শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১

ফ্রান্সে ডানপন্থীদের পরাজয়, কিন্তু এরপর কী হতে পারে?

যাযাদি ডেস্ক
  ০৮ জুলাই ২০২৪, ১৪:২৩
ছবি-সংগৃহিত

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের নির্বাচনে বড় জয় পেয়েছিল ডানপন্থীরা। এমনকি ফ্রান্সের পার্লামেন্ট নির্বাচনের ক্ষেত্রেও প্রথম দফায় এগিয়ে ছিল তারা। কিন্তু রাষ্ট্র ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য যে নির্বাচনে বিজয় নিশ্চিত করাটা সবচেয়ে বেশি জরুরি ছিল, সেখানেই পিছিয়ে পড়লো কট্টর ডানপন্থীরা। নিউ পপুলার ফ্রন্ট (এনএফপি ), একটি বাম- পরিবেশবাদী জোট ফ্রান্সের নির্বাচনে ৫৭৭ আসনের বিধানসভায় ১৮২ জন সাংসদ সহ বিজয়ী হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে। প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রন গত ৯ জুন আগাম নির্বাচন ঘোষণা করার পর সোশ্যালিস্ট (সমাজতান্ত্রিক), পরিবেশবাদী, কমিউনিস্ট ও কট্টর বামপন্থী দল ফ্রান্স আনবোয়েড পার্টি (এলএফআই) মিলে নতুন যে জোটটি গড়ে তোলেন, সেটিই 'নিউ পপুলার ফ্রন্ট' নামে পরিচিতি পায়। বুথফেরত জরিপের তথ্যে বলা হচ্ছে, ফ্রান্সের পার্লামেন্টের ৫৭৭টি আসনের বামপন্থীদের জোট নিউ পপুলার ফ্রন্ট পেয়েছে ১৮২টি। এরপর ১৬৮টি আসন পেয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে মধ্যপন্থী জোট অনসেম্বল অ্যালায়েন্স। কট্টর-ডানপন্থী মেরি লা পেনের ন্যাশনাল ৱ্যালি (আরএন) এবং এর সহযোগীরা, যারা গত সপ্তাহে সংখ্যাগরিষ্ঠতার দিকে ছিল, তাদের হাতে আসন সংখ্যা ১৪৩। ডানপন্থীদের ঠেকাতে ফ্রান্সের মধ্যপন্থী ও বামপন্থী দলগুলোকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রন। এরপর আপসের ভিত্তিতে বাম ও মধ্যপন্থী দলগুলোর প্রার্থীদের অনেকেই একে অন্যকে একাধিক আসন ছেড়ে দেন। আর এর ফলেই ডানপন্থীরা পিছিয়ে পড়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ম্যাক্রন ২০২৭ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত পদত্যাগ না করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, এর পরে কী ঘটতে পারে? এখানে বিকল্পগুলি নিয়ে আলোচনা করা হলো।

এনএফপি কি সরকার গঠনের আশা করতে পারে?

সমস্ত প্রত্যাশার বিপরীতে, সমাজতান্ত্রিক দল (পিএস), পরিবেশবাদী এবং কমিউনিস্টদের এনএফপি জোট পার্লামেন্টে সবচেয়ে বড় শক্তি হতে পারে , তবে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য প্রয়োজনীয় ২৮৯টি আসন থেকে তারা এখনও অনেক দূরে।

মেলেঞ্চন, একজন প্রবীণ নেতা রবিবার ম্যাক্রনকে জোট থেকে একজন প্রধানমন্ত্রী নিয়োগের এবং এনএফপি-এর সম্পূর্ণ কর্মসূচি বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন। তার জোট সহ অন্যরা বলেছেন যে সংখ্যাগরিষ্ঠতা ছাড়াই বামপন্থী ব্লক আলোচনায় বসতে বাধ্য হবে। ফ্রান্সের সংবিধানে প্রেসিডেন্ট যাকে চান তাকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বেছে নিতে পারবেন। কার্যত, যেহেতু সংসদ সরকারকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করতে পারে, তাই রাষ্ট্রপ্রধান সর্বদাই এমন কাউকে বেছে নেন যিনি পার্লামেন্টের কাছে গ্রহণযোগ্য হবেন।

একটি শাসক জোট গঠন করা যাবে কি ?

অন্যান্য ইউরোপীয় দেশগুলির মতো ফ্রান্সের মানুষের কাছে জোট সরকারের সেরকম অভিজ্ঞতা নেই, তবে বাম এবং কেন্দ্রের বেশ কয়েকটি পরিসংখ্যান পূর্বে পরামর্শ দিয়েছে যে, একটি জোটভিত্তিক সংসদ গঠন হতে পারে। সাবেক প্রধানমন্ত্রী এডুয়ার্ড ফিলিপ, দীর্ঘদিনের ম্যাক্রনের মিত্র ফ্রাঙ্কোইস বায়রো এবং পরিবেশবাদী নেতা মেরিন টোন্ডেলিয়ার তাদের মধ্যে ছিলেন যারা গত সপ্তাহে বলেছিলেন, মধ্যপন্থী বাম থেকে কট্টর ডানপন্থী আরএন-বিরোধী জোট ঐক্যবদ্ধ হতে পারে। বায়রু উল্লেখ করেছেন যে, "নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার দিন শেষ’ এবং এখন প্রত্যেককে একটি টেবিলে বসতে এবং তাদের দায়িত্ব গ্রহণ করার উপর গোটা বিষয়টি নির্ভর করবে।

পিএস নেতা, অলিভিয়ার ফাউর বলেছেন, ভোট অবশ্যই একটি প্রকৃত পুনর্গঠনের পথ উন্মুক্ত করবে। এলএফআই -এর আপস করার ইচ্ছার উপর অনেক কিছু নির্ভর করবে । কট্টর-বাম দলটি দীর্ঘদিন ধরে বলেছে যে ''তারা কেবলমাত্র নিজেদের নীতিগুলি বাস্তবায়নের জন্য সরকারে প্রবেশ করবে "।ইতিমধ্যে ম্যাক্রনের কাছের মিত্ররা বলেছেন, তারা এলএফআইয়ের সাথে জোটে প্রবেশ করবেন না। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে, মূলধারার জোট যদিও নীতিগতভাবে সম্ভব তবে ট্যাক্স, পেনশন এবং সবুজ বিনিয়োগের মতো ইস্যুতে দলগুলির ভিন্ন অবস্থানের কারণে সেই জোট তৈরি করা কঠিন হবে। এলএফআই এবং আরএন উভয়ের কাছে এই জোট ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে।

অ্যাডহক জোট, টেকনোক্র্যাটিক সরকার গঠন কি সম্ভব ?

একটি আনুষ্ঠানিক জোট সরকারকে একত্রিত করার চেষ্টার পরিবর্তে, বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী, গ্যাব্রিয়েল আটাল, গত সপ্তাহে পরামর্শ দিয়েছিলেন যে মূলধারার দলগুলি পৃথক পৃথক আইনের মাধ্যমে ভোট দেওয়ার জন্য বিভিন্ন অ্যাডহক জোট গঠন করতে পারে। ম্যাক্রন ২০২২ সালে তার সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারানোর পর থেকে এই কৌশলটি চেষ্টা করেছেন কিন্তু সীমিত সাফল্যের সাথে, সংসদীয় ভোট ছাড়াই আইন প্রণয়ন করার জন্য অনুচ্ছেদ ৪৯.৩ এর মতো বিশেষ সাংবিধানিক ক্ষমতার আশ্রয় নিতে হয়েছে। প্রেসিডেন্ট অর্থনীতিবিদ, সিনিয়র বেসামরিক কর্মচারী, শিক্ষাবিদ, কূটনীতিক এবং ব্যবসা বা ট্রেড ইউনিয়ন নেতাদের মতো বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে একটি টেকনোক্র্যাটিক সরকার নিয়োগের কথাও বিবেচনা করতে পারেন। ফ্রান্সের এ ধরনের সরকারের কোনো অভিজ্ঞতা নেই। লিল ইউনিভার্সিটির সংবিধান বিশেষজ্ঞ জঁ-ফিলিপ ডেরোসিয়ার বলেন, 'এটি এমন একটি সরকার হবে যে সরকার স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারবে - যতক্ষণ পর্যন্ত এটি সংসদের সমর্থন পাবে। ''

এসবের সম্ভাব্য পরিণতি কি?

অনেকেই অনুমান করছেন ফ্রান্স রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা এবং অস্থিতিশীলতা দিকে যাচ্ছে, সংসদীয় অচলাবস্থা তৈরি হতে পারে । অনেকেই সতর্ক করেছেন যে কট্টর ডানপন্থী আরএন এবং মেলেঞ্চলের এলএফআই তাদের ক্ষমতা থেকে বঞ্চিত করার জন্য রাজনৈতিক চক্রান্তে লিপ্ত হয়ে ২০২৭ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে কঠিন করে তুলতে পারেন। ম্যাক্রন এখনও পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে পদত্যাগ করার কথা অস্বীকার করেছেন- তবে অচলাবস্থা বিরাজ করলে এটি আরও বেশি সম্ভব হয়ে উঠতে পারে। ইউরেশিয়া গ্রুপ কনসালটেন্সির মুজতবা রহমান বলেছেন - ‘ফ্রান্স আজ চরম ডানপন্থীদের শাসন প্রত্যাখ্যান করেছে। এমনকি বামেরা প্রত্যাশার চেয়ে ভালো এবং ডানপন্থীরা দুর্বল পারফরম্যান্স করলেও ফলাফলগুলি অচলাবস্থার দিকে ইঙ্গিত করে। ’

সূত্র : দ্য গার্ডিয়ান

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে