বহিস্কার আদেশের মধ্যেই খুলনায় নৌকার মাঝি হলেন অহিদুজ্জামান

বহিস্কার আদেশের মধ্যেই খুলনায় নৌকার মাঝি হলেন অহিদুজ্জামান

আ’লীগের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে বিব্রতকর বক্তব্য দেয়ায় সাময়িক বহিস্কার হয়েছিলেন খুলনার তেরখাদা উপজেলা আ’লীগের সভাপতি এফএম অহিদুজ্জামান। বহিস্কার আদেশ মাথায় নিয়েই নৌকা’র মাঝি হলেন খুলনা জেলার তেরখাদা সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এফএম অহিদুজ্জামান। গত শুক্রবার রাতে তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে আ’লীগ মনোনীত প্রার্থীদের তালিকায় নাম প্রকাশিত হয়েছে তার। এতে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে এলাকায়। এরআগে, গত ১১ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত জেলা আ’লীগের বর্ধিত ও কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় প্রথম ধাপের ইউপি নির্বাচনে খুলনায় ১১ জন বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছিল। এরমধ্যে ৮জন সরাসরি বিদ্রোহী প্রার্থী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। আরও তিনজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জয়ী হন।

সূত্রমতে, গত ১৯ জুলাই দুপুরে তেরখাদা ইউনিয়ন পরিষদে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার হিসেবে ভিজিএফের চাল বিতরণ করা হয়। চাল বিতরণ অনুষ্ঠানে তেরখাদা উপজেলা আ'লীগের সভাপতি ও তেরখাদা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এফএম অহিদুজ্জামান ভিজিএফের চাল নিতে আসা জনগণের সামনে বক্তব্য দেন। বক্তব্য দেয়ার সময় তিনি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে স্থানীয় সংসদ সদস্য (খুলনা-৪) আব্দুস সালাম মুর্শেদীকেও সংযুক্ত রাখেন। ইউপি চেয়ারম্যানের বক্তব্য শেষে আব্দুস সালাম মুর্শেদীও ঢাকা থেকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ওই অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠানে অহিদুজ্জামান তার বক্তব্যের এক পর্যায়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মুর্শেদীর প্রশংসা করতে গিয়ে বলেন, ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন দেশের বাইরে বড় কোনো অনুষ্ঠানে যান, তখন আমাদের এমপি আব্দুস সালাম মুর্শেদী মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ডোনেশন (টাকা) দেন।’ তিনি তার বক্তব্যে আরও বলেন, ‘খুলনা জেলার অনেক এমপি আমাদের এমপি সালাম মুর্শেদীর টাকায় এমপি হয়েছেন।’

তার এই বক্তব্য নিয়ে এলাকার সাধারণ জনগণসহ স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। এর জেরে গত ২৬ জুলাই খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ কার্যনির্বাহী কমিটির সভা আহ্বান করা হয়। ওই সভায় তেরখাদা উপজেলা আ'লীগের তৎকালীন সভাপতি সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এফএম অহিদুজ্জামানকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।

মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে জেলা আ'লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত অধিকারী যায়যায়দিনকে বলেন, আমার কাছে কোনো চিঠি আসেনি। সংসদীয় কমিটি তাকে মনোনয়ন দিয়েছে। আর অহিদুজ্জামানের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, এফ এম অহিদুজ্জামানের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার হয়নি।

জেলা আ’লীগের দপ্তর সম্পাদক এমএ রিয়াজ কচি জানান, জেলা আ’লীগের সভায় তেরখাদা উপজেলা আ’লীগের সভাপতি এফএম অহিদুজ্জামান অহিদকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছিল। তাকে স্থায়ীভাবে কেন বহিষ্কার করা হবে না-এ মর্মে নোটিশ পাঠানো হয়। উত্তর দিয়েছিলেন তিনি। তবে অহিদুজ্জামান অহিদ যখন প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে বিব্রতকর বক্তব্য দিচ্ছিলেন তখন এমপি চুপ ছিলেন। এসব ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এই নিয়ে এলাকায় ভোটারদের মধ্যো চরম খোব বিরাজ করছে।

যাযাদি/এসআই

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে