logo
সোমবার ১৪ অক্টোবর, ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬

  শিক্ষা জগৎ ডেস্ক   ০৯ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০  

ইতিহাসের পাতা

লুই ব্রেল

আবিষ্কারক ও শিক্ষক জন্ম : ৪ জানুয়ারি, ১৮০৯ মৃতু্য : ৬ জানুয়ারি, ১৮৫২

লুই ব্রেল
লুই ব্রেল একজন ফরাসি আবিষ্কারক ও শিক্ষক। ফ্রান্সের কুপভ্রে এলাকায় তিনি জন্মগ্রহণ করেন। ১৮০৯ সালের ৪ জানুয়ারি, ফ্রান্সের প্যারিস শহর থেকে আরো ৪০ কিলোমিটার দূরে ছোট শহরতলী কুপভ্রে জন্ম নেন লুই ব্রেল। তার পিতার নাম সাইমন রেনে ব্রেল এবং মাতা মোনিক ব্রেল। পিতা সাইমন রেনে ছিলেন একজন চামড়া ব্যবসায়ী। ছোট থেকেই লুই ব্রেল পিতার কারখানায় যেতেন। আকস্মিকভাবে একদিন সূঁচ নিয়ে খেলার করার সময় দুর্ভাগ্যবশত সেটা তার চোখে ঢুকে যায়। ওই সময় এন্টিবায়োটিকের প্রচলন না থাকায় ক্ষতিগ্রস্ত চোখ সংক্রমিত হয়। এটি অপর চোখকেও আক্রান্ত করে। ফলশ্রম্নতিতে মাত্র ৩ বছর বয়সে দুই চোখই পুরোপুরিভাবে অন্ধ হয়ে যায় তার।

তার বাবা-মা ও জ্যাকুস পলি নামক সেখানকার গির্জার একজন যাজক তাকে কুপভ্রের একটি বিদ্যালয়ে ভর্তি করে দেন। সেখানে তিনি তার অসামান্য মেধার পরিচয় দেন। কানে শুনে শুনেই তিনি অনেক কিছু শিখে ফেলতেন। কিন্তু অন্ধত্ব তার জন্য সেখানেও বাধা হয়ে দাঁড়ায়। কারণ, সেখানকার শিক্ষাপদ্ধতি ছিল সাধারণ শিশুদের জন্য। দশ বছর তিনি সেখানেই পড়াশোনা করেন। তাই ১৮১৯ সালে তাকে 'রয়্যাল ইনস্টিটিউট ফর বস্নাইন্ড ইয়ুথ' বিদ্যালয়ে ভর্তি করানো হয়। ব্রেইলের একাগ্রতা ও অধ্যবসায় তাকে 'রয়্যাল ইনস্টিটিউট ফর বস্নাইন্ড ইয়ুথ' বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করার সুযোগ এনে দেয়। এ ছাড়া সঙ্গীতে পারদর্শিতার কারণে পরবর্তী সময়ে তিনি চার্চের অর্গ্যান যন্ত্রবাদক হিসেবেও যোগদান করেন। ১৮২১ সালে যখন চার্লস বার্বিয়া নামে একজন অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন ওই প্রতিষ্ঠানে আসেন। চার্লস বার্বিয়া একটি পড়ার পদ্ধতি সম্পর্কে জানান- যেটা যুদ্ধে ব্যবহারের জন্য তৈরি হয়েছিল। ব্রেইলের প্রস্তাবিত নতুন পদ্ধতিতে তিনি ১২টি বিন্দু কমিয়ে তিন সারিতে দুইটি করে, মোট ৬টি বিন্দু ব্যবহার করে অক্ষর তৈরি করেন। ১৮২৪ সালে মাত্র ১৫ বছর বয়সে তিনি 'ব্রেল' পদ্ধতি অবিষ্কার করেন এবং শিগগিরই রয়্যাল ইনস্টিটিউটে তার প্রস্তাবিত পদ্ধতিতে শিক্ষাদান শুরু করেন। ১৮২৯ সালে তিনি এই চিহ্নের সাহায্যে তৈরি তার প্রথম বই ছাপান। তার নামানুসারে দৃষ্টিহীনদের শিক্ষার এই অভিনব পদ্ধতি 'ব্রেল' পদ্ধতি নামেই প্রচলিত ও সমাদৃত হয়। এ ছাড়াও সঙ্গীতের ওপর তিনি 'ব্রেল' পদ্ধতিতে কিছু 'মিউজিক্যাল নোটেশন' তৈরি করেন এবং পরবর্তী সময়ে এই বিষয়ে একটি বই লেখেন।

কুপভ্রে তার বাসভবনটিতে 'লুই ব্রেল' জাদুঘর প্রতিষ্ঠিত হয়। প্যারিস শহরের চত্বরে ব্রেইলের স্মরণে তৈরি একটি স্মৃতিস্তম্ভ রয়েছে- যা 'ব্রেল স্কয়ার' নামেই পরিচিত।

২০০৯ সালে তার দ্বি-শতবর্ষ জন্মদিন উদযাপন উপলক্ষে বিশ্বের সর্বত্র যথাযোগ্য মর্যাদার মাধ্যমে বিভিন্ন প্রদর্শনী ও সিম্পোজিয়ামের আয়োজন করা হয়। বেলজিয়াম এবং ইতালিতে দুই ইউরো, ভারতে দুই রূপী এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এক ডলার মূল্যমানের মুদ্রা প্রকাশ করা হয়।

৪০ বছর বয়সে যক্ষ্ণা রোগ ধরা পড়লে তিনি কর্মজীবন থেকে অবসর নেন। অবশেষে ৬ জানুয়ারি, ১৮৫২ সালে মাত্র ৪৩ বছর বয়সে প্যারিসে নিজ বাসভবনেই মৃতু্যবরণ করেন তিনি।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে