শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

অন্য ধর্ম গ্রহণে হিন্দুদের প্রশাসনের অনুমতি নিতে হবে

যাযাদি ডেস্ক
  ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:১০
ছবি সংগৃহিত

ভারতে দিন দিন সনাতন ধর্মের অনুসারীদের অন্য ধর্ম গ্রহণের প্রবণতা বাড়ছে। বিশেষ করে বৌদ্ধ ও খ্রিষ্টান হচ্ছে তারা। মুসলিম ধর্মে আগ্রহ থাকলেও মৃত্যুর ভয়ে এ হার কিছুটা কম। অনেকে আবার জৈন ধর্ম এবং শিখ ধর্মে ধর্মান্তরিত হচ্ছে। তবে এবার অত সহজে ধর্ম পরিবর্তন করা যাবে না। এদিকে ভারতের গুজরাট সরকার এই সপ্তাহের শুরুতে বৌদ্ধধর্মকে একটি স্বতন্ত্র ধর্ম হিসেবে মনোনীত করে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে। গুজরাট ধর্মীয় স্বাধীনতা আইন, ২০০৩-এর অধীনে রায় দিয়েছে যে হিন্দু ধর্ম থেকে বৌদ্ধ, জৈন ধর্ম এবং শিখ ধর্মে ধর্মান্তরিত হওয়ার জন্য এখন সংশ্লিষ্ট জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের আগাম অনুমোদনের প্রয়োজন হবে।

জানা যায় ৮ এপ্রিল রাজ্যের স্বরাষ্ট্র দফতরের পক্ষ থেকে এই নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। যার উদ্দেশ্য রূপান্তরের আবেদনগুলো পরিচালনা সম্পর্কিত উদ্বেগ দূর করা।

গুজরাটের জেলা ম্যাজিস্ট্রেট অফিসগুলো দ্বারা গুজরাট ফ্রিডম অফ রিলিজিয়ন অ্যাক্টের ব্যাখ্যায় বৈষম্য তুলে ধরে বিজ্ঞপ্তিতে ধর্মান্তরের আবেদনের জন্য নির্ধারিত পদ্ধতি মেনে চলার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেয়া হয়েছে। এটি এমন উদাহরণগুলো স্বীকার করেছে যেখানে আবেদনকারী এবং স্বায়ত্তশাসিত সংস্থাগুলো হিন্দু ধর্ম থেকে বৌদ্ধ ধর্মে ধর্মান্তরিত হওয়ার জন্য পূর্বের অনুমতির প্রয়োজনীয়তার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে।

বিজ্ঞপ্তিতে ধর্মান্তরকরণ সম্পর্কিত আইনি বিধানগুলোর অপর্যাপ্ত বোঝাপড়া থেকে উদ্ভূত সম্ভাব্য আইনি চ্যালেঞ্জগুলোর বিরুদ্ধে সতর্ক করা হয়েছে। এটি রূপান্তর আবেদনগুলো মূল্যায়ন করার সময় জেলা ম্যাজিস্ট্রেটদের দ্বারা আইনি কাঠামোর পুঙ্খানুপুঙ্খ পরীক্ষার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিয়েছিল।

তিনি বলেন, ‘হিন্দু ধর্ম থেকে বৌদ্ধ ধর্মে ধর্মান্তরিত হওয়ার অনুমতি চেয়ে আবেদনের ক্ষেত্রে নির্ধারিত পদ্ধতি মেনে চলার ক্ষেত্রে আমরা ত্রুটি লক্ষ্য করেছি। আমরা আবেদনকারী এবং স্বায়ত্তশাসিত সংস্থাগুলোর কাছ থেকে প্রতিক্রিয়া পেয়েছি যে এই জাতীয় ধর্মান্তকরণের জন্য আগাম অনুমতি অপ্রয়োজনীয়।

এই আইনের অধীনে বৌদ্ধধর্মের পৃথক মর্যাদার ওপর জোর দিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে যে ধর্মান্তরকরণে সহায়তাকারীদের অবশ্যই জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছ থেকে আগাম অনুমতি নিতে হবে। উপরন্তু, ধর্মান্তরিত ব্যক্তিদের সেই অনুযায়ী জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে জানাতে হবে।

জেলা ম্যাজিস্ট্রেটদের আইনি বিধান এবং রাজ্য সরকারের নির্দেশ অনুসারে ধর্মান্তরের আবেদনগুলো সাবধানতার সাথে পর্যালোচনা করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এই পদক্ষেপটি প্রক্রিয়াটিকে সহজতর করতে এবং গুজরাট জুড়ে ধর্মীয় রূপান্তর আবেদনগুলো পরিচালনার ক্ষেত্রে ধারাবাহিকতা নিশ্চিত করার চেষ্টা করে।

প্রলোভন, জবরদস্তি, ভুল বুঝিয়ে ধর্মান্তকরণ বা অন্য কোনো প্রতারণামূলক উপায়ের মাধ্যমে অর্জিত ধর্মীয় ধর্মান্তরকরণ রোধ করার লক্ষ্যে সরকার প্রাসঙ্গিক আইনটি চালু করেছিল। ২০২১ সালে প্রবর্তিত একটি সংশোধনীতে, আইনটি বিবাহের মাধ্যমে জোরপূর্বক ধর্মান্তরকরণ স্পষ্টভাবে নিষিদ্ধ করার জন্য সংশোধন করা হয়েছিল। এই আইনে কঠোর শাস্তির বিধান রয়েছে, অপরাধীদের সর্বোচ্চ ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড এবং ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত জরিমানা হতে পারে। সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে