সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০
walton

সন্তান ও মায়ের লাশ নিয়ে দুই পরিবারের টানাটানি, শেষমেশ ২ জন দুই বাড়ি 

কুতুবদিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি
  ২৭ মার্চ ২০২৩, ১২:১২

স্বামী দাবী আত্মহত্যা, পিতা পরিকল্পিত হত্যা বলছি কক্সবাজারের কুতুবদিয়া উপজেলার উত্তর ধূরুং ইউনিয়নের ছাঁদের ঘোনা গ্রামের বাসিন্দা জন্নাতুল ফেরদৌস (২২) ও দশ মাস বয়সী শিশু মেহের মনি গত শুক্রবার সোলার ব্যাটারির এসিড পানি পান করে মৃত্যু হওয়া সন্তান ও মায়ের কথা। ময়নাতদন্ত শেষে কার বাড়িতে লাশ দাফন হবে তা নিয়ে স্বামী ও বাবার বাড়ির লোকজনের বাগবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে দুই পরিবারের মধ্যে লাশ নিয়ে টানাটানির ঘটনা ঘটেছে।

গতকাল রোববার এ খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়। পুলিশ ও জনপ্রতিনিধিদের মধ্যস্থতায় শেষমেশ ২ জন দুই বাড়িতে দাফনের সিদ্ধান্ত হয়। সন্তান মেহের মনি তার পিতা মানিকের কাছে ও জন্নাতুল ফেরদৌস তাঁর বাপের বাড়িতে। ওইদিন রাত ৯টায় লাশ দাফন করা হয়।

জন্নাতুল ফেরদৌস ওই এলাকার আবু তাহেরের মেয়ে। তিনি অভিযোগ করে জানান ,বিয়ের পর থেকে মেয়েকে যৌতুকের জন্য মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন চালানো হতো। মাদকাসক্ত ছিলেন স্বামী কিন্তু ঘরে ১টি সন্তান থাকায় মেয়েকে সব সহ্য করে সংসার করতে বলা হয়েছে। সর্বশেষ গত শুক্রবার মারধর ও মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানান পিতা আবু তাহের।

কুতুবদিয়া থানার ওসি মিজানুর রহমান বলেন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও আমাদের মধ্যস্থতায় সন্তান মেহের মনিকে তাঁর পিতা মানিকের বাড়িতে ও জন্নাতুল ফেরদৌসকে তার বাপের বাড়িতে লাশ দাফনের সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়। লাশ ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। প্রতিবেদন পেলে মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে।

যাযাদি/ এসএম

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে