বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০
walton

ইউক্রেনে অনিশ্চিত ইউরোপ আমেরিকার সহায়তা

যাযাদি ডেস্ক
  ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩, ০০:০০

ইউক্রেনে আসছে শীতকাল। তীব্র শীতের দিনগুলোকে লক্ষ্য করে দেশটির বিভিন্ন জ্বালানি অবকাঠামোয় হামলা জোরদার করেছে রাশিয়ার সেনাবাহিনী। এরই মধ্যে নতুন আরেক বিপত্তির মুখে পড়তে যাচ্ছে কিয়েভ সরকার। এতদিন পশ্চিমা মিত্রদের কাছ থেকে তারা যে আর্থিক সহায়তা পেয়ে আসছিল, তা নিয়ে এখন অনিশ্চয়তা বাড়ছে।

গত সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের এ বিষয়ে একটি চিঠি প্রকাশ করেছে দেশটির সরকার। তাতে মার্কিন কংগ্রেসকে সতর্ক করে হোয়াইট হাউস বলেছে, ইউক্রেনকে সহায়তার জন্য যে তহবিল অনুমোদন দেওয়া হয়েছিল, তা চলতি বছরের শেষ নাগাদ ফুরিয়ে যেতে পারে। এদিকে কিয়েভকে সহায়তায় নতুন ৫৪ বিলিয়ন ডলারের একটি তহবিল নিয়েও ঐকমত্যে পৌঁছাতে পারছে না ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

প্রকাশিত ওই চিঠি যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার মাইক জনসনের উদ্দেশে লিখেছেন দেশটির ব্যবস্থাপনা ও বাজেট অফিসের পরিচালক শালানডা ইয়ং। তাতে স্পষ্ট বলা হয়েছে, 'আমি বিষয়টি পরিষ্কার করতে চাচ্ছি যে ইউক্রেনের জন্য সমরাস্ত্র ও সামরিক সরঞ্জাম জোগাড় করতে আমাদের যে তহবিল রয়েছে, তা কংগ্রেসের পদক্ষেপ ছাড়া চলতি বছরের শেষ নাগাদ ফুরিয়ে যাবে।'

চিঠিতে হুঁশিয়ারি দিয়ে শালানডা ইয়ং বলেছেন, শীত সামনে রেখে রাশিয়া যখন ইউক্রেনের বিভিন্ন বেসামরিক অবকাঠামোয় হামলা চালাচ্ছে, তখন মার্কিন তহবিলে ঘাটতির জেরে যুদ্ধে কিয়েভের পরাজয় হতে পারে। তার ভাষায়, 'যদি ইউক্রেনের অর্থনীতি ধসে পড়ে, তাহলে তারা যুদ্ধ চালিয়ে যেতে পারবে না। একেবারে দাঁড়ি টেনে দিতে হবে।'

নিজ দেশের অর্থনীতি নিয়েও সম্প্রতি বেশ বিপাকে পড়েছিল যুক্তরাষ্ট্র সরকার। গত মাসে অল্পের জোরে মার্কিন অর্থনীতিতে অচলাবস্থা ঠেকানো সম্ভব হয়েছিল। নতুন বছরে সরকারি দপ্তরগুলোর কার্যক্রম চালানোর জন্য অর্থায়নের প্রস্তাব একেবারে শেষ মুহূর্তে এসে কংগ্রেসে পাস হয়েছিল। তবে ওই অর্থায়নে গুরুত্বপূর্ণ বিদেশি সহায়তার বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে।

রাশিয়া ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রম্নয়ারি ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান শুরু করে। এরপর থেকে সবচেয়ে বেশি আর্থিক সহায়তা নিয়ে ইউক্রেনের পাশে দাঁড়িয়েছে ওয়াশিংটন। এখন পর্যন্ত কিয়েভকে ৪০ বিলিয়ন ডলারের বেশি সহায়তা দিয়েছে হোয়াইট হাউস।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে