ভাল্লুক পরিবারে নতুন অতিথি

ভাল্লুক পরিবারে নতুন অতিথি

গাজীপুরের শ্রীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে তৃতীয় বারের মতো পৃথিবীতে লাল তালিকাভূক্ত এশিয়াটিক কালো ভাল্লুক দুটি শাবকের জন্ম দিয়েছে। তবে এ মা ভাল্লুক এবারই প্রথম বাচ্চা প্রসব করেছে। গত ৫ জানুয়ারি শাবক দুটির জন্ম হলেও পার্ক কর্তৃপক্ষ বুধবার দুপুরে সংবাদটি গণমাধ্যমে জানান। এ দু’টি শাবকসহ পার্কে ভালুকের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এখন ১৫টিতে।

পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সহকারী বন সংরক্ষক মো. তবিবুর রহমান জানান, কোর সাফারীর ভাল্লুক সাফারি বেষ্টনীতে মাদী ভাল্লুক অন্তঃস্বত্ত্বা হওয়ার পর তাকে বিশেষ বেষ্টনীতে নিয়ে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছিল। এ বেষ্টনীতে গত ৫জানুয়ারি একটি মাদী ভাল্লুক দুটি শাবকের জন্ম দেয়। এখনওা ওই বেষ্টনীতে রেখেই মা ভাল্লুককে খাবার দেয়া হচ্ছে। ভাল্লুক একসাথে এক থেকে তিনটি বাচ্চারও জন্ম দেয়।

তিনি আরও জানান, এশিয়াটিক ব্লাক বেয়ার এখন পৃথিবীতে প্রাণিদের মধ্যে লাল তালিকাভুক্ত প্রাণি। বিলুপ্তির ঝুঁকিতে থাকা এই জাতের (কালো ভাল্লুক) সংরক্ষণে ভূমিকা রাখছে সাফারী পার্ক। আবদ্ধ পরিবেশে ভাল্লুকের পালে তৃতীয়বারের মতো বাচ্চার জন্ম হওয়ায় তিনি এ প্রাণিটির নতুন সম্ভাবনা দেখছেন।

সদ্য জন্ম নেওয়া বাচ্চাসহ পার্কে বর্তমানে ভাল্লুকের সংখ্যা ১৫টি। গর্ভধারণের আট মাস পর বাচ্চা প্রসব করে। ভালুক ২০ থেকে ২৫ বছর পর্যন্ত বাঁচে। তবে আবদ্ধ পরিবেশে ৩০ থেকে ৩৫ বছর বেঁচে থাকে। ভাল্লুক সর্বভূক প্রাণি। পার্কে সাধারণত পূর্ণবয়ষ্ক ভাল্লুককে আপেল, মাল্টা, মিষ্টি কুমড়া, পাউরুটি, মধু খেতে দেয়া হয়।

যাযাদি/এস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে