বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ভ্রমণপিপাসুদের ভিড়

জাবেদ আবেদীন শাহীন, কক্সবাজার
  ১৬ মে ২০২৩, ১২:৫৫
কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ভ্রমণপিপাসুদের ভিড়

ঘূর্ণিঝড় মোখার প্রভাব কেটে যাওয়ার পরদিন সোমবার আবারও কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ফিরছেন ভ্রমণপিপাসুরা। সকাল থেকে ছিল রৌদ্রজ্জ্বল সোনালি দিন। সেই সঙ্গে বেড়েছে তাপমাত্রাও।

সোমবার সকাল থেকে সৈকতের লাবণী পয়েন্ট, সুগন্ধা পয়েন্ট, শৈবাল পয়েন্ট, কলাতলি পয়েন্ট, ইনানী পয়েন্ট এবং পাটুয়ারটেক পয়েন্টে পর্যটকদের উপস্থিতি দেখা যায়। কেউ একা নামছেন সৈকতে আবার কেউ প্রিয়জনকে নিয়ে এসেছেন, অনেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে গোসল সেরেছেন, কেউ আবার ঢেউয়ে আছড়ে পড়ায় সন্তানকে কোলে তুলে নিচ্ছেন, কেউ আবার ভিজে বালি নিয়ে খেলায় মেতেছেন। অনেকেই ঘোড়ায় চড়ে ঘুরছেন, অনেকে বাইক চালিয়ে আনন্দে মেতে থাকতে দেখা গেছে। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ঘূর্ণিঝড়ের সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে সৈকতের সারি সারি ছাতাসহ বসার আসনগুলো সরিয়ে পুনরায় সাজিয়েছেন।

কক্সবাজারের ডলফিন মোড় ও কলাতলি সৈকত আগের মতোই কর্মচঞ্চল হয়েছে। খুলেছে ডলফিন মোড় ও এর আশপাশের সব দোকানপাট। বিভিন্ন গন্তব্যে যাওয়া-আসার গাড়িগুলো নিয়মিত এই মোড়ে যাত্রাবিরতি করছে।

সৈকতের বিচকর্মীদের ইনচার্জ মাহাবুব বলেন, সকাল থেকে রৌদ্রজ্জ্বল থাকায় প্রচুর পর্যটক এসেছেন সৈকতে। অনেকে সমুদ্রের পানিতে নেমে পড়ছেন। দূরে না যেতে বিচকর্মীরা মাইকিং করলেও কোনো পাত্তাই দেন না তারা। সচেতন করতে গেলে রেগে যাচ্ছেন তারা। এরপরও দায়িত্বের প্রতি আমরা সজাগ।

ঢাকার পর্যটক দম্পত্তি জুবায়ের আলম ও ফারহানা আলম বলেন, ঘূর্ণিঝড় মোখার আচরণ দেখতে কক্সবাজারে এসেছি তিন দিন হচ্ছে। রোববার দুপুর থেকে হোটেলে ছিলাম। কোথাও বের হয়নি। তবে আজ খুব ভোরে নাস্তা সেরে সকালে হাঁটতে হাঁটতে সাগর পাড়ে এসে গেছি। পরিবেশটা দারুণ লাগছে, সাগরের রূপ দেখলাম দুই দিনে দুই রূপ।

সৈকতে ফটোগ্রাফার আবদুল মাবুদ বলেন, ঘূর্ণিঝড়ের জন্য কয়েকদিন সমুদ্রসৈকতে কাজ করতে পারিনি। তবে পরিষ্কার আকাশ দেখে সমুদ্রসৈকতে এসেছি। প্রতিদিন হাজারের বেশি ছবি তুললেও আজ বেলা ১১টা পর্যন্ত মোটামুটি কিছু ছবি তুলতে পেরেছি। তবে আবহাওয়া ভালো থাকলে কাল থেকে পর্যটক বাড়বে। যত বেশি পর্যটক আসবে, তত বেশি আমাদের লাভ ব্যবসায়।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে