মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

কিয়েভের সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎকেন্দ্র রাশিয়ার হামলায় ধ্বংস

যাযাদি ডেস্ক
  ১১ এপ্রিল ২০২৪, ২১:৪৭
রাশিয়ার ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্রে কিয়েভের সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎকেন্দ্র ট্রায়পিলসকা থার্মাল পাওয়ার প্ল্যান্টটিতে আগুন ধরে যায়

যুদ্ধ চলছে, শেষ হবে কবে সেটা কেউ জানে না। মার্কিন বিশ্লেষকরা বলছেন রাশিয়ার বর্তমান প্রেসিডেন্ট পুতিন যতদিন ক্ষমতায় আছেন ততদিন যুদ্ধ বন্ধ হবে না। প্রতিদিন হামলা-পাল্টা হামলার মধ্য দিয়ে চলছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। এতে ইতোমধ্যে শত শত মানুষ নিহত হয়েছেন। ধ্বংস হয়েছে অসংখ্য স্থাপনা।

এদিকে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ইউক্রেনের কিয়েভ অঞ্চলের সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎকেন্দ্রটি ধ্বংস হয়ে গেছে। আজ বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) সকালে বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে হামলা চালায় রাশিয়া। গত কয়েকদিন ধরে ইউক্রেনের অবকাঠামো লক্ষ্য করে ফের হামলা চালানো শুরু করেছে রুশ বাহিনী। খবর সিএনএন।

আজ বৃহস্পতিবার ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্রে কিয়েভের সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎকেন্দ্র ট্রায়পিলসকা থার্মাল পাওয়ার প্ল্যান্টটি (টিপিপি) ধ্বংস হয়ে যায়। ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে কেন্দ্রটির টারবাইন ওয়ার্কশপে আগুন ধরে যায়। তবে এই হামলায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

এছাড়া কেন্দ্রটি থেকে কিয়েভসহ অন্যান্য যেসব অঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ হতো, সেসব অঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রয়েছে।বিদ্যুৎ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান সেন্ট্রেনার্গোর অধীনে ছিল এ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি। তারা এক বিবৃতিতে কেন্দ্রটি ধ্বংস হয়ে যাওয়ার তথ্য জানিয়েছে।

প্রায় দুই বছরের বেশি সময় ধরে চলা এ যুদ্ধে একাধিকবার ইউক্রেনের বিদ্যুৎ অবকাঠামো লক্ষ্য করে হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। এরমাধ্যমে দেশটির বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা ধ্বংস করে দেওয়ার পরিকল্পনা করছে রুশ বাহিনী। সঙ্গে বিদ্যুৎ সেবা বন্ধ করে দিয়ে ইউক্রেনের সাধারণ মানুষের মনোবলও ভেঙে দেওয়ার চেষ্টা করছে তারা। বিদ্যুৎ বন্ধ হয়ে গেলে পানি, গ্যাসসহ অন্যান্য সেবা থেকেও বঞ্চিত হবেন সাধারণ ইউক্রেনীয়রা।

২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে পূর্ণ মাত্রার সামরিক হামলা শুরু করে রাশিয়া। ওই সময় ইউরোপের সবচেয়ে বড় জাপোরিঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র দখল করে নেয় রুশ বাহিনী। এই কেন্দ্রটি থেকে ইউক্রেনের মোট চাহিদার ২০ শতাংশ মেটানো হতো।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে