শনিবার, ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ২ মাঘ ১৪২৭

৫৫ বছরেও আধুনিকতার ছোঁয়া লাগেনি ঈশ্বরদী আবহাওয়া অফিসে

৫৫ বছরেও আধুনিকতার ছোঁয়া লাগেনি ঈশ্বরদী আবহাওয়া অফিসে
ঈশ্বরদী আবহাওয়া অফিস

উত্তরাঞ্চলের প্রাচীন জনপদ পাবনার মানুষের প্রাকৃতিক দুর্যোগের আগাম খবর জানাতে ১৯৬৫ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয় ঈশ্বরদী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার। কিন্তু ৫৫ বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো লাগেনি আধুনিকতার ছোঁয়া। ফলে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে এই আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার।

প্রতিষ্ঠাকালে একজন প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তাসহ ২২ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর পদ মঞ্জুর করা হয়। কিন্তু মাত্র ১০ জন লোকবল এবং পুরনো ও প্রায় অকার্যকর যন্ত্রপাতি নিয়ে দায়সারাভাবে চলছে এই গুরুত্বপুর্ণ কেন্দ্রটি। দুবছর আগে একটি অটোমেটিক আবহাওয়া স্টেশন স্থাপন করা হলেও তা একদিনের জন্যও চালু করা যায়নি। এ অবস্থায় এখান থেকে আপডেট ফোরকাস্ট করা সম্ভব হচ্ছে না।

ঐতিহ্যবাহী হার্ডিঞ্জ ব্রিজ, লালনশাহ সেতু, দেশের সর্ববৃহৎ রূপপুর পারমাণবিক বিদু্যৎকেন্দ্রসহ দেশের উলেস্নখযোগ্য অফিস ও স্থাপনাগুলোর জন্যই জেলার অন্যতম উপজেলা হিসেবে খ্যাত এই ঈশ্বরদী। দেশ এখন মহাকাশ স্যাটেলাইট চ্যানেলের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ায় এই আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রটি যুগোপযোগী ও আধুনিককরণের জোর দাবি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদসহ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক নেতৃবৃন্দের।

শীত কিংবা বর্ষার আগাম খবর জানতেই এই আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের কাজ। অথচ নেই আধুনিক যন্ত্রপাতি, নেই প্রয়োজনীয় দক্ষ জনশক্তি।

আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা যায়, ভৌগোলিক অবস্থান এবং গুরুত্বপুর্ণ স্থাপনা বিবেচনায় ১৯৬৫ সালে স্থাপন করা হয় ঈশ্বরদী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারটি। এখানে রূপপুর পারমাণবিক বিদু্যৎ প্রকল্প, দেশের বৃহত্তম রেলওয়ে জংশন, পশ্চিম রেলের বিভাগীয় দপ্তর, বিমানবন্দর, ইপিজেডসহ অনেক গুরুত্বপুর্ণ স্থাপনা পাবনার ঈশ্বরদীতে অবস্থিত।

ঈশ্বরদী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের টেলিপ্রিন্টার সুপারভাইজার আব্দুর রাজ্জাক বলেন, 'এখানে একটি আধুনিক যন্ত্র বসানো হয়েছে। এটির নাম এওয়াজ, যা অটোমেটিক ওয়েদার স্টেশন হিসেবে পরিচিত। দুই বছর আগে এই অটোমেটিক মেশিনটি স্থাপন করা হলেও শুরু থেকেই বিকল হয়ে আছে। ফলে আপডেট কোনো খবর আমরা দিতে পারছি না। তিনি বলেন, এই কেন্দ্রটি স্থাপনের পর যে মেশিনগুলো বসানো হয়েছিল সেগুলোও অকেজো হয়ে গেছে। বিল্ডিংগুলোর মেয়াদও উত্তীর্ণ হয়েছে। যেসব জনবল চাকরি শেষ করেছেন, সেই পদে আর নতুন করে কোনো লোক দেওয়া হয়নি। ফলে জরাজীর্ণ বিল্ডিং, লোকবল সংকট আর অকেজো যন্ত্রপাতি নিয়ে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে প্রতিষ্ঠানটি।'

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে