বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

দেশ এখন কিছুটা হলেও দোজখের সমতুল্য জি এম কাদের

ম যাযাদি ডেস্ক
  ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০০:০০
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জি এম) কাদের এমপি বলেছেন, 'যারা পৃথিবী থেকে চলে গেছেন তারা এদেশে থাকার চেয়ে ভালো অবস্থায় আছেন। কেননা এ দেশটা কিছুটা হলেও দোজখের সমতুল্য হয়ে গেছে। মানুষ খেতে পারে না। চলতে পারে না। প্রতিদিন জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে। নিত্যপণ্যের জিনিসপত্রের টিসিবির পণ্য নিতে দুই আড়াই মাইল লাইন হচ্ছে। দুই তিন ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকেও মানুষ টিসিবির পণ্য পাচ্ছে না। কী সিস্টেম সরকার চালু করেছে আমি জানি না। দেশের সাধারণ মানুষ এ সিস্টেমে উপকৃত হচ্ছে না। তাই মানুষ এদেশে থাকা আর দোজখে থাকার মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই।' শনিবার দুপুরে জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব জিয়া আহমেদ বাবলু'র প্রথম মৃতু্যবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণ সভায় প্রধান হ পৃষ্ঠা ১৫ কলাম ৬ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। নগরীর রীমা কমিউনিটি সেন্টারে জাতীয় পার্টি চট্টগ্রাম উত্তর জেলা শাখা এ স্মরণ সভার আয়োজন করে। এ উপলক্ষে আয়োজন করা হয় মেজবানের। জি এম কাদের আরও বলেন, 'দেশে সৎ, নিষ্ঠাবান ও যারা মেধাবী সেসব মানুষ বিভিন্নভাবে ঘৃণিত হচ্ছে, লাঞ্ছিত হচ্ছে। তারা সমাজে টিকে থাকতে পারছেন না। যারা বিভিন্নভাবে দুর্নীতি করে, অনিয়ম করে মেধাশূন্য, যারা কোনো দেশপ্রেমিক নয়, সে রকম মানুষের উত্থান ঘটছে। তারা সব জায়গায় সম্মানিত হচ্ছে। তারা মাথা উঁচু করে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এ কারণে দেশে সুশাসনের অভাব হচ্ছে। দুষ্টের দমন শিষ্টের পালন করা হচ্ছে না। বরং দুষ্টের পালন শিষ্টের দমন করা হচ্ছে।' সরকারের বিরোধিতা করা প্রত্যেকটি নাগরিকের অধিকার ও দায়িত্ব মন্তব্য করে জিএম কাদের বলেন, দেশের মালিক সাধারণ জনগণ। সরকারকে নির্বাচিত করার অধিকার যেমন জনগণের আছে, তেমনি সরকারের বিরুদ্ধে সমালোচনা করার অধিকারও আছে। সরকারকে পরিবর্তন করারও অধিকার থাকতে হবে। যারা সরকারের বিরুদ্ধে সমালোচনা করে এই সমালোচনাকে সুচতুরভাবে সরকার-রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র হিসেবে আখ্যায়িত করা হচ্ছে। মানুষকে বিভিন্নভাবে নাজেহাল করা হচ্ছে। মানুষকে কথা বলার অধিকার দিতে হবে। দেশের মালিক হিসেবে দেশের মানুষের যে কোনো পরামর্শ দেওয়ার অধিকার আছে।' তিনি একটি পরিসংখ্যান তুলে ধরে বলেন, দেশের ৫ শতাংশ মানুষ শূন্য দশমিক ২৩ শতাংশ সম্পদের মালিক। আর ৫ শতাংশ মানুষ ২৮ শতাংশ সম্পদের মালিক। এই বৈষম্যের জন্য বাংলাদেশ সৃষ্টি হয়নি। জবাবদিহিতাবিহীন একটি সরকার চলছে। জবাবদিহিতা না থাকার কারণে এসব ঘটনা ঘটছে। সাধারণ মানুষকে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। দুর্নীতির কোনো শেষ নেই। যার যা দায়িত্ব তা তারা পালন করছে না।' সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন জাতীয় পার্টির কোচেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এমপি, প্রধান বক্তা ছিলেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু এমপি। চট্টগ্রাম-উত্তর জেলা শাখার সভাপতি মোহাম্মদ নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির অতিরিক্ত মহাসচিব অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভুঁইয়া, চট্টগ্রাম মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি সোলায়মান আলম শেঠ, প্রয়াত জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলুর স্ত্রী জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা ডক্টর মেহেজেবুন্নেসা রহমান টুম্পা, যুগ্ম মহাসচিব আশিক আহমেদ ও জাতীয় পার্টি চট্টগ্রাম উত্তর জেলার সদস্য সচিব সফিক উল আলম চৌধুরী প্রমুখ।
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে