রোববার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, ১৫ মাঘ ১৪২৯

উঁচু বরেন্দ্র এলাকায় গ্রীষ্মকালীন হাইব্রীড টমেটো উৎপাদন নিয়ে বারি’র মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত

গাজীপুর প্রতিনিধি
  ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩:০৩
আপডেট  : ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩:১৮

উঁচু বরেন্দ্র এলাকায় গ্রীষ্মকালীন হাইব্রীড টমেটোর উৎপাদন কর্মসূচীর উপর শনিবার এক মাঠ দিবস অনািষ্ঠত হয়েছে। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি)'র রাজশাহীর বরেন্দ্র কেন্দ্র সরেজমিন গবেষণা বিভাগ-এর আয়োজনে রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বসন্তপুর ইউনিয়নের উদপুর গ্রামে ওই মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বারি’র প্রটোকল অফিসার মো. আল-আমিন জানান, ‘বাংলাদেশে গ্রীষ্মকালীন টমেটোর অভিযোজন পরীক্ষা, উৎপাদন ও কমিউনিটি বেস্ড পাইলট প্রোডাকশন প্রোগ্রাম’ শীর্ষক কর্মসূচীর অর্থায়নে এ মাঠ দিবসের আয়োজন করা হয়।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের মাননীয় অতিরিক্ত সচিব (গবেষণা) ড. মহা. বশিরুল আলম প্রধান অতিথি হিসেবে ওই মাঠ দিবসের উদ্বোধন করেন। বারি’র সরেজমিন গবেষণা বিভাগ, গাজীপুরের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. মাজহারুল আনোয়ারের সভাপতিত্বে ওই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বারি’র পরিচালক (প্রশিক্ষণ ও যোগাযোগ উইং) ড. ফেরদৌসী ইসলাম, কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর রাজশাহী অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক শামসুল ওয়াদুদ, বারি’র চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত¡ গবেষণা কেন্দের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. মোখলেসুর রহমান, রাজশাহীর অঞ্চল-১, শ্যামপুর, সরেজমিন গবেষণা বিভাগের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. সাইয়েদুর রহমান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বারি’র রাজশাহীর বরেন্দ্র কেন্দ্রের সরেজমিন গবেষণা বিভাগের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. জগদীশ চন্দ্র বর্মন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন রাজশাহীর বরেন্দ্র কেন্দ্রের সরেজমিন গবেষণা বিভাগের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. সাখাওয়াত হোসেন। মাঠ দিবস অনুষ্ঠানে প্রায় শতাধিক কৃষক অংশগ্রহণ করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (গবেষণা) ড. মহা. বশিরুল আলম বলেন, আমরা গতানুগতিক কৃষিকে বাণিজ্যিক কৃষিতে রূপান্তর করতে চাই। কৃষি হবে লাভজনক পেশা। আর এ লক্ষ্যে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট এর বিজ্ঞানীরা নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। তারা নতুন নতুন জাত আবিষ্কার করছে যেগুলো শুধু এক মৌসুমে নয়, সারা বছরই চাষ করা যায়। আপনারা জানেন, অমৌসুমে ফসলের দাম বেশি পাওয়া যায়। বারি উদ্ভাবিত গ্রীষ্মকালীন হাইব্রিড টমেটোর জাত ৮ ও ১১ এরকমই দুটি জাত। এই দুটি জাত চাষ করে কৃষক অনেক বেশি লাভবান হচ্ছে। আশা করি আপনাদের মাধ্যমে এ দুটি জাতের উৎপাদন আরও বৃদ্ধি পাবে।

যাযাদি/ সোহেল

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে