বুধবার বীমা খাতের দাপটও ঠেকাতে পারেনি দরপতন

বুধবার বীমা খাতের দাপটও ঠেকাতে পারেনি দরপতন

বুধবার বীমা খাতের বড় উত্থানের পরও পুঁজিবাজারে দরপতন ঠেকাতে পারেনি। বরং বেক্সিমকো, বেক্সিমকো ফার্মার পাশাপাশি বহুজাতিক কোম্পানির শেয়ারে দাম কমায় সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবস বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বাজারে ফের বড় দরপতন হয়েছে। কমেছে সূচক, বেশির ভাগ শেয়ারের দাম ও লেনদেন।

বুধবার সকাল ১০টায় বেশির ভাগ শেয়ারের দাম বাড়ার মধ্য দিয়ে লেনদেন শুরু হয়। এই ধারা অব্যাহত ছিল বেলা পৌনে ১১টা পর্যন্ত। এরপরই শুরু হয় বেক্সিমকো, বেক্সিমকো ফার্মা এবং বহুজাতিক কোম্পানিগুলোর শেয়ার বিক্রির চাপ। যা দিনের শেষ সময় পর্যন্ত অব্যাহত ছিল। তাতে আগের দিনের মতো সূচক পতনের মধ্য দিয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে।

এদিন দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচক কমেছে ২৩ পয়েন্ট। অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক কমেছে ৬৪ পয়েন্ট। এ নিয়ে টানা দু’দিন দরপতন হলো।

এদিন ১০১টি প্রতিষ্ঠানের দাম বাড়ার মধ্যে বীমা খাতের ৪৫টি প্রতিষ্ঠানের দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১টির। ফলে দাম বাড়ার শীর্ষ দশে থাকা প্রতিষ্ঠানের ৯টি প্রতিষ্ঠানই হলো বীমা কোম্পানি। এর মধ্যে জনতা ইন্স্যুরেন্সের দাম বেড়েছে ১০ শতাংশ, এরপর দাম বেড়েছে এশিয়া ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির শেয়ারের। এই কোম্পানির শেয়ারের দাম বেড়েছে ৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ। শীর্ষ দশে থাকা বাকি ৮টি কোম্পানির শেয়ারের দামও বেড়েছে প্রায় ১০ শতাংশ হারে। তারপরও দরপতন ঠেকানো যায়নি।

ডিএসইর তথ্যানুযায়ী, বুধবার বাজারে মোট ৩৪৪টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দাম বেড়েছে ১০১টির, কমেছে ১৪১টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১০২টি কোম্পানির শেয়ারের দাম।

ডিএসইর প্রধান সূচক আগের দিনের তুলনায় ২৩ দশমিক ৭১ পয়েন্ট কমে পাঁচ হাজার ৫০৩ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএস-৩০ সূচক আগের দিনের চেয়ে ২৫ দশমিক ৭৫ পয়েন্ট কমেছে এবং ডিএসইএস সূচক ১ পয়েন্ট কমেছে।

এদিন ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৯৯৫ কোটি ৭৩ লাখ ৬৭ হাজার টাকার শেয়ার। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৯৯৫ কোটি ৭৩ লাখ ৬৭ হাজার টাকার শেয়ার।

ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলোর মধ্যে রয়েছে- বেক্সিমকো, বেক্সিমকো ফার্মা, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো, লঙ্কা-বাংলা ফাইন্যান্স, রবি আজিয়াটা, বিকন ফার্মা, স্কয়ার ফার্মা, সামিট পাওয়ার, বিডি ফাইনেন্স এবং রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্স।

দাম বাড়ার শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলোর মধ্যে রয়েছে- জনতা ইন্স্যুরেন্স, এশিয়া প্যাসিফিক ইন্স্যুরেন্স, মিরাকল ইন্ডাস্ট্রিজ, প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স, কর্ণফুলী ইন্স্যুরেন্স, অগ্রণী ইন্স্যুরেন্স, পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, নিটল ইন্স্যুরেন্স, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স এবং নর্দান ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড।

দেশের অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে সার্বিক সূচক আগের দিনের তুলনায় ৬৪ পয়েন্ট কমে ১৫ হাজার ৯৪১ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। এদিন সিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ৭৬টির, কমেছে ১০৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৫৭টির। বাজারে লেনদেন হয়েছে মোট ২৬ কোটি ৩৯ লাখ ৩৬ হাজার টাকার শেয়ার। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৩৮ কোটি ৬ লাখ ১৬ হাজার টাকার শেয়ার।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে