সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১

নাগার্নো কারাবাখ মুক্ত করা আজারবাইজানের গর্বের বিষয় : এরদোগান

যাযাদি ডেস্ক
  ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১২:১৬
নাগার্নো কারাবাখ মুক্ত করা আজারবাইজানের গর্বের বিষয় : এরদোগান

তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বেশ জনপ্রিয়। বিশেষ করে প্রতিবেশী আজারবাইজানে তিনি জাতীয় বীর হিসেবে পরিচিত। সে দেশের মানুষ তাকে প্রচণ্ড ভালোবাসে। এমনকি আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট এরদোগানকে বড় ভাই এবং নেতা হিসেবে মানেন। যে কোনো প্রযোজনের তিনি তার পরামর্শ ও সহযোগিতা নেন। বিশেষ করে আর্মেনিয়ার সঙ্গে যুদ্ধে তিনি এরদোগানের পরামর্শ ও সহযোগিতার কথা সরাসরি স্বীকার করেন। প্রেসিডেন্ট বলেন এরদোগানের কারণে তিনি সহজে বিজয় লাভ করেন।

জানা যায়, বিতর্কিত নাগার্নো কারাবাখ অঞ্চলের ওপর আজারবাইজান পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করার কয়েক দিনের মাথায় দেশটি সফরে গেছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান।

তিনি গতকাল (সোমবার) আজারবাইজানের নাখিচেভান শহরে প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভের সাথে সাক্ষাৎ করেন।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, নাগার্নো কারাবাখে আজারবাইজান সেনাবাহিনীর অর্জন ‘গর্ব করার মতো বিষয়’ এবং এর ফলে ওই অঞ্চলের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পথ উন্মুক্ত হয়েছে। ‘এই সুযোগকে কোনোমতে হাতছাড়া করা উচিত হবে না’ বলে এরদোগান মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, আমরা আশা করব আর্মেনিয়া শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য হাত বাড়িয়ে দেবে এবং এ লক্ষ্যে আন্তরিক পদক্ষেপ নেবে।

চারদিকে ভূমিবেষ্টিত নাগার্নো কারাবাখ অঞ্চলটি আন্তর্জাতিকভাবে আজারবাইজানের ভূখণ্ড হিসেবে চিহ্নিত; যদিও সেখানকার বেশিরভাগ নাগরিক আর্মেনীয় বংশোদ্ভূত। তারা এই ভূখণ্ডের ওপর আজারবাইজানের সার্বভৌমত্ব মেনে নিতে রাজি না হওয়ায় গত তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে অঞ্চলটি নিয়ে ককেশাস অঞ্চলে উত্তেজনা বিরাজ করেছে।

গত সপ্তাহে নাগার্নো কারাবাখের ওপর পূর্ণ কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করে সেখানকার উত্তেজনা স্থায়ীভাবে প্রশমনের লক্ষ্যে আজারবাইজান সামরিক অভিযান চালায়। ২০ সেপ্টেম্বর শেষ হওয়া মাত্র ২৪ ঘণ্টার অভিযানে আর্মেনিয়ার সেনাবাহিনীকে নাস্তানাবুদ করে দেয় আজারবাইজান এবং আর্মেনীয় বিচ্ছিন্নতাবাদীদের অস্ত্র সমর্পণে বাধ্য করে।

রাশিয়ার মধ্যস্থতায় অনুষ্ঠিত যুদ্ধবিরতির শর্ত মেনে নাগার্নো কারাবাখের হাজার হাজার জাতিগত আর্মেনীয় এখন আর্মেনিয়ায় চলে যাচ্ছে। ইয়েরেভান বলেছে, এখন পর্যন্ত ৬ হাজার ৬৫০ শরণার্থী আর্মেনিয়ায় প্রবেশ করেছে। রাশিয়া বলেছে, নাগার্নো কারাবাখ থেকে জাতিগত আর্মেনীয়দের নিরাপদে সরে যাওয়ার কাজে রুশ শান্তিরক্ষীরা সাহায্য করছে।

তুর্কি প্রেসিডেন্টের সাথে সোমবারের সাক্ষাতে প্রেসিডেন্ট আলিয়েভ বলেন, আজারবাইজানের কারাবাখ অঞ্চলে মানবিক ত্রাণ পাঠাতে শুরু করেছে বাকু। ওই অঞ্চলের জাতিগত আর্মেনীয় নাগরিকদের অধিকার সংরক্ষণ করা হবে বলেও তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে