রোববার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১

মার্চের ২৪ দিনে রেমিট্যান্স এসেছে ১৬০ কোটি ডলার

অর্থ-বাণিজ্য ডেস্ক
  ২৮ মার্চ ২০২৩, ০০:০০

আসন্ন ঈদ উপলক্ষে প্রবাসীরা দেশে পরিবার-পরিজনের কাছে টাকা পাঠাচ্ছেন। এরই ধারাবাহিকতায় মার্চের শেষদিকে প্রবাসী আয়ের প্রবাহ বাড়ছে। মার্চের ২৪ দিনে বৈধ পথে দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ১৫৯ কোটি ৭৫ লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার। এ ধারা অব্যাহত থাকলে রেমিট্যান্স আহরণে নতুন রেকর্ড সৃষ্টির সম্ভাবনা আছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। সোমবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, চলতি মার্চের প্রথম ২৪ দিনে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ১৯ কোটি ৫৬ লাখ ৭০ হাজার ডলার, বিশেষায়িত একটি ব্যাংকের মাধ্যমে ৩ কোটি ৫৪ লাখ ৭০ হাজার মার্কিন ডলার, বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ১৩৬ কোটি ১৫ লাখ ৪০ হাজার ডলার এবং বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ৪৮ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স এসেছে।

গত ফেব্রম্নয়ারিতে দেশে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৫৬ কোটি ১২ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার। চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই থেকে ফেব্রম্নয়ারি পর্যন্ত প্রথম ৮ মাসে মোট রেমিট্যান্স এসেছে ১ হাজার ৪০১ কোটি ৩৩ লাখ মার্কিন ডলার। আগের অর্থবছরের একই সময়ে রেমিট্যান্স এসেছিল ১ হাজার ৩৪৩ কেটি ৮৫ লাখ মার্কিন ডলার। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিগত দিনে দেশ থেকে বেশ জনশক্তি রপ্তানি হয়েছে। এসব প্রবাসী প্রতি বছরের মতো এবারও রোজা ও ঈদকে সামনে রেখে প্রিয়জনদের কাছে বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠাচ্ছেন। এ ধারা অব্যাহত থাকলে আগামীতে রেমিট্যান্সে নতুন রেকর্ড সৃষ্টি হবে।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন সোমবার সংস্থাটির এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, দীর্ঘদিন প্রবাসী আয়ে নেতিবাচক ধারা ছিল; এখন ইতিবাচক দেখা যাচ্ছে। তবে যে হারে জনশক্তি রপ্তানি হচ্ছে, সেই হারে রেমিট্যান্স দেশে আসছে না। কেন আসছে না, এ বিষয়টি দেখা দরকার। তিনি বলেন, এখন আড়াই শতাংশ প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে। প্রণোদনায় খুব একটা সুফল আসেনি। তাই এই প্রণোদনা কতদিন থাকবে, নাকি তুলে নেওয়া হবে, এটা এখন ভাবতে হবে।

রেমিট্যান্স বাড়াতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক নানা উদ্যোগ নিয়েছে। বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠাতে বিভিন্নভাবে উৎসাহ দিয়ে যাচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। গত বছর ১৬ নভেম্বর বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) থেকে প্রবাসীদের বলা হয়, বৈধ পথে বা ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে দেশে রেমিট্যান্স প্রেরণ করুন, প্রিয়জনকে ঝুঁকিমুক্ত ও নিরাপদ রাখুন।

বাংলাদেশ ব্যাংক জানায়, প্রবাসী বাংলাদেশিদের কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা ব্যাংকিং চ্যানেলের বাইরে (হুন্ডি বা অন্য কোনো অবৈধ পথে) প্রেরণ করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ। এতে দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। প্রবাসীদের উদ্দেশে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলে, 'আপনাদের অর্জিত মূল্যবান বৈদেশিক মুদ্রা হুন্ডি বা অন্য কোনো অবৈধ পথে না পাঠিয়ে বৈধ পথে বা ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে দেশে প্রেরণ করুন, দেশ গড়ায় মূল্যবান অবদান রাখুন এবং আপনার প্রিয়জনকে ঝুঁকিমুক্ত ও নিরাপদ রাখুন।' অবৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠানোর সঙ্গে জড়িত সংশ্লিষ্ট সবার বিরুদ্ধে প্রমাণ সাপেক্ষে প্রচলিত আইনে যথাযথ ব্যবস্থা নেবে বিএফআইইউ।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে