logo
সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০, ১৬ চৈত্র ১৪২৬

  যাযাদি রিপোর্ট   ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০  

ডিজিটাল এলইডি বিলবোর্ডে সুসজ্জিত ঢাকা দক্ষিণ

ডিজিটাল এলইডি বিলবোর্ডে সুসজ্জিত ঢাকা দক্ষিণ
ডিজিটাল এলইডি বিলবোর্ড
ঝুঁকিপূর্ণ ও অ্যানালগ বিলবোর্ডের দিন শেষ হয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি)। সংস্থাটির মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন নির্বাচিত হওয়ার পর নগরীর সড়কে লোহা ও স্টিলের কাঠামোতে তৈরি এসব বিলবোর্ড অপসারণ করে ডিজিটাল এলইডি বিলবোর্ড স্থাপনের ঘোষণা দেন। সে অনুযায়ী কাজও করেছেন। এরই মধ্যে দক্ষিণ সিটিতে বিভিন্ন আকারের ৭৩০টি এলইডি বিলবোর্ড স্থাপিত হয়েছে। এতে করপোরেশনের রাজস্ব বৃদ্ধির পাশাপাশি সড়কের সৌন্দর্যও বেড়েছে। কমেছে ঝড়ে বিলবোর্ড উপড়ে বা খুঁটি ভেঙে প্রাণহানি বা সড়ক বন্ধ হয়ে যাওয়ার ঝুঁকি। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, লোহা বা স্টিলের কাঠামোতে বানানো প্রথাগত বিলবোর্ডে একটিমাত্র পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচারিত হয় এবং তা অপরিবর্তনীয়। তবে ডিজিটাল সুবিধা সংবলিত এলইডি বিলবোর্ডে সারাক্ষণই বিভিন্ন পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার করা যায়।

জানা গেছে, ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচন হয় ২০১৫ সালের এপ্রিলে। এরপর দক্ষিণ সিটির মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন ও উত্তর সিটির মেয়র আনিসুল হক ঢাকাকে অবৈধ ও ঝুঁকিপূর্ণ বিলবোর্ডমুক্ত করার ঘোষণা দেন। এই সেক্টরে যারা ব্যবসা করতেন তাদের বিলবোর্ডের মেয়াদ থাকে প্রতিবছরের ৩১ জুন পর্যন্ত। এরপর তাদের বিলবোর্ডগুলো সরিয়ে নেওয়ার জন্য সময় বেঁধে দেওয়া হয়। নির্ধারিত সময় অতিবাহিত হওয়ার পর শুরু হয় করপোরেশনের অভিযান। সেসময় পুরো নগরীকে অবৈধ বিলবোর্ড মুক্ত করা হয়। এরপর নতুন ডিজাইনে নগরীর ফুটপাত ও গুরুত্বপূর্ণ সড়ক মোড় এবং স্থানগুলোতে ডিজিটাল এলইডি বিলবোর্ড লাগানোর সিদ্ধান্ত নেয় দুই সিটি করপোরেশন। এর মধ্যে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনভুক্ত এলাকায় ৭৩০টি এলইডি বিলবোর্ড স্থাপন করা হয়।

দক্ষিণ সিটির কর্মকর্তারা বলছেন, প্রথাগত বিলবোর্ড নাগরিক নিরাপত্তার জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। এক সময় সড়কের ওপর লোহা ও স্টিলের অবকাঠামোর ওপর বিশাল আকারের বিলবোর্ড লাগানো হতো। তবে বড় ধরনের ঝড়ের কবলে পড়ে বেশকিছু বিলবোর্ড বিভিন্ন সময়ে ভেঙে পড়ে অতীতে হতাহতের ঘটনাও ঘটেছে। তাই মেয়র সাঈদ খোকন নির্বাচিত হওয়ার পর সড়ক থেকে এসব বিলবোর্ড অপসারণের নির্দেশ দেন। তখন আমরা সব বিলবোর্ড অপসারণ করি। বর্তমানে এলইডি বিলবোর্ডগুলো লাগানোর কারণে সড়ক অনেক নিরাপদ হয়েছে।

ডিএসসিসির রাজস্ব বিভাগ সূত্র জানায়, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনভুক্ত এলাকার প্রধান সড়কগুলোসহ বিভিন্ন সড়কে প্রায় ৭৩০টি এলইডি বিলবোর্ড স্থাপন করা হয়েছে।

\হএর মধ্যে পান্থপথ-ধানমন্ডি ৩২ নম্বর সড়কে ২৪টি; গ্রিন রোডে ২৮টি; বাংলামোটর-কাকরাইল সড়কে ৩০টি; কাকরাইল-শান্তিনগর সড়কে ৩০টি; মালিবাগ রেলগেট থেকে খিলগাঁও সড়কে ৩০টি; বিজয়নগর-পল্টন সড়কে ২৮টি; খিলগাঁও তালতলা-খিলগাঁও রেলগেট সড়কে ২৮টি; সিটি আই হসপিটাল সড়কে ৪৪টি ও শাহবাগ-মৎস্য ভবন সড়কে ৮টি বিলবোর্ড রয়েছে। এই বিলবোর্ডগুলোর প্রতিটির আয়তন দুই হাজার বর্গফুট।

এছাড়াও তিন হাজার ৬০০ বর্গফুট আয়তনের ৪৫০টি বিলবোর্ড স্থাপন করা হয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটিভুক্ত অপর সড়কগুলোতে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে সবচেয়ে বড় এলইডি বিলবোর্ডটি স্থাপিত হয়েছে শাহবাগ মোড়ে। এটির আয়তন ৭৮৭ দশমিক ৫ বর্গফুট।

এসব বিলবোর্ডে বিভিন্ন পণ্যের বিজ্ঞাপনের পাশাপাশি সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ, সচেতনতামূলক বিজ্ঞাপন, বিভিন্ন সেবা সংস্থার গণপ্রচারণামূলক বিজ্ঞপ্তি প্রচার করা হয়। এর মধ্যে শুধু বিভিন্ন কোম্পানির পণ্যের বিজ্ঞাপন থেকে রাজস্ব পায় ডিএসসিসি। রাতের শহরকে আলোকিত করতেও সহায়তা করছে বিলবোর্ডগুলো। তবে পথচারী ও গাড়িচালকদের যাতে দৃষ্টির কোনো ক্ষতি না হয় সেটা বিবেচনায় নিয়ে বিলবোর্ডের ভিডিওগুলো তৈরি করা হচ্ছে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে