শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১

শান্তির আসায় হামাসের সাথে আলোচনায় বসছে কাতার ও মিসর

যাযাদি ডেস্ক
  ১৬ জুন ২০২৪, ১০:৫৬
ফাইল ছবি

অবরুদ্ধ গাজায় প্রতিদিন মারা যাচ্ছে মানুষ। রক্ত গঙ্গায় ইতোমধ্যে ভেসে পুরো গাজা। আজ সেখানে পালিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। এমন দিনেও নেই কোনো আনন্দ। প্রতিটি ঘরে ঘরে শোকরে মাতম চলছে। এমন কোনো ঘর নেই যে ঘরে সদস্যরা দখলদার ইসরাইয়ের হামলায় নিহত হয়নি।

যুদ্ধবিরতির একটু পথ বের করার লক্ষ্যে কাতারি ও মিসরীয় মধ্যস্ততাকারীরা শিগগিরই ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের সাথে আলোচনায় বসবে বলে জানিয়েছেন মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান।

সুইজারল্যান্ডে ইউক্রেন শান্তি শীর্ষ সম্মেলনের ফাঁকে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে সুলিভান বলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের দেয়া যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবটি এগিয়ে নেয়ার উপায় বের করার জন্য এই আলোচনা হবে।

সুলিভান বলেন, তিনি ইতোমধ্যেই এক মধ্যস্ততাকার কাতারের প্রধানমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আবদুলরহমান আল সানির সাথে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করেছেন। উল্লেখ্য, ইউক্রেন সম্মেলন উপলক্ষে উভয়েই এখন সুইজারল্যান্ড রয়েছেন।

বাইডেন বৃহস্পতিবার বলেছেন, তিনি আশা করছেন না যে নিকট ভবিষ্যতে যুদ্ধবিরতি এবং পণবন্দী মুক্তির চুক্তি হতে পারে। তিনি বলেন, ইসরাইলের যুক্তরাষ্ট্র-সমর্থিত প্রস্তাবটির ব্যাপারে হামাসের উচিত হবে তাদের অবস্থান পরিবর্তন করা।

তবে হামাস জোর দিয়ে চলছে, যেকোনো চুক্তিতে অবশ্যই যুদ্ধ স্থায়ীভাবে বন্ধ করতে হবে, ইসরাইলি সৈন্যদের গাজা থেকে পুরোপুরি প্রত্যাহার করতে হবে। ইসরাইল তা প্রত্যাখ্যান করে আসছে।

সুলিভান বলেন, মার্কিন কর্মকর্তারা হামাসের প্রতিক্রিয়াকে গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে।

তিনি বলেন, আমরা মনে করি, কিছু পরিবর্তন অপ্রত্যাশিত হবে না এবং তা ব্যবস্থা করা যাবে। এগুলোর কিছু কিছু প্রেসিডেন্ট বাইডেনের এবং জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদ, উভয় প্রস্তাবের সাথে সামঞ্জস্যহীন। আমাদেরকে ওই বাস্তবতার আলোকে চুক্তি করতে হবে।

সুলিভান বলেন, মার্কিন কর্মকর্তা মনে করেন যে একটি চুক্তির সম্ভাবনা এখনো আছে। হামাসের সাথে কথা বলে কাতার ও মিসর কোনো একটা পথ বের করতে পারবে।

তিনি বলেন, আমরা ইসরাইলিদের সাথেও কথা বলছি।

সূত্র : টাইমস অব ইসরাইল

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে