তাইওয়ানের জলসীমায় চীনের ক্ষেপণাস্ত্র, যুদ্ধজাহাজ পাঠাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

তাইওয়ানের জলসীমায় চীনের ক্ষেপণাস্ত্র, যুদ্ধজাহাজ পাঠাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির সফরের প্রতিক্রিয়ায় বৃহস্পতিবার তাইওয়ানকে ঘিরে তার সবচেয়ে বড় সামরিক মহড়া শুরু করেছে চীন।

পুরো তাইওয়ানকে ঘিরে ধরে মহড়া চালানো হচ্ছে। চলমান মহড়ায় তাজা গোলাবারুদ ব্যবহারের পাশপাশি ক্ষেপণাস্ত্রও ছুড়ছে চীন।

তাইওয়ানের উত্তর-পূর্ব এবং দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলের চারপাশের জলসীমায় বেশ কয়েকটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে চীন।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তাইওয়ানের জলসীমায় চীনের ছোড়া হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র ডংফেং-সেভেন্টিন এসে পড়েছে।

তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, তাইওয়ানের উত্তর, দক্ষিণ এবং পূর্বাঞ্চলীয় উপকূলের কাছে জলসীমায় অন্তত ১১টি ডংফেং ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে চীন।

বৃহস্পতিবার সকালের দিকে চীনের সামরিক বাহিনী প্রথমে তাইওয়ানের মাতসু দ্বীপপুঞ্জের কাছে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে। এক বিবৃতিতে তাইওয়ানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, দ্বীপের কাছাকাছি জলসীমায় ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে উত্তর কোরিয়াকে ‘অনুকরণ’ করেছে চীন।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তাইওয়ানের নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ফেলেছে চীন। এছাড়া এতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশকে গণতান্ত্রিক এই দ্বীপ ভূখণ্ডের প্রতি সমর্থন এবং স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রকে যৌথভাবে রক্ষা করার আহ্বান জানানো হয়েছে।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, স্বশাসিত দ্বীপ তাইওয়ানে ন্যান্সি পেলোসির সফরের পরদিন নজিরবিহীন সামরিক মহড়া থেকে বেশ কিছু ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে চীন।

এর আগে সর্বশেষ ১৯৯৬ সালে চীন তাইওয়ানের আশপাশে এ ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছিল। তারপরই এবারই প্রথম ন্যান্সি পেলোসির সফর ঘিরে তীব্র উত্তেজনার মাঝে সামরিক মহড়া থেকে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছে বেইজিং।

এমন পরিস্থিতিতে তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, ক্ষেপণাস্ত্র সম্পর্কিত প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সক্রিয় করেছে তারা।

চলমান উত্তেজনাতেও তাইওয়ানের নাগরিকদের জীবনযাপন স্বাভাবিক হলেও নাগরিকরা উদ্বিগ্ন। তাইওয়ান তাদের বিভিন্ন বিমানবন্দরে ৫০টি ফ্লাইট উড্ডয়ন ও অবতরণ বাতিল করেছে।

ওদিকে যুক্তরাষ্ট্র তাইওয়ান উপকূলে বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ পাঠাচ্ছে। ফিলিপাইনের উপকূল থেকে বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ রোনাল্ড রিগ্যান এরই মধ্যে তাইওয়ানে রওনা দিয়েছে।

যদিও যুক্তরাষ্ট্র বলছে, বর্তমান উত্তেজনার কারণে বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ পাঠানো হচ্ছে না। রুটিন অপারেশনের অংশ হিসেবেই রোনাল্ড রিগ্যান জাহাজটি সেখানে যাচ্ছে।

চীনের ড্রোন লক্ষ্য করে ফ্লেয়ার ছুড়েছে তাইওয়ান

বুধবার রাতে চীনের ড্রোন তাড়াতে ফ্লেয়ার ছুড়েছিল তাইওয়ানের সেনারা। তাইওয়ান সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল চ্যাং জোন-সুং জানিয়েছেন, বুধবার গভীর রাতে কিনমেন দ্বীপপুঞ্জের কাছে দুটি চীনা ড্রোন দেখা গিয়েছিল এবং দুইবার এলাকায় প্রবেশ করেছিল।

তিনি বলেন, ‘আমরা অবিলম্বে সতর্কতা জারি করতে এবং তাদের তাড়িয়ে দিতে ফ্লেয়ার ছুড়ি। এতে তারা ঘুরে দাঁড়ায়। তারা আমাদের এলাকায় এসেছিল, আমরা তাদের আমাদের এলাকা থেকে তাড়িয়ে দিয়েছি। আমাদের একটি স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং পদ্ধতি আছে। তারা প্রবেশ করলে আমরা প্রতিক্রিয়া জানাব’।

জেনারেলের দাবি, ড্রোনগুলোকে গোয়েন্দা তথ্য জোগাড় করতে পাঠানো হয়েছিল।

সাধারণত যুদ্ধবিমানের ক্যামোফ্লাজ, শত্রুর ছোড়া থার্মাল ক্ষেপণাস্ত্রকে বিভ্রান্ত করতে এবং যুদ্ধজাহাজের অবস্থান জানান দিতে ফ্লেয়ার ব্যবহার করা হয়।

কিনমেন দ্বীপপুঞ্জ তাইওয়ানের মূল ভূখণ্ড থেকে ১০ কিলোমিটারের মধ্যেই অবস্থিত এবং তাইওয়ানের সামরিক বাহিনী নিয়ন্ত্রিত খুবই সুরক্ষিত একটি অঞ্চল।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে