শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০
walton

বিজয়নগরে দুই গোষ্ঠীর গ্রামবাসীর সংঘর্ষে শতাধিক আহত, আটক ৩৬

স্টাফ রিপোর্টার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
  ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৮:৩৭

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব বিরোধের জের ধরে বর্তমান ও সাবেক ইউপি সদস্যের অনুসারীদের মধ্যে তিনঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে উভয়পক্ষের কমপক্ষে শতাধিক লোক আহত হয়েছে। এ সময় উভয়পক্ষের বেশ কয়েকটি বাড়ি-ঘর ভাংচুর করে দাঙ্গাবাজরা।

আজ বুধবার সকালে উপজেলার হরষপুর ইউনিয়নের বুল্লা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ব্যাপক লাঠিপেটা এবং ৬ রাউন্ড গুলি নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। পুলিশ ৩৬ দাঙ্গাবাজকে আটক করেছে। আহতদের মধ্যে ৬৯জন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি ও চিকিৎসা নেয়।

আহতরা হলেন, কাউসার-(৪২), মুখলেছ মিয়া-(২৯), মোহন মিয়া- (২৫), জহুরুল হক-(৩২), আবদুল্লাহ-(২৫), ছুট্টু মিয়া-(৫৫), মিলন মিয়া- (২৩), রিপন মিয়া-(২৯), জাকির মিয়া-(২৮), রিপন মিয়া-(২২), আব্বাস আলী-(৪৫), তানভীর-(২২), আশু মিয়া-(৪২), শফিকুল-(৩২), রফিক মিয়া- (৩৮), জসিম-(৩২), রিপন-(২৮), আবু লাল- (৪০), কাউসার-(১৪), আবন মিয়া-(৩০), জয়নাল (৪০), লুৎফুর মিয়া-(৩০), সাদেকুল ইসলাম- (৪০), নাজমুল-(২০), অহিদ মিয়া-(৪০), তারেক -(২০), রাহিম- (৩০), জসিম-(২০), সিরাজ-(৪৫), খোশনাহার-(৪০), রাসেল-(১৪), নাসির মিয়া- (৪৫), ফায়েজ মিয়া-(৩০), বিল্লাল মিয়া-(৩৫), আবদুল্লাহ মিয়া-(২৭), আবু তাহের- (৯০), মোশাররফ-(৩০), সাকিব-(১৮), মিলন-(২৮), মনা মিয়া-(১৮), নাঈম-(১৫), হাকিম-(৩০), শামীম- (৩০), আবুল হোসেন-(৩৫), মোজাম্মেল মিয়া-(২৫), মামুন-(৩৫), আজগর-(৪০)সহ ৬৯জন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি ও চিকিৎসা নেয়।

স্থানীয় জানান, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও নারীঘটিত বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে হরষপুর ইউনিয়ন পরিষদের বুল্লা গ্রামের বাসিন্দা ও ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক মেম্বার জয়নাল আবেদীনের গোষ্ঠীর লোকজনের সাথে সাথে বর্তমান ইউপি সদস্য কাউসার আহমেদের গোষ্ঠীর লোকজনের বিরোধ চলে আসছিলো।

গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বর্তমান ইউপি মেম্বার কাউসার আহমেদের কাছে অল্প ভোটের ব্যবধানে এবং জয়নাল আবেদীন পরাজিত হন। এর পর থেকে পুরানো বিরোধ আরো চাঙ্গা হয়। গত ৩ মাস আগে ইউপি সদস্য কাউছার আহমেদের মেয়েকে জয়নালের পক্ষের মহসীন নামক এক যুবক জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। এনিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে আদালতে পাল্টাপাল্টি বেশ কয়েকটি মামলাও চলমান।

পরানো এসব বিরোধের জেরে বুধবার সকাল ৭টায় জয়নালের গোষ্ঠীর লোকজন ও বর্তমান মেম্বার কাউছার আহমেদের গোষ্ঠীর লোকজন দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এ সময় জয়নাল আবেদীনের গোষ্ঠীর লোকজনের সাথে গ্রামের ছোট-খাটো আরো ৫/৬টি গোষ্ঠীর লোকজন যোগ দিলে পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করে। তিন ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে উভয়পক্ষের শতাধিক লোক আহত হয়।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ব্যাপক লাঠিপেটা ও ৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে সকাল ১০টায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। খবর পয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল ও সদর হাসপাতাল থেকে ৩৬জনকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে ইউপি সদস্য কাউসার আহমেদও রয়েছেন।

এ ব্যাপারে বিজয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আসাদুল ইসলাম বলেন, পরিস্থিতি বর্তমানে নিয়ন্ত্রনে আছে। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তিনি ৩৬জনকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ ৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলি নিক্ষেপ করেছে।

যাযাদি/ এম

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে