মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯
walton1

হাবিপ্রবির পাঁচ শিক্ষককে পিটিয়ে আহত করলেন পিয়ন

দিনাজপুর প্রতিনিধি
  ১৬ নভেম্বর ২০২২, ১৩:৪৯

দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যানসহ পাঁচ শিক্ষককে পানি খাওয়া গ্লাস দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে একই বিভাগের পিয়ন। হামলাকারী একই বিভাগের পিয়ন তাজুল ইসলামকে আটক করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

 

আজ বুধবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে হাবিব প্রবি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে পিয়ন তাজুল ইসলাম অতর্কিতভাবে একই বিভাগের শিক্ষকের উপর হামলার চালায়। আহত শিক্ষকরা এখন দিনাজপুরে এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

 

আহত সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান নাম সহযোগী অধ্যাপক রোকনুজ্জামান রনি, একই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক বেলাল হোসেন, প্রভাষক নির্মল চন্দ্র রায়, প্রভাষক হারুনুর রশিদ এবং সদ্য যোগদানকারী প্রভাষক মাহবুব রহমান।

 

আহত সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান সহযোগী অধ্যাপক রোকনুজ্জামান রনি বলেন, আজ বুধবার সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সফরের কথা ছিল। এই শিক্ষা সফরে ছাত্র ছাত্রীদের সাথে দুজন শিক্ষক ও যাওয়ার কথা ছিল। তাই সকাল নয়টার সময় সকল ছাত্র-ছাত্রী এবং শিক্ষকেরা উপস্থিত হলেও অফিস পিয়ন তাজুল ইসলাম বিলম্ব করায়। আমি নিজেই অফিস পিয়ন তাজুল কে মোবাইল ফোনে তাড়াতাড়ি অফিসে আসার জন্য নির্দেশ প্রদান করি।

 

কিন্তু সে মোবাইলেই আমার সাথে খারাপ আচরণ করে এবং কথা বলার এক পর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে মোবাইলের লাইন কেটে দেয়। কিছু সময় পর তাজুল অফিসে আসলে তাকে মোবাইল ফোনের লাইন কেটে দেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি উত্তেজিত হয়ে প্রথমেই সদ্য যোগদানকারী শিক্ষক মাহবুব রহমানের মাথায় পানি খাওয়ার গ্লাস দিয়ে আঘাত করে এবং সে রক্তাক্ত অবস্থায় শিক্ষক কক্ষে পড়ে গেলে। অন্যান্য শিক্ষকরাও এগিয়ে আসলে তাদেরকেও এলোপাথাড়ি ভাবে পানি খাওয়ার গ্লাস দিয়ে মাথায় আঘাত করে।

 

আমি নিজেও এগিয়ে আসলে আমারও উপর হামলা করে এতে আমার  ঠোঁট ফেটে যায়। আরো চারজন শিক্ষক মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়। মাথা ফেটে যায় রক্তাক্ত অবস্থায় শিক্ষকদেরকে উদ্ধার করে প্রথমেই বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়। শিক্ষকদের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় দিনাজপুরে আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

 

ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডীন অধ্যাপক মফিজুল ইসলাম জানান এর আগেও সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অফিস পিয়ন তাজুল ইসলাম এক শিক্ষকের উপর হামলার ঘটনা ঘটিয়েছিল। সেই সময় তাকে সাময়িক দরখাস্ত করা হয়েছিল। গত কয়েক মাস ধরে লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সে আসলেই মানসিক সমস্যায় ভুগছে বলে আমার মনে হয়েছে। আজকে যে ৫ শিক্ষকের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানাই। এবং এই কর্মচারীকে বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি করছি। বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর লিখিতভাবে জানানো হবে।

 

দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সার্জারি ওয়ার্ডের সহ যোগী অধ্যাপক ডাক্তার তৌহিদুর রহমান তৌহিদ জানান আহত পাঁচ শিক্ষক চিকিৎসা প্রদান করা হচ্ছে। তাদের চারজনের মাথায় আঘাত প্রাপ্ত এবং একজনে ঠোট ফেটে আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছেন। তাদেরকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে তারা আগের তুলনায় সবাই সুস্থ রয়েছে।

 

যাযাদি/সাইফুল

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে