মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯
walton1

সৈয়দপুর বিমানবন্দরের কাজ নোটিশেই ঝুলে রয়েছে

ম সয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি
  ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০০:০০
উত্তরের বাণিজ্যিক শহর হিসেবে পরিচিত নীলফামারীর সৈয়দপুরে ১৯৭৯ সালে ১৩৪.৩০ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত হয় সৈয়দপুর বিমানবন্দর। অভ্যন্তরীণ রুটে প্রতিদিন ১৬টি করে বিমান চলাচল করলেও নোটিশেই প্রায় চার বছর ধরে ঝুলে আছে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হিসেবে গড়ে তোলার কাজ। রানওয়ে সম্প্রসারণের জমি অধিগ্রহণে ভূমি মালিকদের ৪ ধারার নোটিশ জারি ও হাতে লেখা ফিল্ডবুক তৈরির পর কাজে আর কোনো অগ্রগতি নেই। ২০২০ সালের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ না পাওয়ায় শুরুই হয়নি এ প্রকল্পের কাজ। এদিকে ৪ ধারার নোটিশ পাওয়ার পর থেকে নানা সমস্যায় পড়েছেন এলাকার কয়েক হাজার বাসিন্দা। তারা বলছেন, নোটিশ পাওয়ার পর থেকে তারা প্রয়োজনে জমি কেনাবেচা করতে পারছেন না। সৈয়দপুর বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, এ বিমানবন্দরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন হয় ১৯৭৮ সালের ২৪ এপ্রিল। ১৩৬ দশমিক ৫৯ একর জায়গায় স্থাপিত এ বিমানবন্দরের উদ্বোধন হয় পরের বছরের ২১ জুলাই। প্রায় ৬ হাজার ফুট দীর্ঘ রানওয়ে রয়েছে এ বিমানবন্দরে। শুরুতে শুধু বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিমান ঢাকা-সৈয়দপুর-ঢাকা রুটে সপ্তাহে নির্দিষ্ট দিনে যাতায়াত করত। ২০০৭ সালে লোকসানের অজুহাতে এ পথে বিমান চলাচল বন্ধ হয়। ২০০৮ সালে বেসরকারি বিমান সংস্থার মধ্যে প্রথমে রয়েল বেঙ্গল ও পরে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ এবং পর্যায়ক্রমে ইউএস বাংলা, নভোএয়ার, রিজেন্ট এয়ারওয়েজের বিমান সৈয়দপুর-ঢাকা পথে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করে। এছাড়া ২০১৫ সালের ৯ এপ্রিল থেকে বাংলাদেশ বিমান প্রতিদিন একটি ফ্লাইট এ পথে পরিচালনা করছে। বর্তমানে এ বিমানবন্দর থেকে প্রতিদিন পাখা মেলছে ১৬টি বিমান। রংপুর বিভাগের আট জেলার যাত্রীদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে বিমানবন্দরটি। সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে সর্বোচ্চ ১৮০ কিলোমিটারের মধ্যে রয়েছে নেপাল ও ভুটান সীমান্ত। নিজেদের ছোট-ছোট বিমানবন্দরে অবতরণ-উড্ডয়ন ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় পাহাড়ি দেশ দুইটি সৈয়দপুর বিমানবন্দর ব্যবহারে আগ্রহী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৭ সালের দশম জাতীয় সংসদে সৈয়দপুর বিমানবন্দরকে দেশের চতুর্থ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হিসেবে উন্নীত করার ঘোষণা দেন। উপজেলা ভূমি কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর ২০১৯ সালের ৮ এপ্রিল বিমানবন্দরটিকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে উন্নীতকরণ প্রকল্প সীমানা চিহ্নিত ও জরিপ কাজ শুরু হয়। নীলফামারী জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখা (এলএ) একই বছর ১১ জুলাই ওই জরিপ কাজ করে। বর্তমানে ১৩৬ একর জমির সঙ্গে আরও ৯১২ দশমিক ৯০ একর জমি অধিগ্রহণের জন্য চিহ্নিত করা হয়। সৈয়দপুর বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক সুপব কুমার ঘোষ বলেন, টার্মিনাল উন্নীতকরণের কাজ চলছে। ইতোমধ্যে ৭০ ভাগ কাজ হয়েছে। নীলফামারীর জেলা প্রশাসক সংবাদকর্মীদের জানান, জমি অধিগ্রহণের প্রাথমিক কাজ শেষ। মন্ত্রণালয়ে এ সংক্রান্ত একটি চিঠিও পাঠানো হয়েছে। এটি একটি বড় প্রকল্প, তাই দেরি হচ্ছে। শিগগিরই প্রকল্পটির জন্য বরাদ্দকৃত অর্থ একনেকে অনুমোদন দেওয়া হবে।
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে