logo
সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

চট্টগ্রাম বিস্ফোরণ নিয়ে দুই সংস্থার দুই মত

চট্টগ্রাম বিস্ফোরণ নিয়ে দুই সংস্থার দুই মত
বিস্ফোরণের পর দমকল বাহিনীর তৎপরতা -ফাইল ছবি
চট্টগ্রাম নগরের পাথরঘাটার ব্রিক ফিল্ড রোডে কিসের বিস্ফোরণ হয়েছিল, তা নিয়ে সরকারি দুই প্রতিষ্ঠান পরস্পরবিরোধী মত দিয়েছে। গ্যাসলাইন লিকেজের কারণে বিস্ফোরণ হয়নি বলে দাবি করেছে কর্ণফুলী গ্যাস বিতরণ কর্তৃপক্ষ লিমিটেড (কেজিডিসিএল)। আর বিস্ফোরক অধিদপ্তর বলছে, গ্যাসলাইনেই লিকেজ (ছিদ্র) ছিল।

ব্রিক ফিল্ড রোডের পাঁচতলা বড়ুয়া ভবনের নিচতলায় বিস্ফোরণ ও দেয়ালধসের ঘটনা ঘটে। ঘটনার ভয়াবহতা এতই গুরুতর যে বড়ুয়া ভবনের নিচতলার একটি দেয়াল মূল ফটকসহ গিয়ে পড়ে রাস্তার অপর পাশের বাদশা মিয়ার ভবনের ওপর। এই বিস্ফোরণে ৭ জন নিহত ও অন্তত ১২ জন আহত হন।

রোববার সকালে দুর্ঘটনার পর সন্ধ্যায় একটি প্রতিবেদন জমা দেয় কেজিডিসিএল। সেখানে বলা হয়, গ্যাসলাইন লিকেজের কারণে এ বিস্ফোরণ ঘটেনি। প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা ধারণা করছেন, সেপটিক ট্যাংকি থেকে এই বিস্ফোরণ হতে পারে।

সিটি করপোরেশনের মেয়র রোববার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বলেন, 'গ্যাস নিঃসরণের কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জেনেছি। এই ঘটনায় যদি কারও গাফিলতি থাকে, তাহলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তদন্ত কমিটি আগে তদন্ত করুক।'

দুর্ঘটনার পর জেলা প্রশাসন, নগর পুলিশ এবং কেজিডিসিএল পৃথকভাবে একটি করে মোট তিনটি কমিটি গঠন করে। জেলা প্রশাসনের কমিটিকে সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। নগর পুলিশের তদন্ত কমিটি দ্রম্নত সময়ের মধ্যে প্রতিবেদন দেবে বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তারা।

কেজিডিসিএলের তদন্ত কমিটি রোববার সন্ধ্যায় দুই পাতার প্রাথমিক তদন্ত প্রতিবেদন পেট্রোবাংলায় জমা দিয়েছে। কমিটির প্রধান প্রতিষ্ঠানের মহাব্যবস্থাপক (প্রকৌশল ও সেবা) মো. সারোয়ার হোসেন। তিনি সোমবার সকালে তার কার্যালয়ে দাবি করেছেন, প্রাথমিক তদন্তে তারা দেখেছেন গ্যাস নিঃসরণের কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেনি। কেননা গ্যাসের রাইজার, পাইপলাইন ও রান্নাঘরের চুলা সব অক্ষত ছিল। যদি গ্যাসের কারণে দুর্ঘটনা ঘটত, তাহলে এগুলোর যেকোনো একটি ক্ষতিগ্রস্ত হতো।

অল্প সময়ের মধ্যে তদন্ত যথাযথ হয়েছে কি না জানতে চাইলে মো. সারোয়ার হোসেন দাবি করেন, তারা যথাযথভাবে তদন্ত করেছেন। তদন্তে কোনো ধরনের ত্রম্নটি রাখেননি। তবে পেট্রোবাংলা বা মন্ত্রণালয় চাইলে আরও বিস্তারিত তদন্ত করতে পারে। প্রতিবেদন তা উলেস্নখ করেছেন তাঁরা।

একই কথা জানিয়েছেন কেজিডিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক খায়ের আহম্মদ মজুমদার। তিনি দাবি করেন, পাঁচতলা ভবনের সেপটিক ট্যাংক থেকে এই বিস্ফোরণ ঘটতে পারে বলে তারা ধারণা করছেন। বিস্ফোরক অধিদপ্তরের মন্তব্যকে অনুমাননির্ভর বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সোমবার সকালে প্রশাসনের দলটি দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এই পরিদর্শনের আগে বিস্ফোরক অধিদপ্তরের একটি দল ঘটনাস্থলে যায়। বিস্ফোরক অধিদপ্তরের পরিদর্শক মো. তোফাজ্জল বলেন, গ্যাস লিকেজে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

তবে বিস্ফোরক অধিদপ্তর ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা দুর্ঘটনার পরপর জানান, কোনো কারণে গ্যাস লিকেজ ছিল। প্রাথমিকভাবে গ্যাস নিঃসরণের কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে ধারণা করছেন তারা।

দুই সহোদরের

বিরুদ্ধে মামলা

চট্টগ্রামের পাথরঘাটার ব্রিক ফিল্ড রোডের বড়ুয়া ভবনে বিস্ফোরণে হতাহতের ঘটনায় অবহেলাজনিত মৃতু্য ও ক্ষতিসাধনের অভিযোগে মামলা হয়েছে।

ওই ঘটনায় নিহত রিকশাচালক মাহমুদুল হকের স্ত্রী শাহীনা আক্তার বাদী হয়ে সোমবার মামলা করেন বলে জানান কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিন।

মামলায় কাদের আসামি করা হয়েছে তা জানাতে অস্বীকৃতি জানিয়ে ওসি মহসিন বলেন, 'বিষয়টি তদন্তের। আগে থেকে নাম উলেস্নখ করা হলে অভিযুক্তরা পালিয়ে যাবে।'

তবে একাধিক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, মামলায় ভবনমালিক দুই সহোদর অমল বড়ুয়া ও টিটু বড়ুয়ার নাম উলেস্নখসহ অজ্ঞাত কয়েকজন সহযোগীকে আসামি করা হয়েছে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে