শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১

পানিতে নিমজ্জিত কুলাউড়া হাসপাতালের রাস্তা, সেবা ব্যাহত

কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি
  ২৪ জুন ২০২৪, ১৫:০৯
ছবি: যায়যায়দিন

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলা ৫০ শয্যা হাসপাতালের ভেতরের রাস্তাসহ পুরো এরিয়া বন্যার পানিতে নিমজ্জিত। য়ার কারণে কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা পড়েছেন চরম দুর্ভোগে। হাসপাতালে প্রবেশের রাস্তায় বন্যার পানি উরু সমান। কোনো প্রকার গাড়ী কিংবা অ্যাম্বুলেন্স হাসপাতালে প্রবেশ করতে পারছে না। ফলে ভ্যান ভাড়া করে রোগীদের নিয়ে যেতে হয় হাসপাতালে।

কুলাউড়া থেকে নির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল চলতি অধিবেশনে সংসদে বিষয়টি উত্থাপন করেন।

হাসপাতালে সেবা নিতে আসা জয়চন্ডী ইউনিয়নের পুসাইনগর গ্রামের আনফর আলী, দিলদারপুর এলাকার মুকিত মিয়া, গিয়াসনগর এলাকার নাজমা বেগমসহ অনেকে জানান, তারা রোগী নিয়ে হাসপাতালে আসেন ২১, ২২ ও ২৩ জুন। কিন্তু হাসপাতালে প্রবেশের মুল রাস্তায় উরু সমান পানি। যারফলে ভ্যান ভাড়া করে যেতে হয়েছে হাসপাতালে। মাত্র ৫০ মিটার রাস্তা পার হওয়ার জন্য ভাড়া দিতে হয়েছে জনপ্রতি ৪০ টাকা করে।

এছাড়াও হাসপাতালের কর্মকর্তা, কর্মচারীদেরও যাওয়া আসায় ২০-৩০ টাকা করে ভাড়া দিতে হয়েছে ভ্যান চালককে। হতদরিদ্র লোকজন পড়েছেন বিপাকে। উপায়ন্ত না পেয়ে অনেকেই জামাকাপড় ভিজিয়ে গিয়ে উঠছেন হাসপাতালে।

কুলাউড়া উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার ৫ লাখ মানুষের চিকিৎসা সেবা গ্রহণের প্রধান স্থান হচ্ছে এই হাসপাতালটি। প্রতিদিন গড়ে সহস্রাধিক মানুষ আসেন সেবা গ্রহণের উদ্দেশ্যে। বন্যার পানির কারণে তাদের দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। গত ১৭ জুন থেকে এই দুর্ভোগ মোকাবেলা করতে হচ্ছে হাসপাতালে সেবা নিতে আসা মানুষদের।

২০২২ সালের ভয়াবহ বন্যায় একই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছিলো। তখন কুলাউড়া ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি ড্রাম দিয়ে চলাচলের জন্য বিকল্প রাস্তা তৈরি করে দিয়েছিলো। কিন্তু এবার আর এগিয়ে আসেনি সংগঠনটি। ফলে মানুষের দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে।

এ ব্যাপারে মৌলভীবাজারের সিভিল সার্জন চৌধুরী জালাল উদ্দিন মোর্শেদ জানান, দুর্ভোগের বিষয়টি তিনি জেনে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে লিখিত আকারেও জানিয়েছেন। আপাতত বিষয়টি সুরাহার জন্য স্থানীয় মেয়র মহোদয়কে বলেছেন।

যাযাদি/ এসএম

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে