয়ে সত্যিকারের দেশপ্রেমিক জনগণের মর্যাদা ভুলুণ্ঠিত করেছেন। তাই তার বিরম্নদ্ধে দ-বিধির ৫০০ ধারার মানহানির অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।'
এ বি সিদ্দিকীর মামলার আর্জিতে খালেদা জিয়ার পাশাপাশি তার প্রয়াত স্বামী এক সময়ের সামরিক শাসক জিয়াউর রহমানকেও আসামি করার কথা বলা হয়েছিল।
কিন্তু বাংলাদেশের আইনে মৃত ব্যক্তির বিচারের সুযোগ না থাকায় সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের নাম মামলা থেকে বাদ দেয়ার সুপারিশ করা হয় তদন্ত্ম প্রতিবেদনে।
গত ২২ মার্চ বিচারক প্রতিবেদনটি আমলে নেন এবং পরে ২০ এপ্রিল খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির হতে নির্দেশ দেন। এরপরও খালেদা জিয়া হাজির না হলে তার বিরম্নদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেন এ বি সিদ্দিকী।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
প্রথম পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close