logo
মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০, ১৭ চৈত্র ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ২৭ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০  

গবেষণা, তথ্য-উপাত্ত পর্যালোচনা করে ভেপিং নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত

প্রচলিত সিগারেটের তুলনায় ভেপিং অনেক কম ক্ষতিকর বলে মত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক প্রতিনিধির। ফিলিপাইন কংগ্রেসে শুনানিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি ডা. রান্তি ফায়োকুন এ মন্তব্য করেন। তার মতে, ভেপিং নিয়ে কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছার আগে এ সংক্রান্ত বিভিন্ন গবেষণা, তথ্য-উপাত্ত ভালোভাবে পর্যালোচনা করা উচিত।

ই-সিগারেট বা ভেপিং নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। যদিও বিভিন্ন গবেষণায় ভেপিং কম ঝুঁকিপূর্ণ বলে দেখা গেছে। এর মাঝেই সংস্থাটির প্রতিনিধি এই মত দিলেন। গত ডিসেম্বরে ফিলিপাইন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে (হাউস অব রিপ্রেজেনটেটিভ) ভেপিংওপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ নিয়ে এক শুনানিতে অংশ নেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এই প্রতিনিধি। সেখানে দেশটির কংগ্রেস সদস্যদের প্রশ্নের জবাব দেন রান্তি। শুনানিতে ভেপিং বিশেষজ্ঞরা উপস্থিত ছিলেন।

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য ও সামাজিক সুরক্ষা বিভাগের সাড়া জাগানো এক গবেষণায় দেখা গেছে, প্রচলিত সিগারেটের তুলনায় ভেপিং ৯৫ শতাংশ কম ক্ষতিকর। ওই গবেষণায় আরও বলা হয়েছে, ভেপিং ব্যবহারে ক্যানসারের ঝুঁকি প্রচলিত সিগারেটের তুলনায় ০.৫%। অর্থাৎ, ভেপিং থেকে ক্যানসারের ঝুঁকি নিতান্তই কম। এমন পরিস্থিতিতে আতঙ্কিত হয়ে ভেপিং ছেড়ে প্রচলিত সিগারেটে ফেরত না যেতেও ভোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে তারা। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল একাডেমি অব সায়েন্স, ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড মেডিসিন ২০১৮ সালের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, প্রচলিত সিগারেট ছেড়ে ভেপিং ব্যবহারে বাড়ালে তামাক এবং তামাকজাত পণ্যের ব্যবহারের ক্ষতি অনেক কমবে।

ফিলিপাইনের কংগ্রেসের ওই শুনানিতে নেশা নিয়ে কাজ করা মনস্তত্ত্ববিদ এবং আইনজীবী অ্যান্ড্রু ডি রোজা ভেপিং নিষিদ্ধের বিরুদ্ধে কথা বলেন। তিনি বলেন যে ই-সিগারট নিষিদ্ধ করার নেতিবাচক প্রভাবই বেশি হবে। এর ফলে কালোবাজারের ব্যবসায় ফুলে-ফেঁপে উঠবে এবং নিম্ন মানের পণ্য বাজারে থাকবে। এতে শিশুরা বেশি ঝুঁকিতে পড়বে। শুনানিতে ফিলিপাইনের প্রতিনিধি পরিষদের বাণিজ্য সংক্রান্ত কমিটির সভাপতি ওয়েসলি গাতচালিয়ান বলেন, ভেপিং এখন জাতীয় উদ্বেগের কারণ হয়ে উঠেছে। তাই প্রেসিডেন্ট রড্রিগো দুতের্তে তা আমদানি এবং জনপরিসরে ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন। এমন প্রেক্ষাপটে এই শুনানির আয়োজন।

রোজা অস্ট্রেলিয়ার মোনাস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কাউন্সেলিং (পরামর্শ) বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নিয়েছেন। তার মতে, ধূমপায়ীদের সিগারেটের নেশা ছাড়ার ক্ষেত্রে ভেপিং কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে। নতুন এই প্রযুক্তি এক প্রজন্মের মধ্যেই ধূমপান থেকে বেরিয়ে আসার সুযোগ সৃষ্টি করছে। তিনি বলেন, 'ভেপিং ব্যবহারের মাধ্যমে আমরা দ্রম্নত ধূমপানমুক্ত পৃথিবী পেতে পারি।' তার পর্যবেক্ষণ, নিষিদ্ধ করার পরিবর্তে সরকারগুলোর উচিত ভেপিং উদ্যোগকে সহযোগিতা করা যাতে ভবিষ্যতে আরও নিরাপদ প্রযুক্তি আনা যেতে পারে এবং এর মাধ্যমে মানুষকে ধূমপান থেকে দূর থাকতে উৎসাহিত করা যেতে পারে। রোজা বলেন, 'ভেপিং ব্যবহারকারীদের কাছে বেশ আকর্ষণীয়। তাই এই প্রযুক্তি দ্রম্নত বিকাশমান। ভেপিং নিষিদ্ধ নয়, বরং নিয়ন্ত্রণ করা উচিত। আমার মতে, যুক্তরাষ্ট্রে পদ্ধতি অনুসরণ করা উচিত।

বাংলাদেশেও বর্তমানে ভেপিং নীতিমালা নিয়ে অনেক আলোচনা হচ্ছে। অনেকেই মনে করেন এটিকে নিষিদ্ধ করা উচিত। তবে তথ্য উপাত্ত এবং বিশেষজ্ঞদের মতে ভেপিং জনস্বাস্থ্যের ওপর একটি ইতিবাচক প্রভাব রাখতে পারে। যুক্তরাজ্য, কানাডা এবং অন্যান্য উন্নত দেশের মতো আমাদেরও উচিত এই পণ্যটিকে সঠিক নীতিমালা দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করা এবং তামাক পণ্য ব্যবহার কমাতে একে ব্যবহার করা। সূত্র : ম্যানিলা স্ট্যান্ডার্ড
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে