রোববার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯

ডার্ক হর্স বেলজিয়ামের বিদায়, দ্বিতীয় রাউন্ডে ক্রোয়েশিয়া

যাযাদি ডেস্ক
  ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০০:০০
আপডেট  : ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:১০
ছবি সংগ্রহ

বেলজিয়ামের গোল্ডেন জেনারেশনের এটিই ছিল শেষ বিশ্বকাপ। ডি ব্রুইনা, লুকাকু, হ্যাজার্ডদের মত একঝাঁক তারকায় ঠাসা বেলজিয়াম দল ২০১৮ বিশ্বকাপে তৃতীয় হয়ে এ বিশ্বকাপে ভালো করার আশা নিয়ে এসেছিল। কিন্তু কাতার বিশ্বকাপে মাত্র এক ম্যাচে জয় আর বাকি দুটিতে হেরে চোখের জলে বিদায় নিতে হলো তাদের। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে বাঁচা-মরার লড়াইয়ে বহুবার সুযোগ সৃষ্টি করেও গোলের দেখায় পায়নি বেলজিয়াম। ক্রোয়েটদের জমাট রক্ষণ ভাঙতে ব্যর্থ হন লুকাকু, ডি ব্রুইনরা। ফলে গোলশূন্য ড্রতে খেলা শেষ হলে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিশ্চিত হয় বেলজিয়ামের।

১০ বারের মোকাবিলায় বেলজিয়ামের বিপক্ষে মাত্র দুবার পরাজিত হয় ক্রোয়েশিয়া। এমন দাপুটে পরিসংখ্যান নিয়ে বেলজিয়ামের বিপক্ষে শুরু থেকে খেলতে থাকে গতবারের রানার্সআপ দলটি। ম্যাচের ১০ মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার দারুণ সুযোগ পায় বেলজিয়াম। কিন্তু কারাসকোর শট রুখে দেন ক্রোয়েট গোলরক্ষক। ১৩ মিনিটে বেলজিয়ামের হয়ে ম্যাচের সহজ সুযোগ মিস করেন মার্টেনস। ডি ব্রুইনের বাড়ানো বলে গোলরক্ষককে একা পেয়েও বল গোলবারের উপর দিয়ে মারেন তিনি।

এর ঠিক ৩ মিনিট পরেই ম্যাচের সবচেয়ে আলোচিত মুহূর্তটি আসে বেলজিয়ান ডি বক্সের ভেতর। ক্রোয়েশিয়ার ফ্রি কিক থেকে বল ডি বক্সের ভেতর ঢুকলেও সেখানে ক্রামারিচকে ফাউল করে বসেন কারাসকো। রেফারি পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেন। কিন্তু ভিএআর এর মাধ্যমে দেখা যায় পেনাল্টির আগেই অফসাইডে ছিলেন লভরেন। যে কারণে পেনাল্টি বাতিল করে দেন রেফারি।

৩৩ মিনিটে আবারো গোলের সুযোগ পায় ক্রোয়েশিয়া। এবার লিভায়ার শট গোলবারের দিয়ে চলে যায়। ম্যাচ শেষের ১ মিনিট আগে সসার শট আবারো চলে যায় গোলবারের বাইরে দিয়ে ফলে গোলশূন্য ড্র অবস্থাতেই বিরতিতে যায় দুই দল।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই রোমেলু লুকাকুকে মাঠে নামায় রেড ডেভিলরা। ৫১ মিনিটে গোলের সুযোগ পায় ডি ব্রুইন। তার বুলেট গতির শট গোলবারের উপর দিয়ে চলে যায়। ৫৪ মিনিটে এবার ক্রোয়েশিয়ার আক্রমণ থেকে ব্রজোভিচের শট রুখে দেন কুর্তোয়া। ৬০ মিনিটে প্রায় গোলের দেখায় পেয়ে গিয়েছিল বেলজিয়াম কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ায় গোলবার। লুকাকুর ডান পায়ের শট গোলরক্ষকে পরাস্ত করলেও গোলবারে লেগে বাইরে চলে যায়।

৬৪ মিনিটে আবারো গোলের সুযোগ পায় লুকাকু। এবার তার হেড চলে যায় গোলবারের সামান্য উপর দিয়ে। ম্যাচের শেষ দিকে ৮৭ মিনিটে আবারো গোলের সুযোগ হাতছাড়া করেন লুকাকু। এবারও তার শট দেখা পায়নি গোলের। ৯০ মিনিটে ম্যাচের সবচেয়ে সহজ সুযোগটি মিস করেন ইন্টার মিলানে ধারে খেলতে যাওয়া লুকাকু। থোরান হ্যাজার্ডের বাড়ানো বলে ফাঁকা জায়গায় বল পেয়েও তা গোল মুখে ঢুকাতে পারেননি তিনি। মূলত লুকাকুর এতগুলো গোল মিসেই কপাল পুড়ে বেলজিয়ামের। খালি হাতেই বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিতে হয় বেলজিয়ামকে। অন্যদিকে ড্র করে গ্রুপের রানার্সআপ হয়েই দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠে ক্রোয়েশিয়া।

যাযাদি/ সোহেল

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে