logo
মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০, ৩০ আষাঢ় ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ৩১ মে ২০২০, ০০:০০  

সংবাদ সংক্ষেপ

জি-৭ শীর্ষ সম্মেলন

ট্রাম্পের আমন্ত্রণ ফিরিয়ে

দিলেন মার্কেল

যাযাদি ডেস্ক

আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক সংস্থা জি-৭ এর শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে ওয়াশিংটনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করেছেন জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেল। করোনাভাইরাসের কারণে সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে ব্যক্তিপর্যায়ে সম্মেলন করার পরিকল্পনা ট্রাম্পের।

শুক্রবার 'দ্য পলিটিকো' এক প্রতিবেদনে জানায়, গ্রম্নপ অব সেভেনের শীর্ষ সম্মেলনে মার্কেলকে অংশগ্রহণের অনুরোধ করেছিলেন ট্রাম্প। কিন্তু ওয়াশিংটনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জার্মানির সরকারপ্রধান। করোনা মহামারির সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে তিনি অংশগ্রহণে রাজি নন, ওয়াশিংটনে যেতে চান না তিনি।

করোনার শঙ্কায় গত মার্চে নির্ধারিত জি-৭ শীর্ষ সম্মেলন স্থগিত করা হয়। তারপর থেকে ব্যক্তিগতভাবে এই সম্মেলনের পরিকল্পনা করছেন ট্রাম্প। তাকে সমর্থন দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, 'সম্ভব হলে' বিশ্বনেতাদের এই সম্মেলন ব্যক্তিপর্যায়ে করা উচিত।

বিশ্বব্যাপী অর্থনীতি ধীরে ধীরে সচল হলেও মার্কেল সতর্ক করে বলেছেন, জুনে সমবেত হওয়া বড্ড তাড়াতাড়ি হয়ে যায়। সেইবার্ট বলেছেন, 'মহামারির অবস্থা তিনি সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ করে যাবেন।' সংবাদসূত্র : আল-জাজিরা

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ

একদিন পরপর স্কুলে

যাবে শিক্ষার্থীরা!

যাযাদি ডেস্ক

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর আগামী ৩০ জুনের পর চালু হচ্ছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সরকারি স্কুলগুলো। সেক্ষেত্রে জোড়-বিজোড় রোল নম্বরের ভিত্তিতে স্কুলে যেতে হতে পারে শিক্ষার্থীদের। অর্থাৎ, তাদের স্কুলে যেতে হবে একদিন পরপর।

গত বৃহস্পতিবার রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানান, সামাজিক দূরত্ব মেনে ক্লাস চালু করতে যাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। স্কুলগুলোকে 'বিকল্প মডেল' অনুসরণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছিলেন তিনি। তবে সেই বিকল্প মডেল কী, তা বিস্তারিত জানানো হয়নি।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর জানিয়েছে, বিকল্প মডেল অনুযায়ী কোনো একটি নির্দিষ্ট ক্লাসের একদল শিক্ষার্থী একদিন স্কুলে গেলে পরের দিন আর যাবে না। সেদিন অন্য একটি দল স্কুলে যাবে। তৃতীয় দিনে আবার প্রথম দলটি ক্লাস করবে। সামাজিক দূরত্বের বিধি মেনে এভাবেই একদিন পরপর শিক্ষার্থীদের ক্লাস চালু হতে পারে। সংবাদসূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস

করোনা রুখতে আসছে

ইলেকট্রনিক মাস্ক

যাযাদি ডেস্ক

তুরস্কের দুইজন ডাক্তার ইলেকট্রনিক মাস্ক তৈরি করেছেন। এই মাস্ক রোগজীবাণুর পাশাপাশি করোনাভাইরাসের জীবাণুও ধ্বংস করতে সক্ষম। পাশাপাশি এটি পরা থাকলে করোনা আক্রান্ত রোগীর শ্বাসযন্ত্র, হাঁচি-কাশির মাধ্যমে জীবাণু ছড়াতে পারবে না।

জীবাণু মারতে সক্ষম আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি ও ইলেকট্রিক্যাল সিলভার বেস ব্যবহার করা হয়েছে এই মাস্কে।

সেন্ট্রাল তুরস্কের আকসারি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুইজন ডাক্তার তাদের চলমান প্রজেক্টের অংশ হিসেবে এই মাস্ক তৈরি করেছেন। তাদের একজন ডাক্তার তারিক ইলমাজ।

তিনি মাস্কের বিষয়ে বলেন, 'প্রথমে আমরা বহনযোগ্য ও নিজে নিজেই জীবাণুমুক্ত হতে পারে এমন মাস্ক তৈরি করার চেষ্টা করেছি। এরপর আমরা জীবাণু ও ভাইরাস ধ্বংস করতে পারে এমন মাস্ক তৈরির পরিকল্পনা নিয়ে এগোই। কারণ গবেষণায় দেখা গেছে, আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি ভাইরাস মারতে পারে। মাস্কে এই রশ্মি যুক্ত ও কার্যকর করাটা ছিল চ্যালেঞ্জিং।'

কীভাবে এবং কতক্ষণ চলবে এই মাস্ক? ডাক্তার তারিক বলেছেন, 'এটা মূলত পাওয়ার ব্যাংক থেকে শক্তি নেবে। আর সেটার মাধ্যমে একটানা ১২ ঘণ্টা চলবে। সংবাদসূত্র : আনাদলু

ডিমে 'বিষ' মেশানোর

অভিযোগ প্রমাণিত

যাযাদি ডেস্ক

নেদারল্যান্ডস ও বেলজিয়ামের দুটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ডিমে বিষ মেশানোর অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তারা ডিম জীবাণুমুক্ত করার নামে এতে বিষাক্ত ফিপ্রোনিল কেমিকেল মিছিয়েছে। যার কারণে আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন মুরগি খামারিরা।

বুধবার নেদারল্যান্ডসের আরনেম শহরের আদালতে তাদের বিরুদ্ধে থাকা অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত প্রতিষ্ঠান দুটিকে দোষী সাব্যস্ত করে।

অভিযোগে বলা হয়, ডিমের জীবাণু ধ্বংসের নামে তারা এতে মাছি ও উকুন মারার কীটনাশক ছিটিয়েছে। প্রতিষ্ঠান দুটো ইউক্যালিপটাস এবং মেন্থল মিশিয়ে তৈরি করা নিরাপদ জীবাণুনাশক বলে চালিয়ে দিলেও সেই ওষুধে আসলে ফিপ্রোনিল থাকে। এর ফলে তখন ৩০ লাখের বেশি মুরগি মেরে ফেলতে হয়েছিল। ধ্বংস করা হয়েছিল কোটি কোটি ডিম। ইউরোপের ২৫টি দেশ ও হংকংয়ের বাজার থেকে লাখ লাখ ডিম ফিরিয়ে নিয়ে নষ্ট করতে বাধ্য হন মুরগি খামারিরা। সংবাদসূত্র : ডেইলি মেইল
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে