logo
শনিবার, ০৮ আগস্ট ২০২০, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ০৭ জুলাই ২০২০, ০০:০০  

হজে এবার কালো পাথরে চুমু খাওয়া যাবে না

হজে এবার কালো পাথরে চুমু খাওয়া যাবে না
করোনাভাইরাস মহামারির কারণে এবারের সীমিত পরিসরে হজের জন্য বিশেষ স্বাস্থ্যবিধি জারি করেছে সৌদি আরবের জাতীয় রোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ।

বিধি অনুযায়ী, হজ পালনকারীরা কাবা শরিফে ও কালো পাথরে চুমু খেতে বা স্পর্শ করতে পারবেন না এবং শয়তানের উদ্দেশে পাথর ছুড়ে মারার জন্য আগে থেকে জীবাণুমুক্ত প্যাকেটজাত পাথর ব্যবহার করতে হবে।

সৌদি গ্যাজেটের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, হজ পারমিট ছাড়া হজের জন্য পবিত্র স্থান মিনা, মুজদালিফা ও আরাফাতের ময়দানে প্রবেশ ২৮ জিলকদ (১৯ জুলাই) থেকে হজের পঞ্চম দিন ১২ জিলহজ পর্যন্ত নিষিদ্ধ থাকবে।

মহামারির কারণে এবার কোনো বিদেশিকে হজে যাওয়ার সুযোগ দিচ্ছে না সৌদি আরব। যারা আগে থেকে সেখানে অবস্থান করছেন, শুধু তারাই হজ করতে পারবেন।

হজ চলাকালে কারও মধ্যে করোনাভাইরাসের উপসর্গ দেখা গেলে তার ও সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের পরিস্থিতি বিবেচনা করে চিকিৎসকের পর্যালোচনার পরই কেবল হজ শেষ করার অনুমতি দেওয়া হবে। তাদের জন্য আলাদা

আবাসন, পরিবহণ ও ভ্রমণসূচির ব্যবস্থা করা হবে।

উচ্চ মাত্রার জ্বর, কফ, গলা ব্যথা, হঠাৎ ঘ্রাণ ও স্বাদ হারিয়ে ফেলার মতো উপসর্গ দেখা গেলে তাকে হজ করতে দেওয়া হবে না।

হজ পালনকারী ও হজে দায়িত্ব পালনকারীদের অবশ্যই সুরক্ষা মাস্ক পরতে হবে এবং তা ব্যবহার শেষে সুনির্দিষ্ট স্থানে ফেলতে হবে।

হজ পালনকারীরা যেখানেই সমবেত

\হহোন না কেন দুজনের মধ্যে অন্তত দেড় মিটার দূরত্ব রাখতে হবে।

খাবার পানি ও জমজমের পানি একবার ব্যবহারযোগ্য কন্টেইনারে সংগ্রহ করা যাবে। মক্কার গ্র্যান্ড মস্কো ও পবিত্র স্থানগুলোর রেফ্রিজারেটর সরিয়ে ফেলা হবে এবং সেগুলো ব্যবহার করা যাবে না।

হজ পালনকারীদের প্রত্যেককে আগে থেকে প্যাকেটজাত খাবার দেওয়া হবে।

আরাফা ও মুজদালিফায় হজ পালনকারীদের অবশ্যই নির্ধারিত স্থানে অবস্থান করতে হবে। সেক্ষেত্রে হজের বিধিবিধান কড়াকড়িভাবে মেনে চলতে হবে।

তাবু এলাকার ৫০ বর্গমিটারের মধ্যে ১০ জনের বেশি হজ পালনকারী থাকতে পারবে না।

আগে জামারাতে পাথর কুড়িয়ে শয়তানের উদ্দেশে ছুড়ে মারা হতো, এবার সেটা করা যাবে না। ব্যাগে জড়ানো আগে থেকে জীবাণুমুক্ত করা পাথর সবাইকে সরবরাহ করা হবে।

কাবা ও কালো পাথরের চারপাশে অবরোধ দেওয়া থাকবে, যাতে কেউ কাছে না যেতে পারে। সেখানে কড়া নজরদারি থাকবে।

তাওয়াফের জন্য কাবার চারপাশ এবং সাফা ও মারওয়া পাহাড়ের মধ্যে দৌড়ানোর স্থানকে প্রতি দল হজ পালনকারী ব্যবহারের আগে ও পরে জীবাণুমুক্ত করা হবে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে