শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

জাহাজে হেলিকপ্টার থেকে ফেলা হয় ডলার 

যাযাদি ডেস্ক
  ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:১৫
আপডেট  : ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৩২
ছবি সংগৃহিত

মুক্তিপণ্যের টাকা পরিশোধের পরই বাংলাদেশী জাহাজের নাবিকরা মুক্তি পান। হেলিকপ্টার থেকে ছিনতাই হওয়া জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ ডলার ফেলা হয়। এই ডলার ঠিক আছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখে সোমালিয়ান জলদস্যুরা। তাদের পরীক্ষায় দেখা যায় ডলার সঠিক। তারপর খুলে দেয়া হয় বন্দি ঘরের দরজা। তারপর একে একে বাইরে আসতে থাকেন বন্দি ২৩ নাবিক। এভাবে মুক্ত জীবনে ফিরলেন তারা। তবে কত ডলারে চুক্তি হয়েছে তা কোনো পক্ষই জানাইনি।

মুক্তি পাওয়া নাবিকদের একজন জানান, ব্যাগ ভর্তি ডলার পেয়ে সোমালিয়ান জলদস্যুরা তাদের ছেড়ে রাতে আধারে ছোট বোর্ডে করে পালিয়ে যান। এর আগে ভিড়িওর মাধ্যমে মালিকপক্ষকে দেখানো হয় যে তারা সবাই জীবিত আছে। মালিকপক্ষ যখন জানতে পারেন যে সবাই জীবতি ও সুস্থ্য আছেন তখন তারা ডলারের ব্যাগ ফেলে দেন।

এর আগে সোমালিয়ার নৌদস্যুদের কবল থেকে বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ ২৩ নাবিকসহ মুক্তি পেয়েছেন। বাংলাদেশে সময় শনিবার দিবাগত রাত সোয়া তিনটার দিকে এ খবর নিশ্চিত করেছে জাহাজটির মালিকপক্ষ কেএসআরএম গ্রুপ। জানা গেছে হেলিকপ্টার থেকে জাহাজে ডলার ফেলার পরই নাবিকদের মুক্তি দেওয়া হয়েছে। তবে কত ডলার মুক্তিপণ দেওয়া হয়েছে, তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।

ক্তিপণের ডলার বুঝে পাওয়ার পর দস্যুরা জাহাজ থেকে নেমে পড়ে। এরপর মুক্তির আনন্দ নিয়ে জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ দস্যু কবলিত এলাকা থেকে বন্দরের উদ্দেশে চলতে শুরু করে। আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠা নাবিকেরা সেজদায় অবনত হয়ে মহান আল্লাহর দরবারে শোকরিয়া আদায় করেন। মুক্তির সুসংবাদ জানিয়ে দেন দেশে অপেক্ষায় থাকা বাবা মা স্ত্রী স্বজনদের। সব নাবিকসহ জাহাজটি মুক্তি পাওয়ার কথা জানিয়ে কেএসআরএম গ্রুপের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার জাহান রাহাত বলেছেন, জাহাজটি সংযুক্ত আরব আমিরাতের উদ্দেশে রওয়ানা হয়েছে।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে