logo
শনিবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২০, ৫ মাঘ ১৪২৭

  যাযাদি রিপোর্ট   ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

বিএনপি আইন-আদালতের তোয়াক্কা করে না: তথ্যমন্ত্রী

বিএনপি আইন-আদালতের তোয়াক্কা করে না: তথ্যমন্ত্রী
রাজধানীর ধানমন্ডিতে বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনের ওয়েবসাইট উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ -যাযাদি

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় হাইকোর্টে খালেদা জিয়ার রায়ের সময় বিএনপি হট্টগোল করে আদালত অবমাননা করেছে। এ রায়কে কেন্দ্র করে তারা আবারও পেট্রলবোমা নিক্ষেপ বা ভাঙচুরের পথ বেছে নিলে জনগণ তা প্রতিরোধ করবে- এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনের ওয়েবসাইট উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ে এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এসব কথা বলেন। আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলটির গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের (সিআরআই) উদ্যোগে এবং আওয়ামী লীগের প্রচার কমিটির সহযোগিতায় এ ওয়েবসাইট উদ্বোধন করা হয়। এর মাধ্যমে আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনের সার্বিক কার্যক্রম তুলে ধরা হবে। তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা প্রথম থেকেই বলে আসছি বিএনপি আদালত মানে না, আইন না, আইন-আদালতের তোয়াক্কা করে না। খালেদা জিয়ার এ মামলা হচ্ছে সেই মামলা, যে মামলায় তিনি উপস্থিত থাকা সত্ত্বেও বারবার তারিখ দেওয়া হচ্ছে। অর্থাৎ মামলাকে প্রলম্বিত করা হয়েছে, ১০ বছরের বেশি এটি চালানো হয়েছে। তারা তখন আদালতে হট্টগোল করেছেন, জনগণের ওপর হামলা করেছেন, ভাঙচুর করেছেন, পেট্রলবোমা নিক্ষেপ করেছেন। আজ তারা যেটি করেছেন, সেটি আদালতের প্রতি বৃদ্ধাঙুলি প্রদর্শন। তারা যে আইন মানেন না, আদালত মানেন না তারই বহিঃপ্রকাশ হচ্ছে এ হট্টগোল। আদালত অবমাননার চরম পর্যায়ে তারা এ কাজটি করেছেন। তারা চরমভাবে আদালত অবমাননা করেছেন বলে তিনি মনে করেন। অন্য এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, 'প্রথমত, আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে কর্মসূচি দেওয়া মানে আদালতকে অবমাননা করা, আদালতকে অবজ্ঞা করা। কর্মসূচির নামে যদি ভাঙচুর, জনগণের ওপর হামলা, পেট্রলবোমা নিক্ষেপের পথে তারা আবার হাঁটে তাহলে জনগণ কিন্তু আর তাদের সুযোগ দেবে না। জনগণ তাদের কঠোর হস্তে প্রতিহত করবে এবং আওয়ামী লীগ জনগণের পাশে দাঁড়াবে।' হাছান মাহমুদ বলেন, শিল্প বিপস্নবের চতুর্থ ধাপ হচ্ছে তথ্যপ্রযুক্তি বিপস্নব। তাই শেখ হাসিনা ২০০৮ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশ ঘোষণা করেছিলেন। আজ বাংলাদেশ ডিজিটাল বাংলাদেশ। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান, সংসদ সদস্য শেখ তন্ময়, আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন প্রমুখ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে