বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

নারী-পুরুষের শরীরের বিকাশের সঙ্গে যৌনাঙ্গের সম্পর্ক

যাযাদি ডেস্ক
  ১১ জুন ২০২৪, ০৯:৫৮
প্রতিকী ছবি

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের শরীরে পবির্তন আসে। এই পবির্তনকে বলা হয় বয়ঃসন্ধিকাল। এই বয়ঃসন্ধিকাল নিয়ে বিজ্ঞানীদের গবেষণা যেন শেষ হচ্ছে না। দিন দিন তারা নতুন নতুন বিষয় মানুষের সামনে তুলে ধরছে। এবার তাদের গবেষণার বিষয় ছিল শরীরের বিকাশের সঙ্গে যৌনাঙ্গের সম্পর্ক।

শৈশব থেকে বয়ঃসন্ধি হয়ে যৌবনে পা রাখার সময় শরীর ও মনের মধ্যে আচমকা পরিবর্তনের ধাক্কা সামলানো সহজ কাজ নয়৷ তার বৈজ্ঞানিক কারণ জানা থাকলে বিষয়টি বোঝা সহজ হয়৷

বেশিরভাগ অঙ্গপ্রত্যঙ্গই সর্বদা আমাদের শরীর বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা করে চলে৷ কিন্তু যৌন অঙ্গগুলি দৈনন্দিন প্রক্রিয়ায় শুধু পরোক্ষভাবেই অংশ নেয়৷ সবার অগোচরে সেগুলি নিজস্ব পরিকল্পনা করতে থাকে৷

পুরুষ ও নারীর যৌন অঙ্গগুলির মধ্যে বাহ্যিক পার্থক্য থাকলেও সেগুলির মধ্যে আসলে বিস্ময়কর রকম মিল রয়েছে৷ গর্ভাবস্থার ষষ্ঠ সপ্তাহ থেকে যৌন অঙ্গগুলির ভিন্ন বিকাশ গড়ে৷ পুরুষের লিঙ্গ ও গ্ল্যান্স বা শিশ্নাগ্র এবং নারীর ল্যাবিয়া এবং ভগাঙ্কুরের উৎস কিন্তু একই৷ গোনাডগুলি বিকাশের সময় ডিম্বাশয় অথবা অণ্ডকোষ হয়ে ওঠে৷ কখনো আবার লিঙ্গের কোনো স্পষ্ট অভিব্যক্তিই ঘটে না৷

মস্তিষ্কে যৌন অঙ্গগুলির এক গুরুত্বপূর্ণ সহযোগী রয়েছে, যার নাম হাইপোথ্যালামাস৷ সেই অংশ ক্ষুধা, তৃষ্ণা, ঘুমের ছন্দের মতো শরীরের অনেক ক্রিয়া নিয়ন্ত্রণ করে৷ যৌন এবং প্রজনন সংক্রান্ত আচরণের রাশও সেই অংশের হাতেই থাকে৷

বয়ঃসন্ধির সময়ে হাইপোথ্যালামাস ও যৌন অঙ্গগুলি নিজেদের গোপন পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজ শুরু করে৷ মেসেঞ্জার পদার্থের সাহায্যে হাইপোথ্যালামাস সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যৌন হরমোনের নিঃস্বরণ তরান্বিত করে৷

ডিম্বাশয়ের মধ্যে ইস্ট্রোজেন এবং প্রোজেস্টেরনের উৎপাদন বেড়ে যায়৷ অণ্ডকোষে আরো বেশি টেস্টোস্টেরন নিঃস্বরিত হয়৷ উৎপাদনের পরিমাণ ৩০ গুণ বেড়ে যেতে পারে৷ তখন আচমকা আমাদের শরীরে পরিবর্তন শুরু হয়৷ পুরুষদের কাঁধ আরো চওড়া হয়ে ওঠে৷ নারীদের নিতম্ব এবং স্তন বড় হতে থাকে৷ শরীরের বিভিন্ন অংশে রোম গজায়৷ কণ্ঠে পরিবর্তন আসে এবং মনমেজাজের ঘনঘন পরিবর্তন ঘটে৷

তবে যৌন অঙ্গগুলিই সেই পরিকল্পনা থেকে সবচেয়ে বেশি ফায়দা তোলে৷ লিঙ্গ ও ভগাঙ্কুরের ইরেক্টিল টিস্যু বড় হয়ে ওঠে এবং উত্তেজনার সময়ে ফুলেফেঁপে উঠে অনেক বড় আকার ধারণের শক্তি পায়৷ একই সঙ্গে রক্ত সঞ্চালনের জোরালো বৃদ্ধির কারণে অসংখ্য স্নায়ুর অগ্রভাগ আরো সংবেদনশীল হয়ে ওঠে৷ অণ্ডকোষে শুক্রাণু কোষ সৃষ্টি হয়৷ সেইসঙ্গে প্রথম ডিম্বাণু ডিম্বাশয় থেকে জরায়ুর পথে রওয়ানা হয়৷ গোপন পরিকল্পনা কার্যকর করতে পেরে এবার যৌন অঙ্গগুলি সন্তুষ্ট হতে পারে৷ সেগুলি আমাদের যৌনভাবে পরিপক্ক মানুষ করে তুলেছে৷

এবার দুই পক্ষের অন্তরঙ্গ হওয়ার পালা৷ গোপন অভিযানের উদ্দেশ্যে এগোনোর সময়ে শুধু আমাদের যৌন অঙ্গগুলিই প্রচণ্ড পরিশ্রম করে না৷ অতএব এমন পরিবর্তনের নেপথ্যের কারণ বুঝতে যৌনাঙ্গের বিকাশ এবং শরীরের উপর সেগুলির প্রভাব জানা জরুরি৷ ডয়চে ভেলে

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে